রবিবার, নভেম্বর ১৭

ও আমার দেশের মাটি তোমার পরে ঠেকাই মাথা

সব্যসাচী বন্দ্যোপাধ্যায়

প্রায় দোরগোড়ায় পৌঁছে গেছে বুলবুল, হাওয়ায় ঠান্ডার কামড় আর ভিড় ঠাসা নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে ছড়িয়ে পড়ছে উষ্ণতা। পঁচিশতম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের শুরু এমনই প্রেক্ষাপটে। এই উদ্বোধন অনুষ্ঠানের মঞ্চ এক অনন্য দৃশ্যের সাক্ষী হয়ে থাকল যখন সৌরভ ও শাহরুখ একে অপরকে জড়িয়ে ধরলেন। মনে হল– ঠিকই তো, নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামের খুব কাছেই তো ইডেন! চমক আরও বাকি ছিল। সৌরভ তার সংক্ষিপ্ত ভাষণে যখন উল্লেখ করলেন আদুর গোপালকৃষ্ণন, গোবিন্দ নিহালনি, আন্তনিওনি, ফেলিনি ও গোদারের মতো পরিচালকদের নাম তখন বিশ্ব সিনেমা, ক্রিকেট ও কলকাতা যেন মিলেমিশে এক হয়ে গেল।

অস্কার বিজয়ী জার্মান পরিচালক ভোলকার স্ক্লনডর্ফ বলতে উঠে উল্লেখ করলেন পথের পাঁচালী ও অপু ট্রিলজির এবং এও বললেন এই ছবিগুলি মানবিকতার দলিল। অভিনেত্রী অ্যান্ডি ম্যাকডোয়েল তাঁর ভাষণে ভারতীয় সিনেমা ও ভারতীয় খাবারের প্রতি তাঁর মুগ্ধতার কথা জানান।

সঞ্চালিকা জুন মালিয়া এক বিশেষ ব্যক্তিত্বকে আহ্বান জানাতে গিয়ে বলেন, যে তাঁকে বাংলা ভাষায় আহ্বান জানাতে হবে কারণ তিনি তাই চান। সেই সম্মানীয় ব্যক্তি মাইক্রোফোনের সামনে এসে বলেন, তিনি পঞ্চাশ বছর ভিটে ছাড়া কিন্তু আজও তাঁর ধমনীতে বাংলা। তিনি রাখি গুলজার। রাখি শাহরুখ–কে দিয়ে বলিয়ে নিলেন ও আমার দেশের মাটি, তোমার পায়ে ঠেকাই মাথা। উদ্বোধনী মঞ্চ ঋদ্ধ হল। সৃষ্টি হল অনন্য এক মুহূর্তের।

শাহরুখ তাঁর স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিমায় মানুষের মন জয় করলেন। সংলাপ বললেন এবং সৌরভকে ধন্যবাদ জানালেন। তিনিও আজ সৌরভের মতো এই বাংলার ছেলে হয়ে উঠেছেন। তিনি বলেন, ”আম্মিজান বলতেন, ফিল্ম ফেস্টিভালের ছোট বড় হয় না… কিন্তু কলকাতা ফিল্ম ফেস্টিভালের মতো সুন্দর কোনও ফেস্টিভাল হয় না।”

রাজনীতি ছাড়া সিনেমা হয় না এই কথা আমাদের বুঝিয়েছিলেন মৃণাল সেন। আজ এই উদ্বোধনী সন্ধ্যায় এ কথা আরেকবার মনে করালেন পরিচালক মহেশ ভাট। তিনি তাঁর ভাষণে মনে করিয়ে দিলেন মানুষকে তার নিজের ভাষায় কথা বলতে দিতে হবে, কোনও কিছুই চাপিয়ে দেওয়া ঠিক নয়। তিনি আরও বললেন এই অন্ধকার সময়ে ছবি করিয়েরাই পারেন আশার গল্প শোনাতে।

এই অনুষ্ঠানের সব অতিথি বারবার যে মানুষটির আন্তরিকতার উল্লেখ করলেন তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী তাঁর ভাষণে উল্লেখ করলেন যে বাংলা সিনেমা ১০০ বছর পার করল। তিনি স্মরণ করলেন বাংলার চলচ্চিত্র জগতের দিকপালদের এবং দৃপ্তভঙ্গিমায় ঘোষণা করলেন যে ভারতের সাংস্কৃতিক রাজধানী আজও কলকাতা।

এই সন্ধ্যায় অনেক প্রাপ্তির মধ্যে রয়ে গেল একটাই অপ্রাপ্তি। শ্রদ্ধেয় অমিতাভ বচ্চনের শারীরিক অসুস্থতার কারণে উপস্থিত থাকতে পারলেন না পঁচিশতম কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে।

Comments are closed.