Latest News

কলকাতার গল্প শোনাতে আসছে বোহো ট্রাঙ্ক ক্যাফে, নামী গল্পকারদের সঙ্গে অভিজ্ঞতা শোনাবেন আপনিও

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তিলোত্তমা কলকাতায় (Kolkata) প্রেমে পড়েননি এমন মানুষ বোধহয় বিরল। সাহিত্য, সংস্কৃতি সর্বোপরি তার সৌন্দর্যে বিমোহিত গোটা বিশ্ব। ভারতের অন্যান্য শহরগুলি থেকে কলকাতার আবেগ যা স্বকীয়তার দাবি রাখে। আমরা কর্মসূত্রে বা প্রয়োজনে পৃথিবীর যে প্রান্তেই যাই না কেন, এই শহরে মুগ্ধতা এবং মায়া আমাদের যেন আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে রেখেছে। ফলে কলকাতার হাতছানি আমরা সহজে এড়াতে পারি না।

Image - কলকাতার গল্প শোনাতে আসছে বোহো ট্রাঙ্ক ক্যাফে, নামী গল্পকারদের সঙ্গে অভিজ্ঞতা শোনাবেন আপনিও

সম্প্রতি রোড শো ফিল্মস এবং শ্যাডো ফিল্মস বোহো ট্রাঙ্ক ক্যাফে অ্যান্ড স্টোরের সঙ্গে যৌথভাবে ‘এই শহরের মায়া’ নামে একটা নতুন প্ল্যাটফর্ম চালু করল। যেখানে গল্পের মাধ্যমে নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরা যাবে। এই কলকাতা (Kolkata) শহর জুড়ে আছে অনেক স্মৃতি, অনেক গল্প। সেই গল্প এই প্ল্যাটফর্মে নির্দ্বিধায় নিজস্ব ঢঙে প্রকাশ করা যাবে, যা মননশীল উদ্যোগ। শহুরে গল্পকারদের গল্প বলার উপযুক্ত প্ল্যাটফর্মও বলা যেতে পারে। এই নতুন প্ল্যাটফর্মের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনে হাজির ছিলেন ‘শহরের উষ্ণতম দিনে ‘ছবির কাস্ট। ছিলেন অরিত্র সেন, বিক্রম চট্টোপাধ্যায়, দেবপ্রিয়া মুখোপাধ্যায় ,রাহুল দেব বোস, সুজয় প্রসাদ চট্টোপাধ্যায়, গৌরব চট্টোপাধ্যায় প্রমুখ। এঁরা প্রত্যেকেই এই শহর (Kolkata) কে কতটা ভালবাসেন এবং তাঁদের জীবনের সঙ্গে কতটা ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে সেই কথা গল্পের মধ্য়ে দিয়ে বলেন।

রাহুল দেব বোস জানান ,”আমি যখন স্কুলে ছিলাম তখন আমার শিক্ষক ছিলেন ইন্দ্রাশীষ লাহিড়ী। উনি প্রথম আমার মধ্যে অভিনয় প্রতিভা লক্ষ্য করেছিলেন। উনি আমার জীবনে একজন গুরুত্বপূর্ণ অংশ। অন্য কোনও শহরে আমার যদি জন্ম এবং বেড়ে ওঠা হত হয়তো ওঁনাকে আমি পেতাম না। উনি আমার বাবা মাকে অভিনয়ে আসতে রাজি করিয়েছিলেন।”

অন্যদিকে আবার বিক্রম চট্টোপাধ্যায়ের বলেন ‘ শহরের উষ্ণতম দিনে আমি রিতোবনের চরিত্রে কাজ করেছি। এই চরিত্রটি আমার জীবনকে প্রতিফলিত করে । ২০১২ -২০১৫ আমি কাজের উদ্দেশ্যে মুম্বইতে থাকতাম। আমি সেই সময় বিশ্বাস করতাম মুম্বই ইন্ডাস্ট্রি আমাকে খ্যাতি, যশ এনে দেবে। যতক্ষণ না মানুষ শহর ছেড়ে চলে যায়, ততক্ষণ এই শহরের সেই উষ্ণতা মানুষ বুঝতে পারেন না। সিনেমার অন্যতম চরিত্র রিতোবন এর থেকে আলাদা নয়।’

যাঁরা এই শহরের (Kolkata) কোনও গল্প বলতে চান তাঁরা ১০-১২ মিনিটের অডিও স্টোরি ই-মেল আইডিতে পাঠাতে পারেন। তবে গল্প যেন অবশ্যই সত্যঘটনা দ্বারা আধারিত হয়। গল্পকারে নিজস্ব জীবনের ঘটনা একমাত্র গ্রহণযোগ্য হবে। সঙ্গে একটি এক মিনিটের ভিডিও পাঠাতে হবে যেখানে গল্পকারের নাম এবং সে কেন এই বিষয়ে অংশগ্রহণ করতে চান তা জানাতে হবে। তবে শ্রেষ্ঠ গল্পকে বেছে নেওয়া হবে । বোহো ট্রাঙ্ক ক্যাফে অ্যান্ড স্টোরের স্টেজে তা পড়া হবে।
[email protected]– এ মেইল করে গল্প পাঠাতে হবে ।

You might also like