Latest News

ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

শুভদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়

Subhadeep Bandyopadhyay

বাংলা ছবির টলিলক্ষ্মী কথাটা তাঁর নামের আগে একশো ভাগ খাটে। দশকের পর দশক তিনি নায়িকা রূপে সম্পূর্ণা। তাঁর নামেই (Rituparna Sengupta) ছবি দেখতে সিনেমাহল হাউসফুল করে দর্শকরা। বক্সঅফিসে লক্ষ্মী লাভ তাঁর নামেই হয়। সে আর্টফিল্ম হোক কিংবা কর্মাশিয়াল, সব ধারাতেই তিনি অনন্যা। তিনি টলিকুইন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। আজ তাঁর জন্মদিন। ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তর শুভ জন্মদিনে দেখে নেওয়া যাক চেনা তাঁর ১২টি অচেনা রূপ (Uncommon Look)।

দহন (১৯৯৭)

ঋতুপর্ণ ঘোষের হাত ধরেই বাংলা ছবিতে প্রথম ঋতুপর্ণার অচেনা লুক সাড়া ফেলে দেয়। প্রতিটি সিঙ্গেল স্ক্রিনের বড় বড় পোস্টারে এক ধর্ষিতার চরিত্রে ঋতুপর্ণা।

চরিত্রের নাম রোমিতা। চোখের তলায় কালি, ফেটে যাওয়া ঠোঁট, স্থির দৃষ্টি। ঋতুপর্ণার এমন লুকেই ১৯৯৭ সালে ছেয়ে গেছিল কলকাতা শহর। এই চরিত্র করেই ঋতুপর্ণা পান শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর জাতীয় পুরস্কার। হার্ডকোর কর্মাশিয়াল ছবির নায়িকাকে এই লুকে দেখে চমকে গেছিলেন বাংলা-সহ সারা পৃথিবীর দর্শক। ঋতুপর্ণার জীবনে বাঁকবদল চরিত্র রোমিতা।

Image - ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

পারমিতার একদিন (২০০০)

ঋতুপর্ণার কেরিয়ারের আরও এক মাইলস্টোন ছবি। অপর্ণা সেনের পরিচালনায় ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। শুধু তাই নয়, পর্দাতেও অপর্ণা সেনের সঙ্গে সমানে টক্কর দিয়েছিলেন ঋতুপর্ণা। শাশুড়ি সনকা আর প্রাক্তন পুত্রবধূ পারমিতার গল্প।

অপর্ণা একদম ভিন্ন লুকে ভেবেছিলেন পারমিতা চরিত্রটিকে। চরিত্রটির বয়স ছিল ঋতুপর্ণার তৎকালীন বয়সের থেকে বেশি। সে অনেক শান্ত, ম্যাচিওর্ড। সে জীবনের অনেকটাই দেখে ফেলেছে। চ্যালেঞ্জিং চরিত্র।

Image - ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

কার্বন ফ্রেমে ডিম্বাকৃতি চশমা, টপ নাট খোঁপা, কপালে বড় গোল টিপ– একদম অন্য রূপে ধরা দিলেন ঋতুপর্ণা। যাঁরা ভেবেছিলেন কর্মাশিয়াল ছবির নায়িকা এই রোল পারবেন না, তাঁদের সপাটে জবাব দিলেন অভিনেত্রী। এই ছবির মাসের পর মাস হাউসফুল রেকর্ড হার মানিয়েছিল সমসাময়িক মুক্তিপ্রাপ্ত সব হিন্দি ছবিকেও। বাংলার সকল নারীদের নয়নের মণি হয়ে ওঠেন পারমিতা।

চতুরঙ্গ (২০০৭)

রবীন্দ্রনাথের নায়িকা এবার ঋতুপর্ণা। ‘চতুরঙ্গ’র দামিনী। বিধবার চরিত্রেও বাজিমাত করেন ঋতুপর্ণা। সুমন মুখোপাধ্যায় পরিচালিত এই ছবিতে একটি বলিষ্ঠ চরিত্রে অভিনয় করেন ঋতুপর্ণা। শুধু সাদা শাড়ি পরে আছেন দামিনী, নগ্ন বাহু, এলো চুল। এমন লুকেও দুর্দান্ত ঋতুপর্ণা।

Image - ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

তৃষ্ণা (২০০৮)

বলা হয়, বিপাশা বসু অভিনীত ‘জিসম’ ছবির রিমেক এটি। ‘তৃষ্ণা’ ছবিতে প্রচণ্ড সাহসী রূপে ধরা দেন ঋতুপর্ণা। তাঁর বিপরীতে ছিলেন জিম চর্চিত এক নবাগত নায়ক, অংশুমান।

