লকডাউনের মধ্যে মন্দিরের গেট ভেঙে রথ বার করল জনতা, দাঙ্গাহাঙ্গামার দায়ে ধৃত ৫০

১৩

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো : কর্নাটকের উত্তরে কোপ্পাল জেলার কুসতিগি তালুকে মন্দিরে বাৎসরিক পুজোর অনুমতি দিয়েছিল প্রশাসন। সেই পুজোকে কেন্দ্র করে বাধল অশান্তি। কথা ছিল, পুজো হবে মন্দিরের ভেতরে। লকডাউনের মধ্যে কোনও উৎসব হবে না। কিন্তু বিপুল সংখ্যক মানুষ জড়ো হয়ে মন্দিরের গেট ভেঙে ফেললেন। তারপর মন্দির চত্বর থেকে বার করে নিয়ে এলেন রথ।

কোপ্পাল জেলার পুলিস সুপার জি সঙ্গীতা বলেন, দোতিহাল নামে এক গ্রামের প্রাচীন মন্দিরে বাৎসরিক পুজোর অনুমতি দেওয়া হয়। লকডাউনের মধ্যে মন্দিরের ভেতরেই পুজো হওয়ার কথা ছিল। সেখানে বেশি লোকের থাকার কথা ছিল না। কিন্তু পুজোর আগে মন্দিরের বাইরে বড় সংখ্যক মানুষ জড়ো হন। তাঁরা যাতে মন্দিরে না ঢুকতে পারেন, সেজন্য পুলিস দরজা বন্ধ করে দেয়। তখন আরও অনেক মানুষ গেটের বাইরে জড়ো হন। তাঁরা মন্দিরের দরজা ভেঙে ফেলেন। ভেতর থেকে রথটি বার করে আনেন।

এসপি জানান, এই পরিস্থিতিতে পুলিশ বাধ্য হয়ে লাঠিচার্জ করে। ভিড় নিয়ন্ত্রণে এলে ফের রথটি মন্দিরের ভেতরে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সিসিটিভির ফুটেজ দেখে গ্রেফতার করা হয় ৫০ জনকে। পুলিস আরও কয়েকজনকে খুঁজছে। গ্রাম ছেড়ে পালিয়েছেন বেশিরভাগ মানুষ। ওই গ্রামে ভোটারের সংখ্যা ৭ হাজার। তাঁদের বেশিরভাগই এখন গ্রামে নেই। কেবল বয়স্ক আর মহিলারা বাড়িতে আছেন। এসপি জানিয়েছেন, পুলিশ এখন অপেক্ষা করছে।

কর্নাটকে গত কয়েক সপ্তাহে ব্যাপক ছড়িয়েছে করোনা সংক্রমণ। সেজন্য কঠোরভাবে লকডাউন কার্যকর করা হচ্ছে।

এখনও পর্যন্ত কর্নাটকে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লক্ষ ৭০ হাজার মানুষ। মারা গিয়েছেন ৪ হাজার জন। রাজ্যে অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা এখন ৮২ হাজার। রাজ্যে এখন কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা ১৭ হাজার। সরকার সম্প্রতি হোম আইসোলেশন সংক্রান্ত বিধি পরিবর্তন করেছে। রাজ্যের স্বাস্থ্যব্যবস্থার ওপরে যাতে চাপ কমে, সেজন্যই অনেককে বাড়িতেই আইসোলেশনে রাখার ব্যবস্থা হচ্ছে।

ভারতের কোভিড পরিসংখ্যানে শীর্ষে রয়েছে মহারাষ্ট্র। দেশে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণের প্রাথমিক পর্যায় থেকেই মহারাষ্ট্রে কোভিড-১৯-এর প্রভাব সবচেয়ে বেশি। করোনা আক্রান্ত এবং সংক্রমণে মৃতের সংখ্যাও মহারাষ্ট্রেই সর্বাধিক। মারাঠা প্রদেশে এখন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬,৪৩,২৮৯। মৃত্যু হয়েছে ২১,৩৫৯ জনের। সংক্রমণ সারিয়ে সুস্থ হয়েছেন ৪,৫৯,১২৪ জন। মহারাষ্ট্রে এখন অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা ১,৬২,৮০৬।

দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে তামিলনাড়ু। এখানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩,৬১,৪৩৫। সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৬২৩৯ জনের। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩,০১,৯১৩। তামিলনাড়ুতে অ্যাকটিভ কেস ৫৩,২৮৩।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More