রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৫

সাজানো কথা পাকিস্তানের, কাশ্মীর নিয়ে রাষ্ট্রসঙ্ঘে পাল্টা জবাব ভারতের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জেনেভায় রাষ্ট্রসঙ্ঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের বৈঠকে পাকিস্তানের বক্তব্যের কড়া জবাব দিল ভারত। ভারতের পক্ষে বিজয় ঠাকুর সিংহ পাকিস্তানের বক্তব্যকে সাজানো বলে বর্ণনা করলেন। পাশাপাশি তিনি এও জানিয়ে দিলেন যে, জম্মু ও কাশ্মীর ইস্যু একান্ত ভাবেই ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। পাকিস্তানের নাম উল্লেখ না করলেও তিনি বলেন, ‘‘বিশ্ব জানে এই সাজানো গপ্পো তৈরি করছে বিশ্ব সন্ত্রাসবাদের কেন্দ্রস্থল, যেখানে জঙ্গি নেতারা বছরের পর বছর আশ্রয় পায়। এমন এক দেশ যারা আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ পরিচালনা করে কূটনীতির অংশ হিসেবে।”

উল্লেখ্য, কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে ইউএনএইচআরসি-তে নালিশ জানিয়েছে পাকিস্তান ৷ জমা দেওয়া হয়েছে ১১৫ পাতার ডসিয়ার৷ আর তাতেই রাহুল গান্ধী ও ওমর আবদুল্লার সরকার বিরোধী মন্তব্যের উল্লেখ রয়েছে ৷ ৩৭০ ধারা কাশ্মীর থেকে প্রত্যাহারের ২০ দিনের মাথায় কাশ্মীর যেতে গিয়ে বাধা পেয়েছিলেন রাহুল গান্ধী৷ বলেছিলেন, ‘২০ দিন ধরে কাশ্মীরের নাগরিকদের গণতান্ত্রিক অধিকার রুদ্ধ করা হয়েছে ৷’এই মন্তব্যকেই লুফে নেয় পাক বিদেশমন্ত্রক ৷ পাকিস্তানের হাতের অস্ত্র হওয়ায়, স্বাভাবিকভাবেই চাপে পড়ে যান রাহুল গান্ধি। জাতীয়তাবাদী রাজনীতিতে পিছিয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় শেষমেষ পাকিস্তানকে আক্রমণ শানান প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি। বলেন, ‘কাশ্মীর ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এক্ষেত্রে পাকিস্তানের নাক গলানোর জায়গা নেই।’ তবু তাতেও শেষ হয়নি বিতর্ক ৷

ভারত বরাবরই বলে এসেছে এটি একান্তই অভ্যন্তরীণ বিষয়। আন্তর্জাতিক মহলে জানিয়ে এসেছে জম্মু ও কাশ্মীরের ‘স্পেশাল স্ট্যাটাস’ তুলে নেওয়াটা একান্তই এদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়। অধিকাংশ দেশই ভারতের দাবি মেনে নিয়েছে।

এর আগে জম্মু ও কাশ্মীরের ‘স্পেশাল স্ট্যাটাস’ তুলে নিয়ে রাজ্যকে দু’টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিভক্ত করার ভারতের পদক্ষেপের বিরোধিতা করে পাকিস্তান। প্রথম থেকেই এই পদক্ষেপের বিরোধিতা করেছে পাকিস্তান। এর আগে রাষ্ট্রসঙ্ঘে তারা এব্যাপারে আর্জি জানানোর পর এই নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়। কিন্তু চিন ছাড়া বাকি সব দেশই একমত হয় যে, জম্মু ও কাশ্মীরে ভারত যে পদক্ষেপ করেছে তা একান্তই তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়।

Comments are closed.