মঙ্গলবার, জুন ২৫

২০০৪ সালের কথা ভুলবেন না, মনোনয়ন দিয়ে বললেন সনিয়া

দ্য ওয়াল ব্যুরো : বৃহস্পতিবার দুপুরে উত্তরপ্রদেশের রায় বরেলি থেকে মনোনয়ন জমা দিলেন ইউপিএ-র চেয়ারপার্সন সনিয়া গান্ধী। তারপর উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, ২০০৪ সালের কথা ভুলে যাবেন না। ওই সময়ে কংগ্রেসের সভানেত্রী ছিলেন সনিয়া গান্ধী। সেবার অনেকেই ভেবেছিলেন, অটলবিহারী বাজপেয়ীর নেতৃত্বে এনডিএ জিতবে। কিন্তু সকলকে অবাক করে জিতেছিল কংগ্রেস।

মনোনয়ন জমা দিয়ে ছেলে রাহুলের সঙ্গে নির্বাচন অফিস থেকে বেরিয়ে আসেন সনিয়া গান্ধী। সাংবাদিকদের বলেন, কেউ অপরাজেয় নয়। ২০০৪ সালের কথা ভুলবেন না। সেবারও অনেকে ভেবেছিল, অটলজি অপরাজেয়। কিন্তু আমরা জিতেছিলাম।

এর পরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। তিনি বলেন, ভারতের ইতিহাসে দেখা গিয়েছে, অনেকে ঔদ্ধত্যের বশে ভেবেছে, তারা অপরাজেয়। তারা নিজেদের দেশের জনগণের চেয়ে বড় ভাবে। তারা বুঝতে পারে না, জনগণের চেয়ে বড় হওয়া সম্ভব নয়। এবারের ভোটেই দেখা যাবে, মোদীজি অপরাজেয় কিনা।

বাজপেয়ীর নেতৃত্বে ১৯৯৬, ১৯৯৮ এবং ১৯৯৯ সালে ভোটে জিতে সরকার গঠন করেছিল বিজেপি। ২০০৪ সালে গেরুয়া ব্রিগেডের স্লোগান ছিল শাইনিং ইন্ডিয়া।

৭২ বছরের সনিয়া এদিন মনোনয়ন জমা দেওয়ার আগে হোম করেন। কংগ্রেস নেতা গয়াপ্রসাদ শুক্লার বাড়িতে ওই হোম হয়। ৫০ বছর ধরে নেহরু-গান্ধী পরিবারের সদস্যরা রায় বরেলিতে মনোনয়ন জমা দিতে যাওয়ার আগে হোম করেন। গয়াপ্রসাদ শুক্লা একসময় ছিলেন রায় বরেলিতে প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর প্রতিনিধি।

ইন্দিরা গান্ধী ১৯৬৭ সালে এই কেন্দ্র থেকে প্রথমবার নির্বাচিত হন। ১৯৭১ ও ১৯৭৭ সালেও রায় বরেলি থেকে প্রার্থী হয়েছিলেন। ১৯৭৭ সালে জনতা পার্টির রাজ নারায়ণের কাছে পরাজিত হয়েছিলেন।

এদিন সনিয়ার জয়ের জন্য হোম করেন তাঁদের পারিবারিক পুরোহিত রাধাশ্যাম দীক্ষিত। তখন উপস্থিত ছিলেন রাহুল, তাঁর বোন প্রিয়ঙ্কা বঢরা, তাঁর স্বামী রবার্ট বঢরা। তাঁদের সঙ্গে নিয়েই এদিন রোড শো করে মনোনয়ন জমা দিতে যান কংগ্রেসের প্রাক্তন সভানেত্রী।

সনিয়া প্রথম রায় বরেলি থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ১৯৯৯ সালে। এখান থেকে তিনি চারবার নির্বাচিত হয়েছেন। এবার রায় বরেলিতে তাঁর বিরুদ্ধে প্রার্থী বিজেপির দীনেশ প্রতাপ সিং। তিনি আগে কংগ্রেসী ছিলেন। কিছুদিন আগে পুরানো দল ত্যাগ করে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। বিজেপি বিরোধী ভোট যাতে ভাগাভাগি না হয়, সেজন রায় বরেলিতে প্রার্থী দেয়নি সমাজবাদী পার্টি ও বহুজন সমাজ পার্টির জোট।

Comments are closed.