#Breaking: পাকিস্তানকে জল দেওয়া বন্ধ করে দেবে ভারত: গড়কড়ি

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    দ্য ওয়াল ব্যুরো: পুলওয়ামা কাণ্ডের পর পাকিস্তানকে অর্থনৈতিকভাবে ধাক্কা দিতে ইতিমধ্যে পদক্ষেপ নিয়েছে নয়াদিল্লি। গত বৃহস্পতিবার শ্রীনগর-জম্মু জাতীয় সড়কের উপর ওই হামলার ঘটনার পর দিনই পাকিস্তানকে দেওয়া ‘মোস্ট ফেবারড নেশন’ তকমা প্রত্যাহার করে নিয়েছে নয়াদিল্লি। সেই সঙ্গে পাকিস্তান থেকে আমদানি করা পণ্যের উপর ২০০ শতাংশ বহিঃশুল্ক চাপানো হয়েছে। এ বার পাকিস্তানকে জল দেওয়া বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিল নয়াদিল্লি।

    শতদ্রু, বিয়াস ও রাভি নদীর জল ব্যবহার করার পর যে পরিমাণ উদ্বৃত্ত থাকে তা পাকিস্তানকে দেয় ভারত। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় জলসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী নীতিন গড়কড়ি জানান, সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পূর্বের নদীগুলি থেকে পাকিস্তানকে যে জল সরবরাহ করা হয়, তা বন্ধ করে দেওয়া হবে। ওই জল জম্মু কাশ্মীরের মানুষ যাতে পায় সেই ব্যবস্থা করা হবে।

    দ্বিতীয় একটি টুইট করে গড়কড়ি জানিয়েছেন, শাহপুর-কাণ্ডি এলাকায় রাভি নদীর উপর একটি জলাধার তৈরির কাজ চলছে। এছাড়াও ইউজেএইচ প্রকল্পের আওতায় তৈরি জলাধারে জল জমা করে রাখা হবে। বাকি জল দ্বিতীয় রাভি-বিয়াস লিঙ্কের মাধ্যমে দেশের অন্য এলাকায় পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

    এই প্রসঙ্গে জলসম্পদ মন্ত্রকের এক সিনিয়র অফিসার নীতা প্রসাদ জানিয়েছেন, “নীতিন গড়কড়ি বলতে চেয়েছেন, ভারতের অংশের জল দেশের মধ্যেই অন্য অঞ্চলে পাঠিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এর ফলে পাকিস্তান সেই জল পাবে না। উরির সেনা ছাউনিতে জঙ্গি হামলার পর থেকেই জলসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী এই কথা বলে আসছেন।”

    প্রসঙ্গত, ১৯৬০ সালে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে এই ‘ইন্দাস ওয়াটার ট্রিটি’ স্বাক্ষর করা হয়। এই চুক্তির মাধ্যমে সিন্ধু ও তার পাঁচ উপনদীর মধ্যে তিনটি উপনদী অর্থাৎ শতদ্রু, বিয়াস ও রাভি নদীর উপর ভারতের অধিকার ও বাকি তিনটি অর্থাৎ সিন্ধু, ঝিলাম ও চেনাব নদীর উপর পাকিস্তানের অধিকার বলবৎ হয়।

    সিন্ধু ও তার উপনদী মিলিয়ে উপত্যকার আয়তন ১৬৮ মিলিয়ন একর-ফুট। তারমধ্যে মাত্র ৩৩ মিলিয়ন একর-ফুট এলাকার উপর ভারতের অধিকার আছে। অর্থাৎ পুরো নদী উপত্যকার মাত্র ২০ শতাংশ এলাকা ভারতের অধীনে। শতদ্র, বিয়াস ও রাভি নদীর ৯৩-৯৪ শতাংশ জল ভারত ব্যবহার করে থাকে। বাকি জল পাকিস্তানে চলে যায়। এই জলের উপরেই এ বার নিষেধাজ্ঞা হতে চলেছে।

    তবে এই জল বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল ২০১৬ সালে উরির সেনা ছাউনিতে হামলার পরে। সেই হামলার পরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, ‘রক্ত ও জল কখনওই একসঙ্গে বইতে পারে না’। তারপরেই ইন্দাস ওয়াটার কমিশন নিয়ে পাকিস্তানের সঙ্গে সব আলোচনা বন্ধ করে দেওয়া হয়।

    সেইসঙ্গে ভারতের উদ্‌বৃত্ত জল বন্ধ করার জন্য তিনটি প্রকল্প ঘোষণা করা হয়। এই প্রকল্পগুলি হলো, শাহপুর-কাণ্ডি এলাকায় রাভি নদীর উপর একটি জলাধার তৈরি, দ্বিতীয় রাভি-বিয়াস লিঙ্ক তৈরি এবং জম্মু-কাশ্মীরে ইউজেএইচ প্রকল্পের আওতায় একটি জলাধার তৈরি করা। ২০১৬ সালে শুরু হওয়া এই তিনটি প্রকল্পের কাজ যত দ্রুত সম্ভব শেষ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তারপরেই ভারতের উদ্‌বৃত্ত জল পাকিস্তানে যাওয়া বন্ধ করে দেবে মোদী সরকার।

    আরও পড়ুন

    লস্কর জঙ্গি নেতা হাফিজ সঈদের সংগঠন জামাত উদ দাওয়াকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করল পাকিস্তান

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More