Latest News

Browsing Category

ব্লগ

নগরায়ন

অনিতা অগ্নিহোত্রী প্রশাসনের অন্তরমহলের ভাষ্য নয়, মানুষের আঙিনায় বসে দেখা রাষ্ট্রের রূপ। প্রান্তিক জীবনের নিত্যকার লড়াই, জীবনে লিপ্ত হয়ে থাকার আখ্যান। ১৯৯৬-২০১৬ এই দু’দশক ব্যাপী সততসঞ্চরমান, সৃজনশীল শিল্পীর লেখা— চলন বিল।  পূর্বপ্রকাশিত…

বিত্ত পর্ব

অনিতা অগ্নিহোত্রী প্রশাসনের অন্তরমহলের ভাষ্য নয়, মানুষের আঙিনায় বসে দেখা রাষ্ট্রের রূপ। প্রান্তিক জীবনের নিত্যকার লড়াই, জীবনে লিপ্ত হয়ে থাকার আখ্যান। ১৯৯৬-২০১৬ এই দু’দশক ব্যাপী সততসঞ্চরমান, সৃজনশীল শিল্পীর লেখা— চলন বিল।  পূর্বপ্রকাশিত…

রানার ছুটছে ৪

অংশুমান কর ‘ভাইরাল রানু’ মানে রানু মণ্ডলকে নিয়ে কিছু কথা বলেছেন লতা মঙ্গেশকর। লতারই গাওয়া ‘এক প্যায়ার কা নাগমা হ্যায়’ গানটি গেয়েই রানু মণ্ডল হয়ে যান ‘ভাইরাল রানু’। লতা তাই  বলেছেন, “কেউ যদি আমার নাম ও কাজ থেকে উপকৃত হন তবে আমি নিজেকে…

রানার ছুটছে-৩

অংশুমান কর মাঝে মাঝে একটা-আধটা খবর পড়ে মন আলোয় ভরে ওঠে। দিন পাঁচেক আগে পড়েছিলাম তেমনই একটি খবর। একজন মাস্টারমশাইকে নিয়ে। পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রামের উত্তর রামনগরের এক অশীতিপর শিক্ষক শ্রী সুজিত চট্টোপাধ্যায় উঠে এসেছেন খবরের শিরোনামে। তাঁর বয়স…

রানার ছুটছে- ২

অংশুমান কর কলকাতা শহরের ঝুলনেও এবার লেগেছে থিমের ছোঁয়া। একটি খবরের কাগজ, ছোট নয়, বেশ বড়সড় খবর করেছে তা নিয়ে। সঙ্গে একটি ছবি। ঝুলন প্রাঙ্গনে রয়েছে সাঁজোয়া গাড়ি, হেলিকপ্টার, কামান আর যুদ্ধের পোশাকে সেনা। দুর্গাপুজোয় থিমের অনুপ্রবেশ ঘটেছে…

দ্বিতীয়জন

একরাম আলি মির্জাপুর স্ট্রিট, আমহার্স্ট স্ট্রিট আর হ্যারিসন রোডের মাঝে একটা ত্রিকোণ। তাতে তিনটে বাড়ির একটা দোমহলা। পিছনের অংশটিতে, ট্রামলাইনের উপর, প্যারামাউন্ট বোর্ডিং হাউস। দোমহলার সামনেরটাতে, পশ্চিমে, বেঙ্গল বোর্ডিং। পুবে ইন্টারন্যাশনাল…

রানার ছুটছে-১

অংশুমান কর ব্যক্তির সংবাদ ব্যক্তিকে পৌঁছে দিত রানার। কখনও বা সমষ্টির সংবাদ সমষ্টিকে। আমার কেন জানি না মনে হয় খবরের কাগজও এক ধরনের রানার। খবরের কাগজও তো নানা ধরনের সংবাদই পৌঁছে দেয় রাত্রি পেরিয়ে ভোরের দুয়ারে। আমিও, দেখেছি, সারাদিনের হাজারো…

