মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৫

ডেঙ্গি মহামারী রুখতে জরুরি অবস্থা জারি হোক, বাংলাদেশে দাবি বিরোধীদের

দ্য ওয়াল ব্যুরো : বাংলাদেশের হাসপাতালগুলি ডেঙ্গি রোগীতে ভর্তি হয়ে গিয়েছে। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে ওই জ্বরে আক্রান্তের সংখ্যা। মৃত্যুও বাড়ছে। এই অবস্থায় বিরোধী বিএনপি-র নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগির দাবি জানালেন, যুদ্ধের সময় যেমন দেশে জরুরি অবস্থা জারি হয়, ডেঙ্গি মোকাবিলায় তেমনই জারি হোক। অন্যান্য রাজনৈতিক ইস্যু এখন তোলা থাক।

তিনি বলেন, আমি শনিবার কয়েকজন ডেঙ্গি আক্রান্তকে দেখতে গিয়েছিলাম। তাঁদের অবস্থা গুরুতর। আমি মনে করি, সরকার আর সময় নষ্ট না করে ডেঙ্গি মোকাবিলায় উপযুক্ত কর্মসূচি নিক। সেজন্য চিকিৎসক ও সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করুক।

বিএনপি নেতার অভিযোগ, সরকার ডেঙ্গি মোকাবিলায় চূড়ান্ত ব্যর্থ। কিছুদিন আগে হাইকোর্ট ঢাকা নগর কর্তৃপক্ষকে তিরস্কার করে বলেছে, ডেঙ্গির বাহক মশা এত বাড়ছে কীভাবে? আপনারা নিশ্চয় লক্ষ করেছেন, আদালত কোনও বিষয়ে বললে তবে সরকার পদক্ষেপ নেয়। মনে হয়, আদালতই দেশ চালাচ্ছে।

এবছর শুধু বাংলাদেশ নয়, সামগ্রিকভাবে দক্ষিণ এশিয়াতেই ডেঙ্গি প্যানডেমিক বা অতি মহামারীর রূপ নিয়েছে। বর্ষার বৃষ্টিতে ডেঙ্গির বাহক মশার বংশবৃদ্ধির উপযুক্ত পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। প্রতি বছরই বর্ষায় ডেঙ্গির প্রকোপ বাড়ে। কিন্তু এবছর যেভাবে বেড়েছে, তা বহুকাল দেখা যায়নি।

গত বুধবারই ডায়রেক্টরেট অব জেনারেল হেলথ সার্ভিসেস থেকে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ২৪২৮ জন ডেঙ্গিতে আক্রান্ত হয়েছেন। এর আগে একদিনে ডেঙ্গি আক্রান্তের সর্বাধিক সংখ্যা ছিল ২৩৪৮ জন। চলতি বছরে বাংলাদেশে ওই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লক্ষ মানুষ।

২০০৩ সাল থেকে বাংলাদেশে ডেঙ্গির প্রকোপ কমছিল। মাঝের কয়েক বছরে একজনও মারা যায়নি। কিন্তু এবছর নতুন করে দেখা দিয়েছে ডেঙ্গির প্রকোপ। এবছর ওই রোগে কতজন মারা গিয়েছেন তা নিয়ে দেখা গিয়েছে বিভ্রান্তি। একটি সংবাদপত্রের হিসাব অনুযায়ী, এবছর ডেঙ্গিতে মারা গিয়েছেন ৮৫ জন। অন্যদিকে সরকার বলেছে, মারা গিয়েছেন ২৩ জন।

Comments are closed.