উৎসবের মরসুমে কোভিড সংক্রমণ বেড়েছে পশ্চিমবঙ্গ, কেরল, মহারাষ্ট্র, দিল্লিতে

৪০৪

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো : কেন্দ্রীয় সরকার আগেই আশঙ্কা করেছিল, উৎসবের মরসুমে কয়েকটি রাজ্যে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবে। মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় সরকারের স্বাস্থ্যসচিব রাজেশ ভূষণ জানান, গত কয়েকদিনে পশ্চিমবঙ্গ, কেরল, মহারাষ্ট্র, কর্নাটক ও দিল্লিতে কোভিড ১৯ কেসের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রক থেকে হিসাব দিয়ে বলা হয়, দেশে মোট কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ছুঁয়েছে ৭৯ লক্ষ ৫৬ হাজার ৬৯৮। মারা গিয়েছেন ১ লক্ষ ২০ হাজার ৯০ জন।

স্বাস্থ্যসচিব বলেন, যে রাজ্যগুলিতে কোভিড সংক্রমণের হার বেশি, স্বাস্থ্য মন্ত্রক থেকে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। ওই রাজ্যগুলি থেকে রিপোর্ট আনার জন্য কয়েকটি বিশেষ টিম পাঠানো হয়েছিল। টিমগুলি ফিরে এসেছে। তাদের রিপোর্ট খতিয়ে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা।

রাজেশ ভূষণ বলেন, দেশে মোট যত মানুষ কোভিডে আক্রান্ত হচ্ছেন, তাঁদের ৭৬ শতাংশ ১০ টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের বাসিন্দা। তাদের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গ ও কেরলেই নতুন কোভিড কেসের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। দু’টি রাজ্যে রোজ প্রায় ৪ হাজার মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। মহারাষ্ট্র ও কর্নাটকে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা তিন হাজারের বেশি।

কোভিডে যত মানুষ মারা গিয়েছেন, তার ৮৬ শতাংশ ১০ টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের বাসিন্দা ছিলেন। মৃতদের ৩৬ শতাংশ ছিলেন মহারাষ্ট্রের মানুষ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রক থেকে জানানো হয়েছে, সামগ্রিকভাবে দেশে কোভিড সংক্রমণের সংখ্যা ক্রমশ কমছে। সেপ্টেম্বরের ২৩ থেকে ২৯ তারিখের মধ্যে গড়ে দৈনিক ৮৩ হাজার ২৩২ জন আক্রান্ত হয়েছিলেন। কিন্তু ২১ থেকে ২৭ অক্টোবরের মধ্যে রোজ গড়ে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৯ হাজার ৯০৯ জন। সেপ্টেম্বরে কোভিডে মৃত্যুর হার ছিল ১.৭৭ শতাংশ। অক্টোবরে তা কমে হয়েছে ১ থেকে ১.৫০ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে কোভিড সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৫০৮ জনের। কিছুটা বেড়েছে দৈনিক মৃতের সংখ্যাও। গতকাল দৈনিক মৃতের সংখ্যা ছিল ৪৮৮। আর গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিড সংক্রমণ সারিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫৮,৪৩৯ জন। গতকালের তুলনায় আজ দেশে বেশ কিছুটা কমেছে দৈনিক সুস্থতার সংখ্যা। গতকাল দৈনিক সুস্থতার সংখ্যা ছিল ৬৩,৮৪২। প্রসঙ্গত, গতকাল দেশে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৩৬,৪৭০। গত তিন মাসে এই প্রথম এতটা কমেছিল দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এর আগে গত ১৮ জুলাই ভারতে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৩৪,৮৮৪।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More