গোধূলিসন্ধির নৃত্য

একরাম আলি সত্তরের দশকেও মেস ছিল জবরদস্ত এক প্রতিষ্ঠান। অন্তত কলকাতায়। যেমন স্কুল, জেলখানা, হাসপাতাল বা ধর্মশালা। যে-মেস ছেড়ে যেতে হল আমাকে, সেটার বয়স মাত্র বছরচল্লিশেক। কিন্তু মেস-নামের প্রতিষ্ঠানটি কলকাতায় আরও পুরনো। ইংরেজি এই শব্দটির সমান…

চোদ্দো মিলিমিটার

একরাম আলি এত যে হাঁটাহাঁটি করতে হয় মানুষকে, সইতে হয় পাহাড় আর খানাখন্দ পেরনোর ধকল, কত-কত সিঁড়ি ওঠানামার অপমান-- পায়ের চামড়া তো মাত্র শূন্য দশমিক চার মিলিমিটার পুরু! ওই পাতলা আবরণ সম্বল করেই অতীশ দীপংকরের পা পাড়ি দিয়েছিল হিমালয় ডিঙিয়ে…

টবিন রোড

একরাম আলি কোথাও তেমন করে যেতে চাইলে নদী পেরোতেই হয়। না-পেরোলে পৌছনো যায় না। আমি পেরোলাম বাগবাজার খাল। ঢিমে স্রোত। জল নোংরা। ঘ্যাচাং নয়, কুচ করে কেটে গেল খালের গলাটি। আর সেই ফাঁক গলে নিমেষে ট্যাক্সি ওপারে। হ্যারিসন রোড থেকে টবিন রোড। তাও…

“সরি বোলা না?”

অনিতা অগ্নিহোত্রী প্রশাসনের অন্তরমহলের ভাষ্য নয়, মানুষের আঙিনায় বসে দেখা রাষ্ট্রের রূপ। প্রান্তিক জীবনের নিত্যকার লড়াই, জীবনে লিপ্ত হয়ে থাকার আখ্যান। ১৯৯৬-২০১৬ এই দু’দশক ব্যাপী সততসঞ্চরমান, সৃজনশীল শিল্পীর লেখা— চলন বিল।  পূর্বপ্রকাশিত…

প্রস্থানপর্ব

একরাম আলি হ্যারিসন রোড ধরে হাঁটছি। হাতে সস্তার সিগারেট। সস্তা ধোঁয়া। ফুটপাথের এখানে-ওখানে ঘুমন্ত মানুষজন। যে-ঘুম সস্তা-দরে কেনা, সে-ঘুম তো হুটহাট ভাঙবেই। ফিরছি এমন একটা মেসে, যেখানে মেদিনীপুর শ্রীরামপুর নদীয়া পুরুলিয়া বীরভূম থেকে গত কয়েক…

বাড়ি থেকে পালিয়ে

একরাম আলি ক্লাস সেভেন থেকে নাইন-- বাড়ি থেকে পালিয়ে যাওয়ার সেরা সময়। আর, এমন সুকর্মটি জীবনে একবারও যদি কেউ না-করে, মনুষ্যপদবাচ্য সে হবে কী করে! তখন নাইন। ফলে, কোত্থেকে-যে ঝাঁক-ঝাঁক কী-সব এসে মাথার ভেতর বাসা বেঁধেছে, কেন, কিসের, টের পেলাম এক…

কলকাতা

একরাম আলি চুয়াত্তর পঁচাত্তর ছিয়াত্তর সাতাত্তর— সে-সময় কত যে অজানা গাঁ-গঞ্জ থেকে লিটল ম্যাগাজিনের উদয়! কত তাদের নাম। বেশির ভাগ পত্রিকার অপমৃত্যু ঘটতেও সময় লাগত না। দেশের শিশুমৃত্যুর হারের সমান বলা যায়। আশ্চর্যের যে, পত্রপত্রিকার সংখ্যায় তবু…

