বুধবার, অক্টোবর ১৬

‘দেশদ্রোহী, বিক্রি হয়ে যাওয়া সাংবাদিকদের কাছে আমি ক্ষমা চাইব না,’ ফের বিস্ফোরক কঙ্গনা

  • 55
  •  
  •  
    55
    Shares

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তিনি কঙ্গনা রানাওয়াত। বিতর্ক তাঁর আগে পিছে ঘোরাঘুরি করে। মাথা নোয়াতে তিনি শেখেননি। সাংবাদিকদের কাছে ক্ষমা যে তিনি কিছুতেই চাইবেন না, সেটা প্রথম থেকেই বেশ বুঝেছিল বলি মহলের একাংশ। সেই কথাই এ বার জোর গলায় ঘোষণা করলেন কঙ্গনার দিদি ও ম্যানেজার রঙ্গোলি চান্দেল।  টুইটার বার্তায় তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, “এইসব মিডিয়া দেশদ্রোহী। দল পাকিয়ে ষড়যন্ত্র করছে। কঙ্গনা কোনও দিনই ক্ষমা চাইবেন না।” রঙ্গোলির কথায় সায় দিয়েছেন কঙ্গনাও।

মিডিয়া বয়কট করুক, আর যাই করুক, কুছ পরোয়া নেই। কঙ্গনা আছেন, থাকবেন কঙ্গনার মতোই। পর পর দু’টি ভিডিও মেসেজে সেটাই পরিষ্কার করে দিয়েছেন রঙ্গোলি। হৃতিকের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে হোক বা যে কোনও বিতর্কে কঙ্গনা জড়িয়ে পড়লে সবচেয়ে আগে মুখ খোলেন রঙ্গোলিই। এ বারও তিনি বলেছেন, “আমি হলফ করে বলতে পারি, কঙ্গনা ক্ষমা চাইবেন না। বরং এই সব বিক্রি হয়ে যাওয়া, নগ্ন, দেশদ্রোহী, দেশের দালাল সাংবাদিকদের ধুয়ে সাফ করে দেবেন কঙ্গনা। শুধু একটু অপেক্ষা করুন। ”

ঝামেলার সূত্রপাত গত রবিবার। তাঁর নতুন ছবি ‘জাজমেন্টাল হ্যায় কেয়া’র একটি অনুষ্ঠানে কয়েকজন সাংবাদিকের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন কঙ্গনা। প্রশ্নোত্তর পর্ব চলার সময়, সাংবাদিক জাস্টিন রাওকে নিজের স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে আচমকাই আক্রমণ করে বসেন কঙ্গনা। তাঁর দাবি, ‘মণিকর্ণিকার’ সিনেমা নিয়ে নাকি অপপ্রচার করেছিলেন জাস্টিন। সেই সিনেমার খারাপ রিভিউ লিখেছিলেন তিনি। কথা কাটাকাটি এতদূর গড়ায় যে, মুম্বইয়ের এন্টারটেনমেন্ট জার্নালিস্টস গিল্ড অফ ইন্ডিয়ার দশ জন সিনিয়র সাংবাদিকের একটি দল মঙ্গলবার একতা কপূরের অফিসে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করেন। তাঁরা দাবি তোলেন, সাংবাদিকদের নোংরা ভাষায় আক্রমণের জন্য কঙ্গনাকে লিখিত ভাবে ক্ষমা চাইতে হবে। না হলে মিডিয়া পুরোপুরি কঙ্গনাকে বয়কট করবে।

বৃহস্পতিবার টুইটারে ভিডিও শেয়ার করে কঙ্গনা বলেন, “এমন নয় যে সব সাংবাদিক খারাপ। অনেকেই আমাকে প্রচার দিয়েছেন। কিন্তু এক শ্রেণির সাংবাদিক আছে যাঁরা মিথ্যা খবর প্রচার করেন। দেশের একতাকে আঘাত করেন তাঁরা। এই সব সাংবাদিক দেশদ্রোহী, অশিক্ষিত। তাঁরা যদি ভালো, ধার্মিক হতেন তাহলে দেশের একতাকে আঘাত করতেন না। দুঃখের বিষয়ে ভারতের সংবিধানে এই সাংবাদিকদের জন্য কোনও শাস্তির বিধান নেই। এই সব সাংবাদিকদের কাছে আমি ক্ষমা চাইব না। ”

সেই সঙ্গেই কঙ্গনার দাবি, “কিছু সাংবাদিক তর্ক, সমীক্ষার ধার ধারেন না। ফ্রি-তে খাবার খেতে সাংবাদিক বৈঠকে পৌঁছে যান। এর পরে বানিয়ে, মিথ্যা কথা প্রচার করেন। আমার প্রশ্ন, কী ভাবে এঁদের সাংবাদিক বলব? এঁদের মধ্যেই তিন-চার জন দল পাকিয়ে আমাকে বয়কট করার কথা বলছেন। ” কঙ্গনার কথায়, “এই সাংবাদিকরা ৫০-৬০ টাকায় বিক্রি হয়ে যায়। আমি চাই এঁরা আমাকে বয়কট করুন, না হলে আমি এঁদের মজা দেখাবো।”

হৃতিকের ‘সুপার ৩০’-র সঙ্গে দিন মিলে যাওয়ায়, এমনিতেই ‘জাজমেন্টাল হ্যায় কেয়া’র রিলিজের দিন পিছিয়ে ২৬ জুলাই হয়েছে। তার উপর মিডিয়ার একটা বড় অংশ কঙ্গনার আচরণে ক্ষেপে যাওয়ায় রীতিমতো অস্বস্তিতে পড়েছেন প্রযোজক একতা কপূর। ঘটনার দিন তিনিও উপস্থিত ছিলেন। কাজেই মিডিয়ার রোষচক্ষুর মুখে পড়ে ইতিমধ্যেই ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন তিনি। তাঁর বালাজি টেলি ফিল্মসের তরফেও বিবৃতি দিয়ে লিখিত ভাবে ক্ষমা চেয়ে নেওয়া হয়েছে। তবে ক্ষমা চাননি কঙ্গনা। তিনি যে আর ক্ষমা চাইবেনও না, সেটাও স্পষ্ট করে দিয়েছেন নায়িকা।

আরও পড়ুন:

‘লড়াকু কঙ্গনাকে সমর্থন করতাম, এই কঙ্গনা তাঁর মর্যাদা হারিয়েছে,’ সাংবাদিক-বিতর্কে মুখ খুললেন স্বস্তিকা

Comments are closed.