শুক্রবার, ডিসেম্বর ৬
TheWall
TheWall

পুজো মিটতেই বড় কর্মসূচি বিজেপির, তৃণমূলকে চাপে ফেলতে ১০ ঘোষণা দিলীপের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পুজোর সময়ে রাজ্য বিজেপির তরফে জেলায় জেলায় সাধারণ মানুষের সঙ্গে জনসংযোগের নির্দেশ ছিল কর্মী, নেতাদের। এবার পুজো শেষ হতেই রাজ্যজুড়ে ‘গান্ধী সঙ্কল্প যাত্রা’-র ডাক দিল গেরুয়া শিবির। ১০ দিন ধরে চলবে গোটা রাজ্যে বিজেপির পরিক্রমা। সঙ্গে জনসচেতনতা ও জনসংযোগ। রবিবার রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ সেই ঘোষণা করেছেন। কী কী করবে বিজেপি তা নিয়ে দিলীপ জানিয়েছেন–

১। ১৫ অক্টোবর থেকে শুরু হবে রাজ্য ব্যাপী ‘গান্ধী সঙ্কল্প যাত্রা’।

২। রাজ্যে মোট ৬,৫০০ কিলোমিটার পথ পরিক্রমা হবে।

৩। ২৬ অক্টোবর ‘গান্ধী সঙ্কল্প যাত্রা’ শেষ হবে।

৪। রাজ্যের ৪২ লোকসভা কেন্দ্রে একই সঙ্গে চলবে যাত্রা।

৫। প্রতি লোকসভা কেন্দ্র এলাকায় ১৫০ কিলোমিটার পথ পরিক্রমা করা হবে।

৬। প্রতি দিন যেখানে যাত্রা শেষ হবে সেখানে জনসভা হবে।

৭। ১৮ জন লোকসভা সাংসদ ও রাজ্যসভা সাংসদ উপস্থিত থাকবেন যাত্রায়। অংশ নেবেন তিন কেন্দ্রীয় নেতাও।

৮। রাতে সাধারণ মানুষের বাড়িতে থাকা খাওয়া করবেন নেতারা।

৯। এই যাত্রায় জাতীয় ইস্যু থেকে রাজ্য ও স্থানীয় ইস্যুতে প্রচার চালাবে বিজেপি।

১০। স্বচ্ছ ভারত থেকে প্লাস্টিক বর্জন, ডেঙ্গি থেকে আইন শৃঙ্খলা সব বিষয়েই জনসচেতনতা বাড়ানোও হবে এই যাত্রার লক্ষ্য।

তৃণমূল কংগ্রেসের উদ্যোগে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে জনসংযোগ কর্মসূচি। পুজোর অনেক আগে থেকেই জেলায় জেলায় সাংসদ, বিধায়করা সেই কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন। রাজনৈতিক পরামর্শদাতা প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শ মতো সাধারণ ভোটারের বাড়িতে রাত্রিবাস করছেন নেতারা। এবার সেই একই পথে হাঁটতে চলেছে বিজেপিও। একই সঙ্গে চলবে যাত্রা কর্মসূচি। সব মিলিয়ে অক্টোবর মাসে রাজ্য জুড়ে দাপট দেখাতে চায় বিজেপি। সংগঠনকে কার্যকর রাখার পাশাপাশি প্রচারে নানা ইস্যু তুলে তৃণমূল কংগ্রেসের উপরে চাপ তৈরি করাই বিজেপির উদ্দেশ্য। সম্প্রতি এনআরসি ইস্যুতে সংঘাত দেখা দিয়েছে বিজেপি ও তৃণমূল কংগ্রেসের মধ্যে। পুজোর মধ্যেই রাজ্যে এসে সভাপতি অমিত শাহ এই ইস্যুতে জোর প্রচারের নির্দেশ দিয়েছেন। সেই কাজটাও বিজেপি এই যাত্রার মধ্য দিয়ে অনেকাটাই সেরে ফেলতে চায়।

Comments are closed.