অ্যাডমিশন-দুর্নীতি নিয়ে অভিযোগের পাহাড়, কড়া হলেন মমতা

0

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    দ্য ওয়াল ব্যুরো: নৈরাজ্যের অভিযোগ উঠেছে কলেজে ভর্তির মরসুমে। সারা রাজ্যে সোমবার থেকে যে ভর্তি-প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে, তাতে ঘোরতর দুর্নীতির অভিযোগে রীতিমত ক্ষতবিক্ষত শিক্ষামহল। কোথাও দুর্নীতির দাপটে ঠাঁই পাচ্ছে না মেধা, কোথাও আবার আসন বিক্রি হয়ে যাচ্ছে টাকার বিনিময়ে। সর্বত্রই কাঠগড়ায় শাসকদলের ছাত্র রাজনীতি।

    তুমুল সমালোচনার মুখে কঠোর হয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শনিবার পুলিশকে নির্দেশ দেন, ভর্তি প্রক্রিয়া চলাকালীন সমস্ত কলেজের গেটে কঠোর পুলিশি নিরাপত্তা জোগান দিতে হবে। সূত্রের খবর, ভর্তি নিয়ে ওঠা এই তুমুল অভিযোগে রীতিমতো ক্ষুব্ধ মমতা। সে কারণেই কড়া হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

    নবান্ন সূত্রের খবর, ভর্তি প্রক্রিয়া চলাকালীন কলেজগুলোয় যাতে কোনো বহিরাগত ঢুকতে না পারে, সে দিকে নজর রাখতেই এই পুলিশি নিরাপত্তা। ভর্তি প্রক্রিয়া চলাকালীন কলেজের গেটে আই-কার্ড ও নতুন যে ছাত্রছাত্রীরা ভর্তি হতে আসবে তাদের রেজ়াল্ট ও প্রয়োজনীয় তথ্য যাচাই করে, তবেই কলেজে ঢুকতে দেওয়া হবে। এর পরেও যদি কোনো বহিরাগত ঢুকে পড়ে কলেজে, তা হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তেমন হলে গ্রেফতারও করা হতে পারে বলে সূত্রের খবর।

    উল্লেখ্য, কয়েক দিন আগে নেতাজি ইন্ডোরে দলের কোর কমিটির বৈঠকে কলেজগুলিতে ভর্তি প্রক্রিয়াকে কেন্দ্র করে যে অশান্তি হচ্ছে, তা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এর পরেই কলেজে ভর্তি প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা আনতে কড়া হচ্ছে প্রশাসন।

    নবান্ন সূত্রের খবর, মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন,  টাকা নিয়ে ভর্তি কোনো মতেই বরদাস্ত করা হবে না। সিপিকে নির্দেশ দিয়েছেন, যোগ‍্যতা থাকা স্বত্বেও ভর্তি হতে না পেরে কেউ যদি থানায় অভিযোগ জানান, তা হলে তৎক্ষণাৎ ব‍্যবস্থা নিতে হবে।

    অভিযোগে ইতিমধ্যেই যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ারও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। কেউ টাকা নিয়ে ভর্তি করছে জানতে পারলে, তৎক্ষণাৎ তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। ভর্তির ক্ষেত্রে কোনো ইউনিয়ন বা অন্য কেউ কোনো বাধা দিলে বা ভর্তি প্রক্রিয়ায় বিঘ্ন ঘটানোর চেষ্টা করলে তৎক্ষণাৎ তাকেও গ্রেফতারের নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর।

    তবে মুখ্যমন্ত্রীর এই কড়া নির্দেশেও প্রশ্ন উঠেছে শিক্ষামহলে। বহিরাগতদের না হয় রোখা গেল, কিন্তু অভিযোগ তো কলেজেরই ছাত্রনেতাদের বিরুদ্ধে উঠছে। ভর্তি প্রক্রিয়ায় একচ্ছত্র দাপাদাপি তো তাঁরাই করছেন। তাঁদের আটকানোর উপায় কী? চাপের মুখে এবং ভর্তি হতে না-পারার ভয়ে, অনেকেই থানা-পুলিশ করতে চান না। সে ক্ষেত্রে কি কলেজে উপস্থিত ছাত্রনেতাদের দাপট চলতেই থাকবে!

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Leave A Reply

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More