Latest News

ত্বকের বয়স আটকে দিতে ‘ব্ল্যাক ডায়মন্ড’ ফেসিয়ালের ম্যাজিক  

গৌরী বোস

আজকাল বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্বমানের নানা কোম্পানির প্রোডাক্ট লঞ্চিং ও প্রদর্শনী। এতে যোগদান করেন বিউটি ওয়ার্ল্ডের নানা নামীদামি ব্যক্তিত্ব। চুল থেকে পায়ের নখ পর্যন্ত নানা প্রোডাক্টের ব্যবহার, গুণগত মান, লেটেস্ট টেক্‌নিক ও টেকনোলজির ব্যাখ্যা, তার প্রয়োগ এবং আগের থেকে কত বেশি এফেক্টিভ সেসব নিয়ে এলাহি কর্মকাণ্ড চলে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। ২০০৪ সালে ইতালি প্যারিস ইত্যাদি জায়গায় দেখেছি ‘পপ আপ 3-D’ নেল ডিজাইন, পারমানেন্ট আইল্যাশ, কালার আরও কত কি! যাদের হোয়াইট স্কিন তারা ট্যানিং লোশন মেখে রোদে পুড়ে ট্যান হতে চান। তাই মেশিনের সাহায্যে পারমানেন্ট বডি ট্যানিংও করা হয়। কিন্তু মজার ব্যাপার আমাদের মতো ব্রাউন স্কিন যাদের, তাদের কাছে আবার এই ট্যানিং ব্যাপারটা দুর্বিষহ। এই ২০২১ সালেও এসমস্ত আধুনিক টেকনোলজি ভারতে আসে নি। এছাড়া নতুন নতুন মেক-আপ সামগ্রীর ব্যবহারে কীভাবে বার্ধক্যের ছাপ, দাগ, গর্ত, কালো ছোপকে লুকিয়ে ফেলে আরও আকর্ষণীয় হওয়া যায় সেসবও প্রদর্শিত করা হয় এই মঞ্চে। বিশ্বমানের নানান সংস্থার পৃষ্ঠপোষকতায় এই সব আধুনিক প্রোডাক্ট নিয়ে ফ্যাশান-শোগুলোতে বিশ্বসুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারিণীরা নিজেদের উপস্থাপনা করেন।বিশ্বের সর্ব্বোচ্চমানের হাতে গোনা যে কটা বিউটি প্রোডাক্টের ব্র্যান্ড আছে ‘এস্‌টি লডার'(Estee Lauder) তার ভেতর অন্যতম। বহু পুরনো এই ব্র্যান্ড বিজ্ঞানসম্মতভাবে পরীক্ষিত, প্রমাণিত এবং টাইম টেস্টেড্‌। এদের তৈরি স্কিনকেয়ার সামগ্রী দীর্ঘদিন ধরে আমরা ব্যবহার করে আসছি। প্রায় ২৮-২৯ বছর এদের সঙ্গে যুক্ত আমরা। দীর্ঘ সময় ধরে তার ব্যবহার, কার্যকারিতা ও ফলাফলের ভিত্তিতে অনায়াসে বলতে পারি কোনও সাইড-এফেক্ট এখনও দেখিনি। যদিও অভিজ্ঞ এস্থেটিশিয়ানের পরামর্শ বাদ দিয়ে নিজের বিদ্যেবুদ্ধি খাটিয়ে ব্যবহার করলে কুফলের সম্ভবনা থেকেই যায়। কারণ সবার জন্য সব প্রোডাক্ট নয়। যার যেমন প্রয়োজন তার উপর ভিত্তি করেই সৌন্দর্য চার্ট তৈরি করা হয়। বয়স, ত্বকের গুণগত অবস্থা, ফুড হ্যাবিট, লাইফস্টাইল, আবহাওয়া, শারীরিক সমস্যা ইত্যাদির উপর নির্ভর করে তবেই সেই চার্ট তৈরি করা হয়।‘এস্‌টি লডার’ এবার যে নতুন রেঞ্জ এনেছে তার নাম ‘রি-নিউট্রিভ আল্টিমেট ডায়মন্ড’ (Re-Nutrive Ultimate Diamond)। এই রেঞ্জের প্রোডাক্টের ব্যবহারে ত্বকের বার্ধক্য নিয়ন্ত্রণ হয়, ইলাস্টেন্‌ ও কোলাজেনের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ঘটে, ত্বকের গভীরে কাজ করার ফলে ত্বকের উজ্জ্বলতা, টাইট্‌নেস ফিরে আসে, চলে যেতে থাকে রিংকলস্‌। তার ফলাফল হিসেবে ফিরে আসে সতেজতায় ভরা ইয়ং লুক।দেশ অনুযায়ী এসব বিউটি প্রোডাক্টের দামের তারতম্য হয়। হয়তো এই মুহূর্তে দাম কিছুটা বেড়েওছে। কিন্তু আজকের যুগে রূপচর্চার পাঞ্চ লাইন– “বুড়ি বা বুড়ো হব না”। আর চাহিদামাফিক ফল পেতে হলে সামান্য কিছু অতিরিক্ত খরচ করতে দ্বিধা করবে না কেউ। এতখানি ফলদায়ক আর কোনও ব্র্যান্ড প্রোডাক্ট আছে কিনা ৪১ বছরের অভিজ্ঞতায় এখন পর্যন্ত তা আমার জানা নেই।