কারুবাসনা

অনিতা অগ্নিহোত্রী প্রশাসনের অন্তরমহলের ভাষ্য নয়, মানুষের আঙিনায় বসে দেখা রাষ্ট্রের রূপ। প্রান্তিক জীবনের নিত্যকার লড়াই, জীবনে লিপ্ত হয়ে থাকার আখ্যান। ১৯৯৬-২০১৬ এই দু’দশক ব্যাপী সততসঞ্চরমান, সৃজনশীল শিল্পীর লেখা— চলন বিল। পূর্বপ্রকাশিত…

এলিয়েন

একরাম আলি গাছে-ঢাকা আমহার্স্ট স্ট্রিট। দু-পাশে বুক-চেতানো ফুটপাথ। ফাঁকা-ফাঁকা। গাড়ি-ঘোড়াও কম। বাস মাত্র একটা-- থ্রি বি। পাইকপাড়া থেকে আলিপুর। পরে-যে আরও চলবে, তার শুরু থ্রি সি বাই ওয়ান দিয়ে। তারপর যোগ দেয় থ্রি ডি। সবই প্রাইভেট। জাতে সরকারি…

গোলদিঘি

একরাম আলি রাত অনেক। বারান্দায় দাঁড়ালে ড্রিল ক্লাসের মতো সারবন্দি রাস্তার আলো। মাঝেমধ্যে গাড়ির হেডলাইট। মিত্র স্কুলের গলতায় শান্তিপুর-নামাঙ্কিত বন্ধ শালঘরের আলো নিভে গেলেও, দরজার মাথায় সাইনবোর্ড পড়া যায়। আশপাশের স্বল্প আলোয় একটু যা ঝাপসা।…

কলকাতার কিহোতে

একরাম আলি যে-ভূখণ্ডে আমি থাকতে চাইতাম, সেটি কেমন? তার পায়ের কাছে থাকবে সমুদ্র। উচ্ছল তীরভূমি। শিয়রে পাহাড়, পর্বত। চারপাশে বনাঞ্চল ঝরনা নদী। দেখবার মতো দু-একটা পুরাকীর্তি-অঞ্চল, যাতে অতীত গৌরবের অন্তত ইঙ্গিত ফুটে ওঠে। মাঝে মাঝে বসবাসযোগ্য…

খেলা যখন ছিল…

অংশুমান কর দুব্‌লা পাতলা ছিলাম বলে খেলাধুলোয় তেমন পটু ছিলাম না ছেলেবেলায়, কিন্তু খেলা নিয়ে আমার উৎসাহের অন্ত ছিল না। গ্রামে জন্মেছিলাম বলে বৈচিত্র্যের অভাব ছিল না আমাদের খেলাধুলোতে, ছিল না খেলার মাঠেরও অভাব। একটা সময়ে আমাদের গ্রামে ক্রিকেট…

দেশ

একরাম আলি মানুষের সেরা আবিষ্কার হয়তো-বা ঈশ্বর। এবং আত্মা। ঈশ্বর এবং আত্মার সম্পর্ক যে অবিচ্ছেদ্য নয়, মানুষই সেই গূঢ় কথাটি সামনে এনে খুঁটিয়ে দেখতে চেয়েছে। আত্মা ঈশ্বর-নিরপেক্ষ নাকি সংশয়মধুর সম্পর্কে তার ‘চলার বেগে পায়ের তলায় রাস্তা জেগেছে’ —…

আমায় ডাক দিলে কি…

অংশুমান কর দুপুরে ভাতঘুমের মধ্যে স্বপ্নটা দেখলাম। দেখলাম একটা ট্রেন থেকে, কী মনে করে কে জানে, হঠাৎ নেমে পড়লাম একটা স্টেশনে। তাও আবার শেষ কম্পার্টমেন্ট থেকে। সেটাও আবার রয়েছে প্ল্যাটফর্মের বাইরে। দেখলাম স্টেশনটির নাম ‘মুরগুমা’। যাব পুরুলিয়া,…

