বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৭

‘ওঁর পার্টিটাই রোজ চুরচুর হয়ে যাচ্ছে’, মমতাকে পাল্টা তোপ দিলীপের  

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রেড রোডে ঈদের নামাজে অংশগ্রহণ করে নাম না করে বিজেপি-র বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়েছিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বলেছিলেন, “হামসে যো টকরায়গা, ও চুরচুর হো যায়েগা।” দিদির বিরুদ্ধে পালটা তোপ দাগতে বেশি সময় নিল না বিজেপি।

বিকেলে বিজেপি রাজ্য দফতরে সাংবাদিক বৈঠক ছিল রাজ্য সভাপতি তথা মেদিনীপুরের সাংসদ দিলীপ ঘোষের। সেখানেই মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় দিলীপ বলেন, “ওঁর পার্টিটাই প্রতিদিন ভেঙে চুরচুর হয়ে যাচ্ছে। আগে নিজের দল সামলান। তারপর বিজেপি-কে জ্ঞান দিতে আসবেন।”

এখানেই থামেননি দিলীপবাবু। তৃণমূলনেত্রীর বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়ে বিজেপি রাজ্য সভাপতি বলেন, “ভোটে হেরে ওঁর বোধবুদ্ধি সব লোপ পেয়েছে।” তাঁর কথায়, “উনি আমাদের সাম্প্রদায়িক বলেন। আর নিজে কী করছেন! রাজনৈতিক মঞ্চে গিয়ে ধর্মের কথা বলছেন আর ধর্মীয় অনুষ্ঠানে গিয়ে রাজনৈতিক বক্তৃতা দিচ্ছেন।”

এ দিন রেড রোডের অনুষ্ঠান থেকেও ইভিএম-কে কাঠগড়ায় তোলেন মমতা। সেই সঙ্গে বিজেপি-র নাম না করে বলেন, “ওরা যত তাড়াতাড়ি উঠেছে, তত তাড়াতাড়ি পড়বে। ধৈর্য্য ধরুন।”

ভোটের ফল প্রকাশের আটচল্লিশ ঘণ্টার মাথায় প্রথম সাংবাদিক বৈঠক করেছিলেন মমতা। ২৫ এপ্রিল কালীঘাটের ওই সাংবাদিক বৈঠকে এ বার ভোটে ধর্মীয় মেরুকরণ সম্পর্কে বলতে গিয়ে বলেছিলেন, “এ বার টোটালটাই হিন্দু মুসলমান হয়েছে।” তারপর ইফতার পার্টিতে যাওয়া নিয়ে বলেছিলেন, “আমি যাব। কারণ আমি তো সংখ্যালঘু তোষণ করি। যে গরু দুধ দেয় তার লাথিও খাব”। তা নিয়ে কম বিতর্ক হয়নি। তারপর দুটি ইফতার পার্টিতে যোগ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এ দিন ঈদের নামাজেও দেখা যায় তাঁকে। মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর থেকে প্রতিবারই এই অনুষ্ঠানে যান মমতা।

বিজেপি রাজ্যসভাপতি তৃণমূল ভাঙার কথা বলতেই সাংবাদিকরা প্রশ্ন করেন, এরপর কারা? এর পর কবে? উত্তরে দিলীপবাবু হাসতে হাসতে বলেন, “সময় এলে দেখতে পাবেন। কোনও কিছু গোপনে হবে না।”

আরও পড়ুন 

“হামসে যো টকরায়গা, ও চুরচুর হো যায়গা”, ঈদের মঞ্চ থেকেও বিজেপিকে আক্রমণ মমতার

Comments are closed.