শনিবার, সেপ্টেম্বর ২১

বিএসএফ সাব ইনস্পেকটর ও তাঁর স্ত্রীকে ‘বিদেশি’ তকমা দেওয়া হল অসমে

দ্য ওয়াল ব্যুরো : নাম মুজিবর রহমান। বিএসএফের অ্যাসিস্ট্যান্ট সাব ইনস্পেকটর। অসমের জোড়হাট জেলার মেরাপানি অঞ্চলে উদয়পুর-মিকিরপাট্টির বাসিন্দা। তাঁকে ও তাঁর স্ত্রীকে বিদেশি বলে ঘোষণা করেছে ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল। গত ডিসেম্বরেই তাঁরা বিদেশি বলে চিহ্নিত হন। মুজিবর রহমান এখন পাঞ্জাবে পোস্টেড। তিনি গত মাসে একথা জানতে পেরেছেন।

বিএসএফ কর্মী ও তাঁর স্ত্রীকে বিদেশি বলে চিহ্নিত হলেও তাঁর বাবা-মা অথবা ভাই বোনেদের ভারতীয় বলেই মেনে নেওয়া হয়েছে। মুজিবর রহমান বলেছেন, আমরা বাংলাদেশি বা পাকিস্তানি নই। আমরা ভারতীয়। আমাদের জন্ম অসমে। ১৯২৩ সাল থেকে আমাদের পরিবারের এখানে থাকার নথিপত্র আছে। কিন্তু বর্ডার পুলিশ আমাদের বলছে ‘ডি ভোটার’। অর্থাৎ ডাউটফুল ভোটার। এক মাতালের কথার ভিত্তিতে আমাদের সন্দেহজনক ভোটার বলা হয়েছে। ফরেনার্স ট্রাইব্যুনালের রায় বাতিল করার জন্য মুজিবর গুয়াহাটি হাইকোর্টে আবেদন করেছেন।

অসমে ১০০ টি ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল আছে। তাদের কাজ যাদের ভারতীয় নাগরিকত্ব নিয়ে সন্দেহ আছে, তাঁদের খুঁজে বার করা। মুজিবর রহমান বলেন, আমাদের ফরেনার্স ট্রাইব্যুনালের সামনে ডাকা হয়েছে। কিন্তু সেই বিজ্ঞপ্তি পাঠানো হয়েছে অন্য লোকের ঠিকানায়। আমি এখন রাজ্যের বাইরে পোস্টেড। গ্রামপ্রধান আমাকে ওই বিজ্ঞপ্তির কথা জানাননি।

মুজিবরের আইনজীবী সুদীপ্ত নারায়ণ গোস্বামী বলেন, ফরেনার্স অ্যাক্টের নয় নম্বর সেকশন অনুযায়ী গত বছর ২১ ডিসেম্বর ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল ওই অর্ডার দেয়। সেই ধারা অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকেই প্রমাণ করতে হয়, তিনি বিদেশি নন। রহমান কোর্টের সামনে উপস্থিত হয়ে নিজের নাগরিকত্বের প্রমাণ দেননি। তাই আদালত একতরফা তাঁকে বিদেশি বলে চূড়ান্ত রায় দিয়েছে।

Comments are closed.