দুই তারা

একরাম আলি যদি সুদর্শন বলতে হয়, কফি হাউসের দু-জন অতিথির নাম উঠে আসবেই— ভাস্কর চক্রবর্তী, শামশের আনোয়ার। প্রায় সমান লম্বা। ছয় তো বাঙালির কাছে আকাশ! ছুঁতে মন চায়। কিছুটা নীচেই ছিলেন তাঁরা। পাঁচ আট-দশই-বা কম কি! প্রথমজন তুর্কি ফর্সা।…

হে পূর্ণ তব চরণের কাছে

অংশুমান কর পূর্ণের চরণপ্রান্তে আশ্রয় কে না চায়? বাইরে থেকে সবসময় দেখা যায় না, কিন্তু ভেতরে ভেতরে মনুষ্য হৃদয়ের এই যাচ্ঞা ফল্গুধারার মতো প্রবাহিত হতেই থাকে। তাই তো মানুষ নিখুঁত হতে চায়। রূপে, কাজে। খুঁতখুঁতে মানুষেরা নাকি দ্রুত উন্নতি করেন…

মহানদীর কূল ধরে

অনিতা অগ্নিহোত্রী প্রশাসনের অন্তরমহলের ভাষ্য নয়, মানুষের আঙিনায় বসে দেখা রাষ্ট্রের রূপ। প্রান্তিক জীবনের নিত্যকার লড়াই, জীবনে লিপ্ত হয়ে থাকার আখ্যান। ১৯৯৬-২০১৬ এই দু’দশক ব্যাপী সততসঞ্চরমান, সৃজনশীল শিল্পীর লেখা— চলন বিল। মহানদীর গতিপথ ধরে…

লেটার প্রেস

একরাম আলি এককালে ছিল গৃহস্থবাড়ি। তারই এক বা একাধিক ঘরের দেওয়াল কালিতে ভর্তি। স্যাঁতসেঁতে তার মেঝে। কালি-ভর্তি। যাঁরা সেখানে ব্যস্ত, তাঁদের দু-হাত কালিতে রঙিন। এমনকী বিকেলের মুড়ির ঠোঙাও। সেখানে ঢুকলে, কালির জগতেই ঢুকতে হয়। তবু, কালিমালিপ্ত…

অযোধ্যা

একরাম আলি তেতাল্লিশ বছর আগের ছবি। বুনো চড়াই পেরিয়ে পাঁচ আগন্তুক দাঁড়িয়ে আছি। বনদপ্তরের চেষ্টাকৃত পাইনবনে। পিছনে বনবাংলো, যেখানে আমাদের ঢোকার অনুমতিপত্র নেই। তারও পিছনে পাহাড়ের ওদিকে সূর্য তলিয়ে যাচ্ছে। সামনে উঁচুনীচু প্রান্তর, যেটি আসলে…

টানা-পোড়েন

অনিতা অগ্নিহোত্রী প্রেসিডেন্সী কলেজে অর্থনীতি, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর অর্থনীতির পাঠ শেষ করে চলে গিয়েছিলেন হিমালয়ের কোলে জাতীয় অ্যাকাডেমিতে। দু’বছরের জন্য আইএএস অফিসারের ট্রেনিং নিতে। প্রিয় শহরের প্রতি একরাশ অভিমান ছিল মনে।…

পুরুল্যা পুরুলিয়া

একরাম আলি বন্ধুরা জানে— আমি পুরুলিয়ায়। অথচ সিঁড়ি ভাঙছি। রবিবারের কফি হাউস। ফাঁকা যতটা, চোখে লাগে তারও বেশি। ইনফিউশন আসে অবশ্য। কিন্তু কালো কফিকে ঘিরে অস্থির চারপাশ। পালাই-পালাই ভাব। যখন মাথা চাড়া দিয়ে উঠল অস্থিরতা, কাউন্টারের পিছনে ঘড়ির…