সিনেমা হলের পোস্টারে ঋতুপর্ণা-অংশুমানের সাহসী ফটো দেওয়া পোস্টার ঝড় তুলেছিল। এই ছবিতে ছোট পোশাকে বারবার দেখা গেছিল ঋতুপর্ণাকে, যা নিয়ে বাংলার দর্শক ক্ষুব্ধ হয়ে বলেছিল, কী প্রয়োজন এত ছোট পোশাকের! কিন্তু ঋতুপর্ণা সেই সাহসী অভিনেত্রী, যিনি যে কোনও চরিত্রে নিজেকে ভাঙতে-গড়তে জানেন। সাহসী পোশাক বেশ ভালই ক্যারি করেছিলেন ঋতুপর্ণা।

Image - ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

বেদেনি (২০১১)

অঞ্জন দাসের ‘বেদেনি’ ছবিতে ঋতুপর্ণাকে দেখে চিনতেই পারা যায় না প্রায়। কালো গায়ের রঙে যেন এক অচেনা ঋতুপর্ণা। সাপের মতোই তাঁর চোখের তেজ। সাজসজ্জায় বন্য আদিম ভাব। পুরুলিয়ার প্রান্তিক প্রান্তরে শ্যুটিং হয়েছিল এই ছবির। ওই অঞ্চলের মানুষদের মতোই পুরোপুরি হয়ে ওঠেন ঋতুপর্ণা।

Bedeni (2011) | FilmiClub

চারুলতা (২০১২)

খোলা পিঠে শুয়ে আছেন ঋতুপর্ণা– এমনই সাহসী পোস্টারে ছেয়ে গেছিল কলকাতা-সহ সারা বাংলা। অপ্রতিরোধ্য যৌন আবেদনে ঋতু। তিনি বুঝিয়ে দিয়েছিলেন, ঋতু বদলালেও ঋতুপর্ণা বদলায় না। অগ্নিদেব চট্টোপাধ্যায় রবীন্দ্রনাথের চারুলতাকে ২০১১-র সময়ে ভেবে ছবিটি করেন। এই সময় দাঁড়িয়ে দেওর-বৌদির পরকীয়া। ছবিটি বক্সঅফিসেও সফল হয়।

Image - ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

পোস্টারে ঋতুপর্ণার সাহসী ছবি দর্শকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছিল। তবে অভিনয়তেও দাগ কেটে যান ঋতুপর্ণা। চরিত্রের নাম চৈতী, যাঁর স্বামী তাঁকে ভালবাসলেও কাজের ব্যস্ততায় সময় দিতে পারেন না। সেই কারণেই অমলের সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে চৈতী। ফেসবুক চ্যাটের সেই প্রেমিক আসলে তাঁর এক দেওর, পরে জানতে পারে চৈতী। তারপর… ! সাহসী ছবির সাহসী লুকে দেখা মেলে ঋতুপর্ণার।

অলীক সুখ (২০১৩)

শিবপ্রসাদ-নন্দিতার এই ছবিতে ডিগ্ল্যামারাস লুকে, চশমা পরে পর্দায় আসেন ঋতুপর্ণা। শহরের এক বিখ্যাত গায়নোকোলজিস্টের স্ত্রী তিনি। এমন লুকে আগে দেখা যায়নি ঋতুপর্ণাকে। দেবশংকর হালদারের মতো বলিষ্ঠ থিয়েটার অভিনেতার সঙ্গে দুর্দান্ত অভিনয় করেন ঋতুপর্ণা। শুধু তাই নয়, থিয়েটার অভিনেত্রী সোহিনী সেনগুপ্তর সঙ্গেও সেয়ানে সেয়ানে অভিনয় করেন তিনি।

Image - ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

বিয়ে নট আউট (২০১৪)

সুদেষ্ণা রায় ও অভিজিৎ গুহর ‘বিয়ে নট আউট’ ছবিতে একদম আলাদা হেয়ার স্টাইলে ধরা দেন ঋতুপর্ণা। তাঁকে যে এমন হেয়ার স্টাইলেও দুর্দান্ত লাগে, তিনি তা প্রমাণ করেন।

ছবিটি পর্দার থেকেও টেলিভিশনে ভীষণ জনপ্রিয় হয়। কমেডি ছবিতেও সিরিয়াস অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা কতটা সাবলীল, এই ছবি তাঁর প্রমাণ। টোটা রায়চৌধুরী-ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত জুটির সফল ছবি ‘বিয়ে নট আউট’। পরে অবশ্য এই জুটিকে কেউ ব্যবহার করল না।

