রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৫

ইমোজিতে বস্-কে ‘OK’ রিপ্লাই দিয়ে চাকরি খোয়ালেন মহিলা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অফিস গ্রুপে বস্-কে ইমোজিতে ‘ok’ রিপ্লাই করে চাকরি খোয়াতে হল এক মহিলাকে! বসের এহেন আচরণে সমালোচনার ঝড় উঠল সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে।  না এখনও আপনার ঘাবড়ানোর সময় আসেনি।  ঘটনা এদেশের নয়, চিনের।

‘সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট’-এ এই খবর বেরিয়েছে।  হুনানের ছাঙসা প্রদেশের একটি বারে কাজ করতেন এই মহিলা।  তাঁকে অফিসের ম্যানেজার ‘উই চ্যাট’ গ্রুপে বাকি সকলের মতো অ্যাডও করে নেন।  গত সপ্তাহে সেখানেই তাঁকে তাঁর বস্ অফিশিয়াল মিটিঙের একটি ডকুমেন্ট পাঠাতে বলেন।  আর তাতেই সেই মহিলা একটি ‘ok’ ইমোজি দেন।  এতে বসের ইগো এতটাই ধাক্কা খেয়েছে, যে সেই মহিলাকে চাকরি খোয়াতে হল! এমনকি এই ঘটনার পরে সেই অফিশিয়াল গ্রুপে পরিষ্কার করে ওই বস্ জানিয়েও দিয়েছেন, অফিসের কোনও মেসেজের পরে অন্তত ‘roger’ অর্থাৎ ‘আচ্ছা’ লিখতেই হবে।

চাকরি হারানো মহিলা গ্রুপে ‘ok’ লেখার পরেই, তাঁকে বস্ গ্রুপেই লেখেন, মেসেজ টাইপ করেই উত্তর দেওয়া উচিত ছিল তাঁর।  সঙ্গে প্রশ্নও করা হয়, তিনি সোশ্যাল নেটওয়ার্কে কী ভাবে অফিসকে উত্তর দিতে হয় সেটা কি জানেন না? আর এই মেসেজগুলো আসার কিছুক্ষণের মধ্যেই মহিলাকে ওই গ্রুপেই নির্দেশ দেওয়া হয় যাতে এইচ আর ডিপার্টমেন্টে গিয়ে তিনি তাঁর পাওনা গণ্ডা বুঝে নেন এবং রেজ়িগনেশন পেপার জমা দিয়ে আসেন!

ঘটনার রেশ এখনও কাটেনি ভুক্তভোগী মহিলার।  তিনি বলছেন, এর আগেও অনেক জায়গায় কাজ করেছেন তিনি, কিন্তু এমন বিশ্রী অভিজ্ঞতার সম্মুখীন কখনওই হতে হয়নি তাঁকে।  তবুও এই ঘটনায় তিনি নিজেকে শান্ত রেখেছেন বলেই জানিয়েছেন।  তাঁর সমস্ত বন্ধু এবং সহকর্মীরাই এক্ষেত্রে বিরক্ত এবং তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছেন।  ইতিমধ্যেই ওই কথোপকথন মাইক্রোব্লগিং সাইট ‘weibo’ তে ভাইরাল হয়েছে।  বহু মানুষ তাতে ওই বস্-কে একপ্রকার তুলোধোনাই করেছেন দেখা গেছে।  তবে কেউ কেউ আবার বলেছেন, এমন তো হতেই পারে।  বস্ বলে কথা।  তাঁর তো ইগো থাকবেই।  তাঁর পছন্দ না হলে যে কাউকেই যে কোনও কারণ দেখিয়েই তিনি অফিস থেকে বের করে দিতে পারেন! আবার অনেকে বলছেন, ভালো বস্ নয়, ভালো লিডার হতে হবে।  আর যাঁরা ভালো লিডার হন, তাঁরা সবরকম মানুষের চিন্তা, ভাবনা, দর্শন সবকিছু নিয়েই একসাথে এগিয়ে চলতে পারেন, তাতে কোম্পানিও ভালো চলে।

এই মাসের শুরুতেই চিনের একটি দৈনিকে এমনই আরও একটা খবর সামনে আসে।  যেখানে বলা হয়, একটি কোম্পানিতে ‘উই চ্যাট’-এ একজন কর্মী ‘um’ লিখে রিপ্লাই দেওয়ায় প্রচণ্ড ভর্ৎসনার শিকার হন।  এবং পরিষ্কার জানিয়ে দেওয়া হয় ন্যূনতম সহবত জানলে কেউ এই রিপ্লাই যাতে আর না দেন।  ‘um’ এর অর্থ ‘noted’!

অতএব অফিসকে যতই বলুন ‘second home’, সাধু সাবধান।  বলা তো যায় না, ইতিহাসের চৈনিক পরিব্রাজকের মতো এদেশে এসব নিয়মও গুটিগুটি পায়ে এসে উপস্থিত হলে চাকরি খোয়া যেতে পারে তো! তার চেয়ে আগে থাকতেই অভ্যাস বদলানোর কথা ভাবুন, বসের ইগো মাথায় রেখে তাঁর সঙ্গে ব্যবহার করুন, মেসেজে রিপ্লাই করুন।  নইলে আপনি অপছন্দের পাত্রী হলে এই কারণেও খোয়াতে হতে পারে চাকরি।

Comments are closed.