এত বেশি কথা বলো কেন? চুপ করো শব্দহীন হও…

অংশুমান কর সন্ধের মুখে কালবৈশাখী হলে, আমাদের মন ভেঙে যেত। সেই আটের দশকের মাঝামাঝি সময়ের কথা বলছি। তখন রবীন্দ্রজয়ন্তী হত পাড়ার মাচায়। খুঁটি দিয়ে মাচা বাঁধার সময় থেকেই আমাদের উৎসুক প্রতীক্ষা শুরু হয়ে যেত, পঁচিশে বৈশাখের। দুগ্‌গা পুজোর…

বিজনের কলকাতা

একরাম আলি কথিত আছে— নবির অন্তিমশয্যায় শিষ্যরা সব জড়ো হয়েছেন। শেষ বাণী শোনার জন্যে সবার কান খাড়া। ধীরে উচ্চারিত হল— পরনের এই শেষ খেরকাটি পাবেন ওয়াইস আল-কারনি। সবাই চুপ। চোখে প্রশ্ন— কে তিনি! ফের উচ্চারিত হল-- ইয়েমেনি। মা অন্ধ। উট চরানো তার…

আমার ঠিকানা আছে তোমার বাড়িতে, তোমার ঠিকানা আছে আমার বাড়িতে

অংশুমান কর লোকটা যে ঠিক কে, লোকটা যে ঠিক কী, তা আজও আমার জানা হল না। একেক সময়ে ওঁকে এক এক রকম লাগে। এক এক সময়ে মনে হয় উনি একজন বৈদ্য। না, ডাক্তার নন, বৈদ্যই। শ্বেতশুভ্র শ্মশ্রুসজ্জিত সেই কোন প্রাচীনকালের সর্বরোগহরা বদ্যিবুড়ো। যিনি একাধারে…

সুখের দিন

অনিতা অগ্নিহোত্রী প্রেসিডেন্সী কলেজে অর্থনীতি, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর অর্থনীতির পাঠ শেষ করে চলে গিয়েছিলেন হিমালয়ের কোলে জাতীয় অ্যাকাডেমিতে। দু’বছরের জন্য আইএএস অফিসারের ট্রেনিং নিতে। প্রিয় শহরের প্রতি একরাশ অভিমান ছিল মনে।…

অতিথি

একরাম আলি সাড়ে ন-বছর বয়স থেকে একাধিক হোস্টেলে। হলে কী হবে, বাড়ি ছোট্ট একটা গাঁয়ে। হাঁটু-অবধি কাদা। বিদ্যুতের কল্পনাও করা যেত না। দু-মাইল হাঁটলে পাকা রাস্তার লেজ পাকড়ানো সম্ভব যদিও, কিন্তু ক-জনই-বা যাচ্ছে! এ-হেন গাঁয়ের এক চাষি-পরিবারে জন্ম,…

তোমাকে বক্‌ব, ভীষণ বক্‌ব আড়ালে

অংশুমান কর বকা দেওয়ার আরেক নাম চুমু খাওয়া। ধীরে ধীরে এই বিশ্বাস আমার হয়েছে। “তোমাকে বক্‌ব, ভীষণ বক্‌ব/আড়ালে”—প্রথম প্রথম মনে হত না, কিন্তু এখন যতবার এই কবিতাটি পড়ি, মনে হয় যে, আসলে এটি একটি চুমু খাওয়ার কবিতা। মনে হয় যে, তার কিশোরী…

বকুলবাগান

একরাম আলি জানালা সব খোলা। শীতকালের সিউড়ি। কিন্তু প্রতিটি জানালা দিয়ে একেকটা বড় সাইজের রোদ। তার সঙ্গে আশপাশের মাঠঘাট আর আকাশ ঢুকে পড়ছিল একেবারে ঘরের মধ্যে। উত্তরে যতদূর চোখ যায়-- ন্যাড়া মাঠ, মাঝে মাঝে গমখেত, শাক-সবজি, ফের ন্যাড়া মাঠ তিলপাড়া…

