শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৪

বিলেতের রাজবাড়ির বড় বউ-ছোট বউয়ে নাকি বনিবনা নেই, বছর না ঘুরতেই মেগান মার্কেলকে নিয়ে কেচ্ছা!

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সেলিব্রিটি মানেই একটু-আধটু কেচ্ছা। অনেক সময় বড়সড় কেচ্ছাও। মাত্রই কয়েক মাস হলো ইংল্যান্ডের রাজপুত্র প্রিন্স হ্যারির সঙ্গে রূপকথার মতো বিয়ে হয়েছে আমেরিকান অভিনেত্রী মেগান মার্কেলের। এখন তিনি সন্তানসম্ভবা। এরই মধ্যে তাঁর বিরুদ্ধে বোমা ফাটিয়েছেন ব্রিটেনের বিতর্কিত টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব পিয়ার্স মর্গ্যান।

গুড মর্নিং ব্রিটেন নামে জনপ্রিয় টেলিভিশন শো-তে সরাসরি মেগানের নাম করে মর্গ্যান বলেন, মেগান জানেন কী করে সমাজের একেবারে উপরের স্তরে উঠতে হয়। মেগান আগে মর্গ্যানের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন, কিন্তু হ্যারির সঙ্গে পরিচয় হওয়ার পর থেকে মেগান আর তাঁকে চিনতে পারেন না বলে অভিযোগ করেছেন পিয়ার্স মর্গ্যান। সম্প্রতি শোনা যাচ্ছে রাজপরিবারের দুই বধূর মধ্যে সম্পর্কের নাকি অবনতি ঘটেছে। প্রিন্স উইলিয়ামের স্ত্রী কেট মিডলটন ও প্রিন্স হ্যারির স্ত্রী মেগানের সম্পর্কের মধ্যে উষ্ণতা শেষ হয়ে নাকি ঠান্ডা চোরা স্রোত বইছে। সেই নিয়েই আলোচনা করছিলেন মর্গ্যান। সেই সময়েই তিনি খোলাখুলি মেগানের সমালোচনা শুরু করে দেন। তিনি বলেন, আমি বছর দেড়েক ধরে ওকে চিনি। বেশ ভালো সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল আমাদের মধ্যে। কিন্তু আচমকাই ও আমাকে ডাম্প করে দেয়। যোগাযোগ পুরো বন্ধ করে দেয়। কারণ এ তখন আরও গুরুত্বপূর্ণ কাউকে পেয়ে গিয়েছে। বলাই বাহুল্য মর্গ্যান প্রিন্স হ্যারির কথা বলছিলেন।

মগ্যানের কথায়, মেগান যেই উপরে উঠে গেল, আমার অরবিটের বাইরে বেরিয়ে গেল। আর আমাকে চিনতে পারে না। হলিউড অভিনেত্রী তো, নিজে সুযোগটা খুব বোঝে ও। কী ভাবে তরতর করে উপরে উঠে যেতে হয়, জানে। মর্গ্যানের দাবি, তিনিই হ্যারির সঙ্গে মেগানের আলাপের ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন। কিন্তু আলাপ হয়ে গেলে মেগান তাঁর দরজা পুরো বন্ধ করে দেন মর্গ্যানের জন্য। মেগান নাকি ইতিমধ্যেই রাজপরিবারে তাঁর জনপ্রিয়তা হারিয়েছেন বলে দাবি করছেন এই ব্রডকাস্টার। তাঁর মেজাজ, রুক্ষ আচরণ, লোকজনের উপর ছড়ি ঘোরানোর প্রবণতার ফলে ইতিমধ্যেই কাজ ছেড়েছেন মেগানের সহকারী মেলিসা টুবাটি। মর্গ্যানের কথায়, উচ্চাকাঙ্খী মেগান নিজেকে অতি মাত্রায় গুরুত্ব দেন। রাজপরিবারে বিয়ে হওয়ার পরে তাঁর স্বপ্ন সফল হয়েছে। এ বারে এই ভূমিকায় থেকে তিনি যতটা পারেন আদায় করে ছাড়বেন।

এ কথা ঠিক যে মাত্র ছয় মাস মেগানের সঙ্গে কাজ করে চাকরি ছেড়েছেন সেলিব্রিটি অ্যাসিস্ট্যান্ট মেলিসা। তিনি নাকি কান্নাকাটিও করেছেন মেগানের মেজাজ সামলাতে না পেরে।

তবে পিয়ার্স মর্গ্যানের এই সব কথায় নেটিজেনদের বড় অংশই বেশ ক্ষুব্ধ। তাঁদের মতে, বিয়েতে আমন্ত্রিত না হওয়ায় চটে গিয়ে এই সব বলছেন মর্গ্যান। তা ছাড়া, মোটেই মেগান অত কিছু ঘনিষ্ঠ ছিলেন না তাঁর সঙ্গে।

মাত্র দুদিন আগেই প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার নামে নিন্দা করে একটি লেখা লিখেছিলেন দ্য কাট ম্যাগাজিনের সাংবাদিক মারিয়া স্মিথ। প্রিয়াঙ্কাকে গ্লোবাল স্ক্যাম আর্টিস্ট নাম দিয়ে মারিয়া লিখেছিলেন, নিক জোনাসের সঙ্গে প্রিয়াঙ্কার সম্পর্কটা পুরো ভুয়ো। এতে সোশ্যাল মিডিয়ায় লোকজন ক্ষোভ প্রকাশ করায় ওই আর্টিকেলটি তুলে নিয়েছে দ্য কাট কর্তৃপক্ষ। এর পরেই মেগানকে নিয়ে মর্গ্যানের এই বিষোদ্গার।

 

Shares

Comments are closed.