রবিবার, আগস্ট ২৫

৩৭০ ধারা বিলোপের আগে জম্মু-কাশ্মীরের মানুষের কথা শোনা উচিত ছিল, মুখ খুললেন মনমোহন

দ্য ওয়াল ব্যুরো : সনিয়া গান্ধী কংগ্রেস সভানেত্রীর দায়িত্ব নেওয়ার পরে ৩৭০ ধারা বিলোপ নিয়ে প্রথমবার মুখ খুললেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। সোমবার তিনি স্পষ্ট বললেন, সংবিধানের ৩৭০ ধারা বিলোপ করা দেশের অনেকেই পছন্দ করেননি। ভারত বলতে আমরা যা বুঝি, সেই ধারণাকে রক্ষা করার জন্য আমাদের জম্মু-কাশ্মীরের মানুষের কথা শোনা উচিত ছিল। একই সঙ্গে মনমোহন মন্তব্য করেন, ভারত এখন গভীর সংকটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। এই সময় সমমনস্ক মানুষজনের পরস্পরের মধ্যে সহযোগিতা জরুরি।

তাঁর কথায়, ৩৭০ ধারার অবলুপ্তি আমাদের দেশে অনেকেই পছন্দ করেননি। তাঁদের কথা শোনা উচিত ছিল। আমরা যদি সরব হই, তাহলেই শেষ অবধি ভারত সম্পর্কে আমাদের ধারণা রক্ষা পাবে।

এদিন কংগ্রেস নেতা এস জয়পাল রেড্ডির স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মনমোহন বক্তব্য পেশ করেন। প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জয়পাল রেড্ডি গত জুলাইয়ে হায়দরাবাদে মারা গিয়েছেন। মনমোহন বলেন, এখন আমরা কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। অন্ধকারের শক্তিগুলো ভারত নামক আইডিয়াটি আচ্ছন্ন করে ফেলেছে। আমি দুঃখিত যে আমাদের বন্ধু জয়পাল রেড্ডি এই কঠিন সময়ে আমাদের মধ্যে নেই।

পরে তিনি বলেন, দেশ এখন গভীর সংকটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। এইসময় সকল সমমনস্ক মানুষকে পরস্পরের সঙ্গে সহযোগিতা করতে হবে। জয়পাল রেড্ডি সম্পর্কে মনমোহন বলেন, তিনি ছিলেন আশাবাদী। পৃথক তেলেঙ্গানা রাজ্য গঠনের দৃঢ় সমর্থক।

তাঁর কথায়, ২০১৪ সালে যখন অন্ধ্রপ্রদেশ ভেঙে তেলঙ্গানা রাজ্য গঠিত হয়, তখন জয়পাল রেড্ডি নীরবে খুব গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে গিয়েছেন। এদিন জয়পাল রেড্ডির উদ্দেশে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ করেন সিপিএমের সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি, সিপিআইয়ের সাধারণ সম্পাদক ডি রাজা এবং কংগ্রেস নেতা মণিশংকর আয়ার। ইয়েচুরি ও রাজা ৩৭০ ধারা তুলে দেওয়ার কঠোর সমালোচনা করেন। রেড্ডি স্মরণে ইয়েচুরি বলেন, তিনি ছিলেন আমার ফ্রেন্ড, ফিলোজফার ও গাইড। এখন আমাদের দেশ গভীর সংকটে পড়েছে। এইসময় তিনি চলে গেলেন।

Comments are closed.