Image - ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

টান (২০১৪)

এই ছবিতে জলবেশ্যার চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন ঋতুপর্ণা, জলেই যাঁদের বাস। সেখানেই তাঁদের রুজি রোজগার দেহের পসরা সাজিয়ে।

জলবেশ্যা রূপে ঋতুপর্ণার চরিত্রটি পোস্টারে বেশ চর্চায় উঠে আসে। তাঁর বিপরীতে ছিলেন সুমন্ত চট্টোপাধ্যায়।

Image - ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

রাজকাহিনি (২০১৫)

বেগমজানের ভূমিকায় ঋতুপর্ণা যেন এক বিস্ময়। এমন চরিত্রে এমন লুকে প্রথম দেখা মেলে ঋতুপর্ণার। সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের পরিচালনায় বেগমজান চরিত্রটি ঋতুপর্ণার কেরিয়ারে আইকনিক আজও। পুজো রিলিজ ছবিটি হাউসফুল হয় ঋতুপর্ণার লুক আর অভিনয় দেখতে।

কথা বলার স্টাইল থেকে বডি ল্যাঙ্গুয়েজ– সবটাই আমূল পরিবর্তন করে ফেলেন ঋতুপর্ণা। বেগমজান যেন টলিকুইন ঋতুপর্ণার জন্যই তৈরি। কার্লি চুল, বড় নাকছাবি, হুঁকো খাওয়ার স্টাইল থেকে ঋতুপর্ণার কণ্ঠ– সবটাই তাক লাগিয়ে দেয়।

Image - ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

দত্তা (২০২২)

শরৎচন্দ্রের নায়িকা এবার ঋতুপর্ণা। পরিচালক নির্মল চক্রবর্তী তৈরি করেছেন রঙিন ছবি ‘দত্তা’। বিজয়া ছিল ব্রাহ্ম মহিলা। সেই ব্রাহ্ম ছাপ রেখেই ঋতুপর্ণার পোশাক চয়ন করা হয়েছে এই ছবিতে। ঋতুপর্ণা-সহ বাকি চরিত্রদের পোশাক নির্মাণ করেছেন প্রখ্যাত পোশাক ডিজাইনার সাবর্ণী দাস।

ঋতুপর্ণার পোশাকে আভিজাত্যের দৃঢ়তা অসম্ভব ফুটে উঠছে, যে জন্য চরিত্রটি আরও ভাল লাগবে দর্শকদের। সাবেকি ও সনাতনী ধারা বজায় রেখেই ছবি তৈরি হয়েছে। ছবির চিত্রনাট্যও লেখা হয়েছে শরৎ বাবুর কাহিনিকে অবলম্বন করেই। এই ছবি যাতে ঠিকঠাক প্রচার ও হল পায় তেমন তারিখেই ছবি রিলিজ করার কথা।

Image - ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

মহিষাসুরমর্দ্দিনী (২০২২)

রঞ্জন ঘোষ পরিচালিত ‘মহিষাসুরমর্দ্দিনী’ ছবিতে একেবারে স্থিতধী রূপে পর্দায় হাজির হচ্ছেন ঋতুপর্ণা। ছবিটির মুক্তি আসন্ন। শক্তির পুজো করা আর বাস্তবজীবনে নারীশক্তিকে পুজোর আসনে বসানোয় বিস্তর তফাত, যা চোখে আঙুল দিয়ে দেখায় রঞ্জন ঘোষের এই ছবি।

ছবিতে এক নভঃশ্চারিণীর ভূমিকায় এই প্রথম ঋতুপর্ণা। দেবী দুর্গা কৈলাস থেকে যেমন মর্ত্যে আসেন, তেমন এক নভঃশ্চারিণী আকাশ থেকে দেশের বাড়িতে ফিরছেন দুর্গার মতোই। চরিত্রটির গভীরতা, ঋতুপর্ণার অভিনয় ও লুক নির্বাচন নিখুঁত বলতে যা বোঝায় তাই। ছবিটি নানা ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে প্রশংসিত হয়েছে। এ মাসেই কলকাতায় মুক্তি পাওয়ার কথা।

Image - ঋতুপর্ণার একডজন অচেনা রূপ, নায়িকার জন্মদিনে ফিরে দেখা চরিত্ররা

রূপে-নাচে-অভিনয়ে অনন্যা, তবু জোটেনি নায়িকার রোল! অভিমানেই বুঝি অকালে চলে গেলেন সোনালী

You might also like