রবিবার, এপ্রিল ২১

জয়া প্রদাকে অশালীন মন্তব্য, আজম খানের বিরুদ্ধে মামলা

দ্য ওয়াল ব্যুরো : এক মহিলার উদ্দেশে আপত্তিকর মন্তব্য। এই অভিযোগে উত্তরপ্রদেশের রামপুরে এফআইআর দায়ের হয়েছে সমাজবাদী পার্টির প্রার্থী আজম খানের বিরুদ্ধে। তাঁর বিরুদ্ধে আছেন অতীত দিনের নামী অভিনেত্রী জয়া প্রদা। তিনিও একসময় সমাজবাদী পার্টিরই এমপি ছিলেন। অভিযোগ, তখন থেকেই আজম খান তাঁর সঙ্গে শত্রুতা করেছেন। এবার জয়া প্রদা বিজেপির প্রার্থী।

গত রবিবার আজম খান এক জনসভায় কারও নাম না করে বলেন, এক ব্যক্তির অন্তর্বাসের রং খাঁকি। সোমবার অবশ্য তিনি বলেন, কেউ যদি প্রমাণ করতে পারে তিনি জয়া প্রদার উদ্দেশে ওই মন্তব্য করেছেন, আর ভোটে দাঁড়াবেন না।

অন্যদিকে জয়া প্রদা বলেন, আজম খানের মতো লোককে ভোটে দাঁড়াতে দেওয়াই উচিত নয়। তাঁর কথায়, এই ধরনের মন্তব্য আমার বিরুদ্ধে আগেও করা হয়েছে। আমিও ২০০৯ সালে সমাজবাদী পার্টির প্রার্থী ছিলাম। সেবারও তিনি আমার বিরুদ্ধে নানা মন্তব্য করেছিলেন। এই ধরনের মানুষ যদি যেতেন, গণতন্ত্রের কী হবে?

আজম খানকে তাঁর প্রশ্ন, আপনি কী চান, আমি মারা যাই? তবে কি আপনি সন্তুষ্ট হবেন? আপনি হয়তো চান আমি ভয়ে পেয়ে এই কেন্দ্র ছেড়ে পালাই। কিন্তু আমি পালাব না।

সোমবার আজম খান বলেন, আমি কাউকে অপমান করিনি। আমি ন’বার বিধায়ক হয়েছি। রাজ্যের মন্ত্রীও ছিলাম। আমি জানি, কীভাবে কথা বলতে হয়।

আজম খান বলেন, সম্প্রতি এক ব্যক্তি বলেছেন, তাঁর কাছে দেড়শ রাইফেল আছে। তিনি আমাকে দেখলে গুলি করবেন। আমি তাঁর সম্পর্কে ওই মন্তব্য করেছি। যদিও ওই ব্যক্তি কে তিনি জানাননি।

রবিবার আজম খান বলেছিলেন, আমি আপনাদের প্রশ্ন করতে চাই, রাজনীতিকে কি এত নীচে নামতে দেবেন? এই ব্যক্তি গত ১০ বছর ধরে রামপুরের রক্ত শোষণ করেছেন। আমি সেই ব্যক্তিকে হাত ধরে রামপুরে নিয়ে এসেছিলাম। তাঁকে রামপুরের রাস্তাঘাট চিনিয়েছি। তাঁকে যাতে কেউ ছুঁতে না পারে সেদিকে লক্ষ রেখেছি। তাঁর উদ্দেশে কেউ কটু মন্তব্যও করতে পারেনি। আপনারা সেই ব্যক্তিকে ১০ বছর ধরে আপনাদের প্রতিনিধি বানিয়ে রেখেছেন।

এরপরেই আজম খান বলেন, সেই ব্যক্তির স্বরূপ বুঝতে আপনাদের ১৭ বছর লেগেছে। কিন্তু আমি ১৭ দিনেই বুঝতে পেরেছিলাম, তাঁর অন্তর্বাসের রং খাঁকি।

সকলেই ধরে নিয়েছিলেন, অভিনেত্রী জয়া প্রদা সম্পর্কে ওই মন্তব্য করা হয়েছে।

Shares

Comments are closed.