ওয়ার্ডরোবের মাথায় এখনও তাঁর চশমা

অংশুমান কর ছোটোবেলায় যোগ যত সহজে করতে পারতাম, বিয়োগ পারতাম না। বারবার ভুল হত বিয়োগের অঙ্কে, নম্বর কাটা যেত। আজও দেখি সেই একই ভুল হয়। জীবনে কত কিছুই কত সহজেই না যোগ করে নিই, কিন্তু বিয়োগ করতে গেলেই সমস্যা। অথচ বয়স যত বাড়ছে, বুঝতে পারছি বিয়োগ…

শুভ নববর্ষ

একরাম আলি পয়লা বৈশাখ। শুভেচ্ছার স্রোতে ফেসবুক ভেসে যাওয়ার দিন। মেসেঞ্জার ঠেসে প্রীতি আর শুভকামনা। কত রকমের শব্দ কত যে অভিনব ভাবে ব্যবহার হয় নতুন বছরের প্রথম দিনটাতে, গবেষণার বিষয়। সারা পৃথিবীতে ছড়ানো আজ বাঙালি। বাংলা সাল বা মাস আমাদের কাজে…

তুমি হও যে অদর্শন…

অংশুমান কর বেশ কিছুদিন ধরেই ইংরেজি নববর্ষের চেয়ে আমার ভালো লাগে বাংলা নববর্ষের উদ্‌যাপন। না, সে কেবল আমি বাঙালি বলে নয়। এই পক্ষপাতের পেছনে আরও গূঢ় কিছু কারণ রয়েছে। আসলে বাংলা নববর্ষের দিনে আমার টেনশন একটু কম হয়। কেন? বলছি। খেয়াল করে দেখবেন,…

হার-জিত

একরাম আলি সেটা সাতাত্তর। সাতাশ মার্চ জরুরি অবস্থা উঠে গেল। এল নির্বাচন। ফল-- রাজ্যে কংগ্রেসের রাজ্যপাট চুরমার করে বামফ্রন্টের মারকাটারি জয়। মাসটা সম্ভবত ছিল জুন। দিনটা ছিল শনিবার। জরুরি অবস্থার দমচাপা মাসগুলো পেরিয়ে এসে মুক্তির আশ্বাস ছিল…

বুনোফুলের দেশ

অংশুমান কর ভোট মানেই ছুটি। অন্তত আমার জীবনে। না, ভোট মানেই এই ক’দিন আগে পর্যন্তও আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস চলে যাবে জেলা প্রশাসনের দখলে আর গরমের ছুটির সঙ্গে জুড়ে যাবে ভোটের একটা ‘দুষ্টুমিষ্টি’ ছুটি—সেজন্য নয়। সত্যি বলতে কি, এখন তো…

নির্মাণ কাণ্ড

অনিতা অগ্নিহোত্রী প্রেসিডেন্সী কলেজে অর্থনীতি, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর অর্থনীতির পাঠ শেষ করে চলে গিয়েছিলেন হিমালয়ের কোলে জাতীয় অ্যাকাডেমিতে। দু’বছরের জন্য আইএএস অফিসারের ট্রেনিং নিতে। প্রিয় শহরের প্রতি একরাশ অভিমান ছিল মনে।…

রাতের শিয়ালদা

একরাম আলি প্রকৃতিতে যা-কিছু চলে বা সরে-সরে যায়, সেইসব যাওয়া আর যেতে-যেতে অদৃশ্য হওয়ার পিছু-পিছু মানুষের দৃষ্টিও অদৃশ্য জগতে ঢুকে যেতে চায়। তার গতিকে থামাতে পারে না বলেই হয়তো। চায়ও কি? চাঁদের অস্থিরতাকে সম্বোধন করে বড় জোর তার আর্তি— চোখের…

নাড়ুগোপাল, নাড়ুগোপাল

অংশুমান কর  রেমন্ড ফ্রন্টেন, আমার অসম-বয়সি আমেরিকান বন্ধু, মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন না। রেমন্ড আমেরিকার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক। বিখ্যাত “নোটস অ্যান্ড কোয়ারিজ” জার্নালটির সম্পাদক।  পণ্ডিত মানুষ। বহুদিন পরে রেমন্ডের সঙ্গে দেখা হল গৌড়বঙ্গ…

