বুধবার, নভেম্বর ২০
TheWall
TheWall

সরকার গড়া শিকেয়, অকালবর্ষণে ফসলের ক্ষতি দেখতে গ্রামে ফড়ণবীশ-ঠাকরে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অকালবৃষ্টিতে রাজ্যে ফসলের কী ক্ষতি হয়েছে, আকোলায় গিয়ে তা সরেজমিনে দেখলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়ণবীশ। ঔরাঙ্গবাদে গিয়ে কৃষকদের সমস্যার কথা শুনলেন শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরেও। ভোটের ফল বের হয়েছে প্রায় দু’সপ্তাহ হতে চলল, এখনও এই দুই শরিকের মধ্যে সরকার গড়া নিয়ে কোনও আলোচনাই হয়নি।

মহারাষ্ট্রে মুখ্যমন্ত্রীর দফতর জানিয়েছে, রবিবার সকালে আকোলা জেলায় গিয়ে কৃষকদের সঙ্গে কথা বলেছেন দেবেন্দ্র ফড়ণবীশ, খতিয়ে দেখেছেন অকালবৃষ্টিতে ফসলের ক্ষয়ক্ষতিও। অসময়ের বৃষ্টিতে যে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, সেই ক্ষতিপূরণের জন্য ইতিমধ্যেই ১০ হাজার কোটি টাকা অনুমোদন করেছে মহারাষ্ট্র সরকার।

একটি বিবৃতি শিবসেনা জানিয়েছে, রবিবার সকালে ঔরঙ্গাবাদ জেলায় যান শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে। কন্নড় ও বিজাপুর তালুকে তিনি ফসলের ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে খোঁজখবর নেন। মহারাষ্ট্রের পরিবহণমন্ত্রী দিবাকর রাওতে শনিবার আকোলা জেলা পরিদর্শনে গিয়েছিলেন।

কৃষকদের ক্ষতিপূরণে ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করাকে স্রেফ লোকদেখানো বলে মনে করছে কংগ্রেস। এনসিপি নেতা শরদ পওয়ার ক্ষতিপূরণের এই অঙ্ককে যৎসামান্য বলে মনে করেন। তাঁর মতে এখনই কাছাকাছি এসে সরকার গঠন করুক বিজেপি ও শিবসেনা এবং তারা কৃষকদের উপযুক্ত ত্রাণ ও ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করুক।

রাজ্যের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে শুক্রবার বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়ণবীশ। পরে তিনি জানান, রাজ্যের ৩২৫টি তালুকে ৫৪.২২ লক্ষ হেক্টর জমিতে তুলো, ধান, জোয়ার, ভুট্টা প্রভৃতি ফসলের ক্ষতি হয়েছে। শনিবার কৃষি সংক্রান্ত উপ-মন্ত্রীগোষ্ঠীর বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী ফড়নবীশ। সেই বৈঠকেই তিনি সংশ্লিষ্ট আধিকারিকদের নির্দেশ দেন তালুক ধরে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ হিসাব করতে।

বর্ষা বিদায় নেওয়ার পরে রাজ্যে যে অকাল বৃষ্টি হয়েছে, এমন নজির বড় একটা নেই। আরব সাগরে নিম্নচাপের কারণেই গত মাসে মহারাষ্ট্রে অকালবৃষ্টি হয়েছে। তাতে কৃষকরা ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েন। অভিযোগ, ভোটের আগে কৃষকদের এই সমস্যায় তেমন আমল দেয়নি বিজেপি। উল্টে মহারাষ্ট্র বিধানসভা নির্বাচনে তারা প্রচার করেছে কাশ্মীরে সরকারের বড় পদক্ষেপ নিয়ে।

Comments are closed.