Latest News

সত্যজিতের বায়োপিক জায়গা পেল না তাঁরই স্বপ্নের নন্দনে! কারণ জানেন না ‘অপরাজিত’ অনীক

শুভদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়

ক’দিন আগেই টালিগঞ্জ পাড়া সোচ্চার ছিল ‘বাংলা সিনেমার পাশে দাঁড়ান’ শ্লোগানে। কিন্তু এ সপ্তাহে হিসেবটা বদলে গেল। অনীক দত্তর নতুন ছবি ‘অপরাজিত’ (Aparajito) ‘নন্দন’ সিনেমাহলে প্রদর্শনের জায়গা পেল না। সত্যজিৎ রায়ের ‘পথের পাঁচালি’ মেকিং-এর গল্প নিয়ে তৈরি অনীকের এই ছবি। যে ছবির প্রাণকেন্দ্র সত্যজিৎ রায় স্বয়ং। অথচ সত্যজিৎ রায়ের স্বপ্নের সিনেমাহলেই জায়গা হল না ‘অপরাজিত’ ছবির। বাংলা সিনেমার পাশে দর্শক দাঁড়ালেও উপর-মহল থেকে ‘অপরাজিত’ ছবিটিকে সরকারি প্রেক্ষাগৃহে (Nandan) ব্রাত্য করে দেওয়া হল।

সত্যজিৎ রায়ের জীবন নির্ভর ছবি (Aparajito) দেখার জন্য দর্শক মহলে উন্মাদনা ছিল তুঙ্গে কিন্তু মধ্যবিত্ত দর্শকের নাগালের বাইরে রয়ে গেল এই ছবি। শুধুমাত্র শহরের কয়েকটি মাল্টিপ্লেক্সেই জায়গা মিলেছে ‘অপরাজিত’ ছবিটির। নন্দন সহ বহু সিঙ্গেল স্ক্রিনেই নেই এই ছবি। শুধুমাত্র ‘প্রিয়া সিনেমা’তে জায়গা পেয়েছে একটি শোতে।

অনীক দত্ত চিরকালই স্পষ্ট বক্তা। সরকার বিরোধী কথা বলার জন্যই কী অনীকের ছবি জায়গা পেল না সরকারি প্রেক্ষাগৃহে? অনীক বহুবার সরকারের বিরোধিতা করেছেন ঠিক সে কারণেই অনীকের ‘ভবিষ্যতের ভূত’ ছবিটির প্রদর্শন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল অতীতে। মাঝে ‘বরুণবাবুর বন্ধু’ ফ্যামিলি ড্রামা ছবি বানিয়েছিলেন অনীক। সে ছবি অবশ্য অতিমারি আর লকডাউন কারণে প্রেক্ষাগৃহতে বেশিদিন চলতে পারেনি। কিন্তু আবার অনীকের ‘অপরাজিত’ (Aparajito) ছবিটির সঙ্গে একই ঘটনা ঘটল।

‘অপরাজিত’ ছবির প্রযোজক ফিরদৌসল হাসান জানিয়েছেন, তাঁরা বিধি মেনেই ছবিটি প্রদর্শনের অনুরোধ জানান। বৃহস্পতিবার খবর এসেছে, শহরের সরকারি প্রেক্ষাগৃহের একটিতেও দেখানো হচ্ছে না ‘অপরাজিত’। নন্দন কর্তৃপক্ষ স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে তাঁরা যে ছবি দেখাবার ঠিকই দেখাচ্ছে। এর বেশি জবাব দিতে তাঁরা বাধ্য নয়।

কিন্তু দর্শক মহলের প্রশ্ন সত্যজিৎ রায়ের জীবনভিত্তিক ছবি কেন সত্যজিৎ রায়ের হাতেগড়া প্রেক্ষাগৃহ নন্দনে জায়গা পাবে না?

নন্দনে আগামী সপ্তাহে যে ছবিগুলি চলছে তাঁদের মধ্যে আছে মিমি চক্রবর্তী অভিনীত ‘মিনি’, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় পরিচালিত ‘অভিযান’, দেব অভিনীত ও প্রযোজিত ‘কিশমিশ’ এবং সোহম চক্রবর্তী প্রযোজিত ছবি ‘কলকাতার হ্যারি’। সোহমের ‘কলকাতার হ্যারি’ কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসব’ এ জায়গাও পেয়েছিল। যাঁদের ছবি নন্দনে চলছে তাঁরা সবাই শাসক গোষ্ঠীর মন্ত্রী পদে আছেন। কেউ বা শাসক গোষ্ঠীর ঘনিষ্ঠ লোক।

এই কারণেই কী বিরোধী পক্ষ অনীক দত্ত-র ছবি জায়গা পেলনা? প্রশ্ন উঠছে দর্শক মহলে।

অথচ অনীকের ‘অপরাজিত’তে সত্যজিৎ রায়ের স্ত্রী বিজয়া রায়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন সায়নী ঘোষ। তিনি সরকার গোষ্ঠীর মুখ হওয়া সত্ত্বেও এই ঘটনা নিয়ে মুখ খোলেননি।

সাধারণ দর্শক বা ছাত্রছাত্রীদের ‘অপরাজিত’ ছবিটি দেখার প্রবল ইচ্ছে ছিল। কিন্তু মাল্টিপ্লেক্সের বেশি দামের টিকিটে তাঁদের দেখা সম্ভব নয়। নতুন প্রজন্মের মধ্যেও এই নিয়ে বেড়েছে ক্ষোভ।

‘অপরাজিত’ ছবি শুধু অনীক দত্তের ছবি নয় এটি সত্যজিৎ রায়ের জীবনভিত্তিক ছবি। তাহলে কেন এই মেরুকরণ? এই নিয়েই ক্ষোভ তৈরি হয়েছে দর্শকমনে।

অনীক দত্ত জানাচ্ছেন তাঁর সঙ্গে আগেও এরকম ঘটনা ঘটেছে। সত্যজিৎ রায়ের ছবি রায়সাহেবের হাতে গড়া নন্দন প্রেক্ষাগৃহে স্থান পাবে না ভাবতেও পারেননি অনীক। এর সঠিক কারণ তিনিও জানেন না।

‘মির্জাপুর ৩’ আসছে, গুড্ডু পণ্ডিতের ‘রাফ অ্যান্ড টাফ’ লুকে ঘায়েল বলিউড

You might also like