হাসপাতাল ভ্রমণ

একরাম আলি টাকা ফুরিয়ে যায়। এর শুরু কবে থেকে? মনে পড়ে না। সেই যখন হাফ প্যান্ট, যখন ক্লাস ফাইভ, তখন থেকেই তো হস্টেলে। নিজের খরচটা নিজেকেই বুঝে নিতে হত। গোল তামার একপয়সা থেকে শুরু। কত-কত পয়সা। টাকা, মানে কাগজের নোট— নীলচে এক টাকা, হলদে…

দেখিস নে কি শুক্‌নো-পাতা ঝরা-ফুলের খেলা রে…

অংশুমান কর “আজ সবার রঙে রঙ মিশাতে হবে”— বসন্তের গান নয়, তবু কোনও একবার, দোলের সময়ে শুনেছিলাম এই গানটি। আর মনে হয়েছিল, ঠিকই তো আজ তো সবার রঙে রঙ মেশানোর দিন, ওই যে একদল তরুণ অশান্ত আকাশে আবির উড়িয়ে দিচ্ছে, ওই যে দখিনা বাতাসে বেণুবনের মতো…

প্রেসিডেন্সি থেকে কলাবাগান

একরাম আলি রাস্তা চকচক করছে। পাশাপাশি দুটো ট্রামলাইনের পা ডাইনে গ্লোব নার্শারি আর বাঁয়ে ডাকব্যাক ছাড়িয়ে লম্বা হয়ে শুয়ে থাকার জন্যে চকচকে-ভাবটি আরও ধারালো। বাস-ট্রাম-ঠেলাগাড়ি-রিকশা-বাইক-অ্যাম্ব্যাসাডরের পিছনে অ্যাম্ব্যাসাডর আর সে সবের বিকট…

রবিবার

একরাম আলি পাশেই পূরবী। উনিশশো একষট্টির জানুয়ারিতে কলকাতা বেড়াতে যখন নিয়ে আসা হয়, ওই হলেই দেখানো হয়েছিল ‘মানিক’। শম্ভু মিত্রকে সেই প্রথম দেখি। ফিল্মে। তখন কি জানতাম, যুগান্তর পেরিয়ে ওই সিনেমাহলের পাশে এক মেসজীবী হয়ে আমি আশ্রয় পাব কলকাতার? আর…

এইট-বি

একরাম আলি একটা সময় ছিল, যখন বাঙালি পরিবারে ‘যথাকালে, অর্থাৎ যথাকালের অনেক পূর্বেই’ বিয়ের কাজটি সেরে ফেলা যেত। কেমন একটা ফুল ছিল না বিয়ের? সেটা যে কেমন দেখতে, গন্ধই বা কেমন, কেউ-কেউ জানত। বাকিরা থাকত ফোটার অপেক্ষায়। অবশ্য তারপরও পৃথিবী যেমন…

ব্লগ: হ্যারিসন রোড ২/ ম্যানেজারবাবু

একরাম আলি কলকাতার পুরোনো মেস-অঞ্চলের সীমানা ছিল মোটের ওপর দক্ষিণে ধর্মতলা স্ট্রিট, উত্তরে বিবেকানন্দ রোড, পুবে আপার সার্কুলার রোড, পশ্চিমে সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ—এই আয়তক্ষেত্রটিতে। অঞ্চলটায় দু’দুটো মেডিকেল কলেজ, দেশের ডাকসাইটে ইউনিভার্সিটির…

ব্লগ: শেষ নাহি যে, শেষ কথা কে বলবে?

অংশুমান কর ‘সিগারেটটা শেষ করার সময় দেবে তো?’—আমাকে জিজ্ঞেস করলেন সুনীলদা। সাহিত্য অকাদেমির অফিস ঘরে। তখন সাহিত্য অকাদেমির পূর্বাঞ্চলের সচিবের দায়িত্ব আমার ঘাড়ে। সাহিত্য অকাদেমির সভাপতি সুনীলদা। প্রয়াত হয়েছেন সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজ। তাঁর স্মরণে…