বুধবার, অক্টোবর ১৬

BREAKING: ৬১ জন মৎস্যজীবী নিয়ে সলিল সমাধি চারটি ট্রলারের! দেখুন ভিডিও

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ট্রলারে করে বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন কাকদ্বীপের মৎস্যজীবীরা। ফিরে আসার সময়ে ডুবে গেল চারটি ট্রলার! সব মিলিয়ে চারটি ট্রলারে মোট ৬১ জন মৎস্যজীবী ছিলেন বলে জানা গিয়েছে। তাঁদের মধ্যে ২৭ জন এখনও নিখোঁজ! রবিবার সন্ধেয় ঘটনাটি ঘটেছে বাংলাদেশের হাঁড়িভাঙা চরের কাছে। এই ঘটনায় চূড়ান্ত আতঙ্ক ছড়িয়েছে। নিখোঁজদের সন্ধানে তল্লাশি চালাচ্ছেন উপকূলরক্ষী বাহিনীর সদস্যরা।

কাকদ্বীপ মৎস্যজীবী উন্নয়নের সম্পাদক বিজন মাইতি জানিয়েছেন, ১ জুলাই থেকে আবহাওয়া দফতরের নিষেধাজ্ঞা চলছে সমুদ্রে যাওয়ার ব্যাপারে। তা সত্ত্বেও কয়েকটি ট্রলার রবিবার চলে যায় মাঝসমুদ্রে। কিন্তু পশ্চিমা বাতাসের তোড়ে বাংলাদেশের দিকে ঢুকে যায় ট্রলারগুলি। তখন খেই হারিয়ে উপকূলে ফেরার চেষ্টা করে তারা। কিন্তু তার আগেই উথালপাথাল সমুদ্রে ডুবে যায় চারটি ট্রলার। ৩৪ জনকে উদ্ধার করা গেলেও, বাকিরা এখনও নিখোঁজ।

দেখুন মর্মান্তিক ভিডিও।

কাকদ্বীপে লঞ্চডুবি

মাছ ধরতে গিয়ে ফিরে আসার সময়ে ৬১ জন মৎস্যজীবী নিয়ে চারটি ট্রলার ডুবে গেল কাকদ্বীপে। মর্মান্তিক এই ঘটনায় নিখোঁজ ২৭ জন। দেখুন ভিডিও।

The Wall এতে পোস্ট করেছেন রবিবার, 7 জুলাই, 2019

সূত্রের খবর, নিখোঁজ চারটে ট্রলারের নাম হল, এফবি দশভুজা, এফবি নয়ন, এফবি বাবাজি, এফবি জয়জগী। প্রথম ট্রলারে ১৫ জন মৎস্যজীবী ছিলেন, তাঁদের মধ্যে এখনও পর্যন্ত চার জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। ১১ জন নিখোঁজ। দ্বিতীয় ট্রলারে ছিলেন ১৬ জন মৎস্যজীবী। ওই ট্রলারটি সহ সকলেই নিখোঁজ। তৃতীয় ট্রলারটিও ১৫ জন মৎস্যজীবী-সহ ডুবে গিয়েছে। চতুর্থ ট্রলার এফবি জয়জগী থেকে ১৫ জন উদ্ধার হলেও ট্রলারটি এখনও নিখোঁজ।

বিজন মাইতি জানান, ভারতীয় উপকূলরক্ষী বাহিনীকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। বাংলাদেশের উপকূলরক্ষী বাহিনীর সঙ্গেও যোগাযোগ করা হচ্ছে যাতে দ্রুত উদ্ধার হন সকলে।

Comments are closed.