ফেসবুকের কিছু কর্মী খুব শিগগির এ ধরনের চশমা পরে ঘুরবেন, কী এই এআর গ্লাস, বিশেষত্ব কী

৮৯

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: প্রায় ১০০ জন ফেসবুক কর্মী খুব শিগগির এক নতুন ধরনের চশমা পরে ঘুরবেন। ফেসবুক রিয়েলিটি ল্যাব এই ‘অগমেন্টেড রিয়েলিটি (এআর) রিসার্চ গ্লাস’ তৈরি করেছে। এখনই তা বাজারে ছাড়া হচ্ছে না। একে প্রোটোটাইপও বলা যাবে না। তাই বলা হচ্ছে, এ আর রিসার্চ গ্লাস। আমেরিকার সান ফ্রান্সিসকো ও সিয়াটেল শহরে ফেসবুক কর্মীরা এই বিশেষ চশমা পরে ঘুরবেন।

এই চশমা সম্পর্কে বিশদে জানার আগে জেনে রাখা উচিত অগমেন্টেড রিয়েলিটি (AR) বলতে কী বোঝায়?


এ হলো এমন এক প্রযুক্তি, যাকে বাস্তব জগতের এক বর্ধিত সংস্করণ বলা যেতে পারে। আপনি বাস্তবে যা দেখবেন, তার উপর কম্পিউটার নির্মিত একটি স্তর যুক্ত করে দেবে অগমেন্টেড রিয়েলিটি। আর তখন সেই বাস্তব এবং ভার্চুয়ালের সংমিশ্রণে তৈরি হবে এক নতুন অনুভূতি, সব কিছুকে এক ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে দেখার অভিজ্ঞতা। ‘Augmented Reality’ শব্দগুচ্ছের মূল শব্দ হলো ‘Augment’, যার অর্থ হলো কোনো কিছু যুক্ত করা। মূলত বাস্তবিক পরিবেশের সাথে যে কম্পিউটার নির্মিত ভার্চুয়াল স্তর যুক্ত করা হয়, এখানে তা-ই বোঝানো হয়েছে। আপনি যা দেখতে চাইবেন, আপনার চাহিদা অনুযায়ী আপনাকে তা-ই দেখাবে অগমেন্টেড রিয়েলিটি। শুধু কম্পিউটার নির্মিত চিত্রই নয়, এতে থাকতে পারে শব্দ, ভিডিও, গ্রাফিক্স, স্পর্শ করার অনুভূতি, এমনকি জিপিএস ডেটাও!

ব্যাপারটা গল্পের মতো করে বোঝা যেতে পারে। ধরা যাক আপনি একজন শিক্ষার্থী। পড়ার টেবিলে বসে বইয়ের লেখাগুলো একঘেয়ে লাগছে? বুঝতে সমস্যা হচ্ছে? এই একঘেয়েমির বদলে যদি একটি মজা করে পড়া যায় তা হলে তো মন্দ হয় না। ধরুন, চোখের সামনেই বইয়ের উপরেই বইয়ের সব তথ্যের উপর ভিত্তি করে অ্যানিমেশনের মাধ্যমে আপনার কাছে পুরো ব্যাপারটি স্পষ্ট করে দেওয়া হলো, মনে হবে যেন তা বাস্তবেই হচ্ছে। কিংবা গ্যালারিতে বসে খেলা দেখছেন আর টিভি সেটে যেভাবে স্কোর দেখানো হয় আপনি ঠিক সেভাবেই আপনার সামনে সেই স্কোর বোর্ডটি দেখতে পাচ্ছেন, যা প্রতি মুহূর্তে পাল্টে যাচ্ছে খেলার সাথে সাথে।

