Latest News

Maoist Poster উদ্ধার হল সাত দিনে তিন বার, পুরুলিয়াকেই এপিসেন্টার করার চেষ্টা?

দ্য ওয়াল ব্যুরো

গত ২৬ ফেব্রুয়ারি সাত সকাল। পুরুলিয়ার আড়ষা হেরোডি, মিশিরডি, বেলডি গ্রামের মানুষের যখন ঘুম ভাঙল, একলহমায় ফিরে গিয়েছিলেন ১৩-১৪ বছর আগে। এলাকা ছেয়ে গিয়েছে মাওবাদী পোস্টারে (Maosit Poster)। তবে ধরন কিছুটা বদলেছে। এখন আর সেই আলতা দিয়ে হাতে লেখা পোস্টার নেই। সাদা কাগজে লাল লিথো প্রিন্ট।

ঠিক তার একদিন পর পুরুলিয়ার (Purulia) বাঘমুন্ডি ব্লকে মিলেছিল মাওবাদী পোস্টার। সেগুলো আবার ছাপা ছিল না। সাদা কাগজে লাল স্কেচ পেন দিয়ে লেখা। সেই পোস্টারের মূল কথা ছিল, ‘১ মার্চ জঙ্গলমহল বনধ!’এবং ‘বিপ্লব ভাই ও রিমেল ভাই অমর রহে, তাদের মৃত্যুর বদলা চাই।’ তাতে এও লেখা ছিল, ‘আমাদের ছেলেদের টাকা, চাকরির টোপ দিয়ে আর রাখা যাবে না।’ সবকটি পোস্টারের নীচে লেখা—সিপিআই মাওবাদী, দলমা বাবা।

জঙ্গলমহল বনধের ডাক মাওবাদীদের

৪ মার্চ সকাল ফের সেই আড়ষা গ্রাম। আড়ষা ব্লকের অন্তগর্ত চাটুহাসা, মুদালি, সিন্দুরপুর, ছাত্রাজেরা-সহ বেশ কিছু এলাকা থেকে ফের উদ্ধার হল মাওবাদী পোস্টার। ধরন সেই এক। ২৬ ফেব্রুয়ারি যেমন হয়েছিল। পুলিশ গিয়ে সব পোস্টার উদ্ধার করেছে বটে। কিন্তু বড় ফ্রেমে দেখলে বোঝা যাচ্ছে, এক সপ্তাহে তিন দিন দুটি ব্লকের একাধিক গ্রামে মাওবাদী পোস্টার উদ্ধার হল। সবকটি পুরুলিয়ায়।

এ ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানার জন্য পুরুলিয়ার পুলিশ সুপার সেলভম মুরুগানের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু তাঁর ফোন সুইচ অফ। পরে এ ব্যাপারে তাঁর প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেলে এই প্রতিবেদনে আপডেট করা হবে।

Maosit Poster: কিন্তু প্রশ্ন উঠছে, পরপর পুরুলিয়াতেই কেন মাওবাদী পোস্টার উদ্ধার হচ্ছে? তাহলে কি সমগ্র জঙ্গলমহলকে ঘিরতে নতুন করে সেই পুরুলিয়াকেই এপিসেন্টার করতে চাইছে মাওবাদীরা?

বামফ্রন্ট সরকারের সময়ে মাওবাদী কার্যকলাপে যে ভাবে জঙ্গলমহল উত্তপ্ত হয়েছিল, খুনোখুনিতে রক্তাক্ত হয়েছিল সেই স্মৃতি এখনও টাটকা। ঘটনা হল, সেই সময়েও পুরুলিয়াকে কেন্দ্র করেই সমগ্র পশ্চিমাঞ্চলে সংগঠনের বিস্তার ঘটিয়েছিল মাওবাদীরা। ২০০৫ সালের ৩১ ডিসেম্বর রাতে প্রথম আঘাত হেনেছিল মাওবাদীরা। বান্দোয়ানের সিপিএম নেতা রবীন্দ্রনাথ করকে সস্ত্রীক গুলি করার পর ঘরের মধ্যেই আগুন লাগিয়ে মারা হয়েছিল। সেই সময়ে সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক ছিলেন অনিল বিশ্বাস। পরের দিনই পুরুলিয়ায় পৌঁছেছিলেন তিনি।

আড়ষা গ্রামে যে পোস্টার পড়েছে তাতে মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে যেমন নরেন্দ্র মোদী সরকারের বিরোধিতা রয়েছে তেমনই রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে রয়েছে হুঁশিয়ারি। পুলিশকে হুমকির সুরেই বলা হয়েছে, তারা যেন তৃণমূলের দলদাস হয়ে না কাজ করে। পরপর এমন পোস্টারে তাই মাওবাদী তৎপরতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে প্রশাসনের অন্দরেও। আতঙ্ক ছড়াচ্ছে জঙ্গলমহলে।

You might also like