Latest News

কোভিডের জন্য একাই দায়ী নির্বাচন কমিশন, অফিসারদের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ আনা উচিত: মাদ্রাজ হাইকোর্ট

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউয়ের জন্য সরাসরি নির্বাচন কমিশনকে কাঠগড়ায় দাঁড় করাল মাদ্রাজ হাইকোর্ট। প্রধান বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন একটি মামলার প্রেক্ষিতে যে মন্তব্য করেছেন তা নজিরবিহীন। নির্বাচন কমিশনকে কার্যত তুলোধনা করেছে আদালত।

কোভিড সংক্রমণ বাড়ছে দেখেও নির্বাচন কমিশন যে ভাবে রাজনৈতিক দলগুলিকে জনসভা, রোড শো, বড় জমায়েত করার অনুমতি দিয়েছে তার তীব্র সমালোচনা করেছেন বিচারপতি বন্দ্যোপাধ্যায়। নির্বাচন কমিশনের আইনজীবীর উদ্দেশে প্রধান বিচারপতি বলেছেন, “আপনার প্রতিষ্ঠান একা দায়ী কোভিডের এই দ্বিতীয় ঢেউয়ের জন্য। আপনাদের অফিসারদের খুনের অভিযোগে অভিযুক্ত করা উচিত।”

আদালত এদিন স্পষ্ট করে বলেছে, নির্বাচনী প্রচারে মাস্ক পরা, ফেস শিল্ড পরা, স্যানিটাইজার ব্যবহার করা, সামাজিক দূরত্ব মানার মতো কোভিড বিধি রক্ষা করানোর ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন ব্যর্থ। আদালত যে নির্দেশ দিয়েছিল কমিশনকে তা তারা পালন করতে পারেনি।

এখানেই থামেননি মাদ্রাজ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়। কমিশনের কৌঁসুলীর উদ্দেশে তাঁর তির্যক প্রশ্ন, “যখন এত বড় বড় জমায়েত হচ্ছিল নির্বাচনী প্রচারের নামে, তখন কি আপনি অন্য গ্রহে ছিলেন?”

আদালত কমিশনের উদ্দেশে হুঁশিয়ারির সুরে এদিন বলেছে, গণনা কেন্দ্রে যদি নির্বাচন কমিশন কোভিড বিধি না মানে, যদি পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না করে, তাহলে ২ মে গণনা প্রক্রিয়াই বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দেবে আদালত।

আদালত আরও বলেছে, “জনস্বাস্থ্যের বিষয়টি সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু দুঃখের বিষয় হল, এই রকম একটা সংবেদনশীল বিষয় নির্বাচন কমিশনের মতো একটা সাংবিধানিক সংস্থাকে স্মরণ করিয়ে দিতে হচ্ছে। আগে তো মানুষের বেঁছে থাকা। তারপর তো গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ!” প্রধান বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর পর্যবেক্ষণে এও বলেছেন, “এখন সব থেকে গুরুত্বপূরররণ হল মানুষের বেঁচে থাকা। বাকি সব কিছু তার পর।”

এই পর্যবেক্ষণ মূলত তামিলনাড়ুর পরিস্থিতি নিয়ে। তবে অনেকেই মনে করছেন, মাদ্রাজ হাইকোর্ট সার্বিক ভাবেই কমিশনকে কাঠগড়ায় তুলতে চেয়েছে। কারণ যে পাঁচ রাজ্যে নির্বাচন হয়েছে বা হচ্ছে, সেখানে সংক্রমণ বৃদ্ধির হারও মারাত্মক। বাংলাতেও একের পর এক প্রার্থী কোভিডে আক্রান্ত হচ্ছেন। মৃত্যুও হচ্ছে। গতকালই খড়দহের তৃণমূল প্রার্থী কাজল সিনহা কোভিডে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন। তামিলনাড়ুর স্বাস্থ্য সচিব, নির্বাচন কমিশনের আইনজীবীর উদ্দেশে আদালত বলেছে, গণনা কেন্দ্রে কোভিড প্রোটোকল বজায় রাখার ক্ষেত্রে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে হবে। কী ব্যবস্থা নেওয়া হল তা ৩০ এপ্রিল আদালতকে জানাতে হবে। ৩০ এপ্রিল ফের এই মামলার শুনানি হবে বলে জানিয়েছে মাদ্রাজ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ।

You might also like