বা ধরুন, অচেনা কোনো এক স্থানে ঘুরতে গেলেন গাড়িতে করে। আপনি ড্রাইভ করার সময় চোখের ইশারাতেই আপনার সামনে ভেসে উঠছে রাস্তা কিংবা আশেপাশের বিভিন্ন তথ্য। কখনও কখনও আপনি চাইলেই ইশারায় শুনে নিতে পারছেন দরকারি বিভিন্ন নির্দেশনা, যেমন- আজকের দিনের সম্ভাব্য আবহাওয়ার তথ্য। রাস্তায় জ্যাম থাকলে আপনার সামনে চলে আসছে শর্টকাট পথের নেভিগেশন, যা আপনার জন্য নিরাপদ এবং সময় সাশ্রয়ী।

ফেসবুক রিয়েলিটি ল্যাবের অ্যান্ড্রিউ বসওয়ার্থ বুধবার রাতে এক ফেসবুক লাইভে জানিয়েছে, এই এআর রিসার্চ চশমাটি যিনি পরে থাকবেন তিনি বাস্তব জগতের একটা থ্রিডি গ্রাফিক্স ছবি দেখতে পাবেন। সেই সঙ্গে আনুসঙ্গিক তথ্যও পেতে থাকবেন।
বসওয়ার্থ আরও জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে তাঁদের গবেষণা পুরোপুরি শেষ হয়নি। বরং তা চলছে। এই প্রকল্পের নাম দেওয়া হয়েছে ‘প্রোজেক্ট আরিয়া’। ফেসবুকের যে কর্মীরা এতে অংশগ্রহণ করবেন, অর্থাৎ এআর গ্লাস পরে ঘুরবেন, তাঁরা আগামী দিনে প্রচুর ডেটা সংগ্রহ করবেন। কর্মক্ষেত্রে এই গ্লাস কীভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে, এই চশমা পরলেও কীভাবে অন্যের গোপনীয়তা বজায় থাকবে সে ব্যাপারে গবেষণায় তাঁরা ইনপুট দেবেন। কারণ, এই এআর গ্লাস যিনি পরে থাকবেন তাঁর দৃষ্টিভঙ্গীতেই ডিভাইসটি অডিও এবং ভিডিও ক্যাপচার করবে। চশমা যিনি যে পরে রয়েছেন তাঁর দৃষ্টি কোন দিকে তা ট্র্যাক করবে চশমাটির সেনসর ডিভাইস।

বসওয়ার্থের কথায়, “আমরা সবে এটা ল্যাব থেকে বাস্তবের দুনিয়ার বের করেছি। এখন দেখতে চাই আলো, আবহাওয়ার পরিবর্তনের নিরিখে তা কীভাবে ডেটা সংগ্রহ করতে পারে। এবং দীর্ঘামেয়াদে সেই ডেটা কতটা কার্যকর হতে পারে।” শুধু তাই নয়, এও গবেষণা করে দেখা হবে এই ডিভাইসটিতে কী ধরনের সেনসর বেশি কার্যকরী হতে পারে, তাদের বিশ্লেষণ করার ক্ষমতা কতটা থাকা দরকার। তা ছাড়া এই গ্লাসটির ডিজাইন ও ওয়ারলেসের ক্ষমতা কতটা থাকা দরকার তা নির্ণয় করাও খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ফেসবুকের এই এআর রিসার্চ গ্লাসের সামনে থাকবে একটি ক্যামেরা। সেই সঙ্গে থাকবে সেন্সর ও মাইক্রোফোন। তবে লেন্সে কোনও ডিসপ্লে থাকবে না।

সামগ্রিক এই গবেষণা নিয়ে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ খুবই সতর্ক। যে ফেসবুক কর্মীরা এই চশমা পরে বেরোবেন তাঁরা একটি শার্ট পরে থাকবেন। যাতে লেখা থাকবে তিনি ফেসবুকের কর্মী এবং অগমেন্টেড রিয়েলিটি নিয়ে কাজ করছেন। সেখানে একটি ওয়েবসাইটের ঠিকানা লেখা থাকবে। যে সাইটে প্রোজেক্ট সম্পর্কে বিস্তারিত লেখা থাকবে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More