এই ‘রি-নিউট্রিভ আল্টিমেট ডায়মন্ড’ রেঞ্জে আছে ৫টা প্রোডাক্ট: ১) ট্রান্সফরমেটিভ এনার্জি আই ক্রিম (Transformative Energy Eye Cream), ২) ট্রান্সফরমেটিভ এনার্জি ক্রিম (Transformative Energy Cream), ৩) স্কাল্পটিং/রিফিনিশিং ডুয়েল ইনফিউসন্‌ (Sculpting/ Refinishing Dual Infusion), ৪)রিভাইটিলাইজিং মাস্ক নয়ের (Revitilising Mask Noir), ৫) ট্রান্সফরমেটিভ ম্যাসাজ মাস্ক (Transformative Massage Mask)। এর সঙ্গে আছে ১টা সেরামিক স্টোন যার আকৃতি ও মসৃণতা ডিমের মত আর ১ টা মোটা অতি নরম ব্রাশ। সিরাম, ক্রিম, আই-ক্রিম, মাস্ক, স্পা-ক্রিম এই হল পুরো রেঞ্জ।সাধারণভাবে ডায়মন্ড শুনলেই মনে হয় হিরে থেকে তৈরি, অথচ বাস্তবে এর সঙ্গে হিরের কোনও যোগসূত্র নেই। এই রেঞ্জে আছে ব্ল্যাক ডায়মন্ড ট্রাফেল এক্সট্র্যাক্ট (Black Diamond Truffle Extract) যা  ব্ল্যাক ডায়মন্ড ট্রাফেল নামক একজাতীয় ছত্রাক থেকে তৈরি হয়। এটি প্রকৃতির একটি অনন্য ও মহার্ঘ্য সম্পদ। সাধারণত ছত্রাক বা মাশরুম ভিজে কাঠের গুঁড়ি কিংবা মাটিতে হয়, এটি কিন্তু আলাদাভাবে জীবন্ত ওক্‌ বা হ্যজেলনাট্‌ গাছের শিকড়ের উপর চাষ করা হয়। শোনা যায় রূপচর্চা সংক্রান্ত যে সমস্ত প্রাকৃতিক জিনিস ব্যবহার করা হয় এটি তার মধ্যে সবচেয়ে দামি। দেখতে কালো, গন্ধ অসাধারণ, আর এর গুণাগুণ স্কিনের মহৌষধ।ফ্রান্সের পেরিগোস্ট (Perigord) রিজিয়নে এর চাষ শুরু হলেও আজ পৃথিবীর অনেক জায়গাতেই এর চাষ হয়।বছরের একটা নির্দিষ্ট সময়ে এর চাষ করতে হয়। এতে আছে আনুমানিক ১৩০০ প্রোটিন, ভিটামিন সি, অন্যান্য ভিটামিনস ও মিনারেলস্‌। এস্‌টি লডার প্রথম গবেষণা করে জানতে পারে এই জিনিসটির স্কিনের ক্ষেত্রে গুণগত অবদান। প্রায় ন’টা স্টেজের ডিস্টিলেশনের মাধ্যমে ১০-১৫ কেজি ট্রাফেল থেকে পাওয়া যায় মাত্র ১ কেজি নির্যাস। বিশ্ববাজারে ট্রাফেলের দাম পাউন্ড প্রতি ৮০০-৯০০ ডলার। তাহলেই অনুমান করা যায় এক্সট্র্যাক্টের দাম কত। শুধু তাই নয় এটাও জেনে রাখুন এক একটা ব্যাচ প্রোডাক্ট তৈরি করতে ১০,০০০ ঘণ্টা সময় লাগে। এইসব কারণেই এই রেঞ্জের প্রোডাক্টের মাধ্যমে ফেসিয়াল ও স্কিন কেয়ারের উপকারিতা ও মূল্য সাধারণের থেকে বেশি। সেসব কিছু মাথায় রেখেও অনেক বছর আগেই এস্‌টি লডার নিয়ে প্রথম কাজ শুরু করেছে শাকম্ভরী।

লেখিকা বিশেষজ্ঞ এস্থেটিশিয়ান, মেক-আপ ডিজাইনার ও এডুকেটর,
যোগাযোগ- শাকম্ভরী বডি এ্যান্ড বিউটি ক্লিনিক
203, এ.পি.সি. রোড, কোলকাতা 700004
মোবাইল : 7003893883         

 

বয়স ধরে রাখতে স্পর্শহীন জেড স্টোন ফেসিয়াল

You might also like