মঙ্গলবার, জুন ২৫

কোয়েটায় বাজারে বিস্ফোরণ, নিহত ২০, আহত অন্তত ৪০

দ্য ওয়াল ব্যুরো : পাকিস্তানের দক্ষিণ পশ্চিমে কোয়েটা শহরের ব্যস্ত বাজারে বিস্ফোরণ ঘটাল জঙ্গিরা। ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত অন্তত ৪০। তাঁদের মধ্যে চার-পাঁচ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। শহরের সংখ্যালঘু হাজারা সম্প্রদায়ের মানুষকে মারার জন্যই বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছিল।

কোয়েটা পুলিশের প্রধান আবদুর রাজ্জাক চিমা জানিয়েছেন, শুক্রবার সকালে হাজারা সম্প্রদায়ের মানুষজন যখন বাজারে জড়ো হয়েছেন, তখন বিস্ফোরণ ঘটে। তাঁর কথায়, বাজারে অনেকে এসেছিলেন। ফ্রন্টিয়ার কোরের সৈনিকরা এলাকায় টহল দিচ্ছিল। একটা সবজির দোকানের কাছে বিস্ফোরণ ঘটে। বোমাটি আগে থেকে সেখানে রাখা ছিল নাকি কোনও আত্মঘাতী বোমারু বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে, তদন্তের আগে বলা যাবে না।

ঘটনাস্থলের ছবিতে দেখা গিয়েছে, বিস্ফোরণস্থলের আশপাশে পড়ে রয়েছে রক্ত। অনেকগুলি গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। চারপাশে সবজিও ছড়িয়ে আছে।

মৃতদের মধ্যে হাজারা সম্প্রদায়ের অন্তত সাতজন আছেন। আর আছেন এক আধা সেনা কর্মী। পুলিশ জানিয়েছে, কোয়েটায় জঙ্গিরা আঘাত হানতে পারে বলে গোয়েন্দারা সতর্ক করেছিলেন। কিন্তু তারা যে ওই বাজারে বিস্ফোরণ ঘটাবে, আন্দাজ করতে পারেননি কেউ।

২০১৩ সাল থেকে বালুচিস্তানের কোয়েটায় বার বার জঙ্গি হানার শিকার হচ্ছেন হাজারা সম্প্রদায়ের মানুষ। নিহত হয়েছেন অন্তত ৫০৯ জন। বেশিরভাগ আক্রমণ হয়েছে বালুচিস্তানের রাজধানী কোয়েটায়। শহরে হাজারা সম্প্রদায়ের প্রায় ৬ লক্ষ মানুষ বসবাস করেন।

ওই সম্প্রদায়ের মানুষকে শহরের খুব সুরক্ষিত অঞ্চলে থাকতে হয়। তাঁরা সেই এলাকার বাইরে সাধারণত বেরোন না। কারণ সেক্ষেত্রে তাঁদের জীবন বিপন্ন হতে পারে। স্থানীয় হাজারা সম্প্রদায়ের মানুষ জানিয়েছেন, তাঁরা পড়াশোনা বা ব্যবসার কাজে শহরের যে কোনও জায়গায় যেতে পারেন না।

শহরে হাজারা সম্প্রদায়ের জন্য আলাদা কয়েকটি বাজার আছে। রোজ সকালে পুলিশের একটি কনভয় পাহারা দিয়ে তাঁদের বাজারে পৌঁছে দেয়। সকালের মধ্যেই সব প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সংগ্রহ করতে হয়।

জঙ্গিরা আগেও হাজারাদের বাজারগুলিকে লক্ষ্য হিসাবে বেছে নিয়েছে। ২০১৭ সালের অক্টোবরে অজ্ঞাতপরিচয় বন্দুকধারীরা সবজি ভরতি একটি ভ্যানকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। গাড়ির চালক সহ চারজন নিহত হন।

অভিযোগ, দক্ষিণপন্থী আহলে সুন্নাত ওয়াল জাম্মাত নামে একটি সংগঠন ওই আক্রমণের সঙ্গে জড়িত ছিল। সেই গোষ্ঠীটি লস্কর ই জঙ্গভি নামে এক সশস্ত্র সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত।

শুক্রবার কোনও গোষ্ঠী বাজারে আক্রমণের দায় স্বীকার করেনি।

Comments are closed.