ফেসবুক বিজ্ঞাপনে বিপুল খরচ বিজেপির, অনেক পিছিয়ে কংগ্রেস

সম্প্রতি বিজেপি ও ফেসবুকের মধ্যে সম্পর্ক নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। নানা চাপানউতোরের মধ্যে শশী থারুরের নেতৃত্বাধীন সংসদীয় কমিটির সামনে আগামী ২ সেপ্টেম্বর হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ফেসবুকের প্রতিনিধিকে। আর তার আগেই সামনে এল এই তথ্য।

২৪

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দেশের তো বটেই নিজেদের বিশ্বের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল বলে দাবি করে বিজেপি। আর ধনী দল হিসেবেও যে বিজেপি এক নম্বরে তা অনেক আগেই সামনে এসেছে। এবার জানা গেল, শুধু ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেওয়ার ক্ষেত্রেও এক নম্বরে বিজেপি। গত ১৮ মাসে বিজেপি এই বাবদ খরচ করেছে ৪.৬১ কোটি টাকা। সেখানে ১.৮৪ কোটি টাকা খরচ করে অনেকটাই পিছনে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম রাজনৈতিক শক্তির দল কংগ্রেস।

আরও পড়ুন

করোনার কোপে কেন পুরুষরাই বেশি, নেশা না অন্যকিছু, বিজ্ঞানীরা জানালেন সম্ভাব্য কারণ

সম্প্রতি বিজেপি ও ফেসবুকের মধ্যে সম্পর্ক নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। নানা চাপানউতোরের মধ্যে শশী থারুরের নেতৃত্বাধীন সংসদীয় কমিটির সামনে আগামী ২ সেপ্টেম্বর হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ফেসবুকের প্রতিনিধিকে। আর তার আগেই সামনে এল এই তথ্য।

সোশাল মিডিয়া ট্র্যাকার থেকে গত ২৪ অগস্ট পর্যন্ত যে হিসেব পাওয়া গিয়েছে তাতে গত ১৮ মাসে দেশের সব রাজনৈতিক দলের তুলনায় বিজেপি ফেসবুক বিজ্ঞাপনে সবচেয়ে বেশি খরচ করেছে। ‘সামাজিক ইস্যু, নির্বাচন এবং রাজনীতি’ এই ক্যাটাগরিতে বিজেপি এই সময়ে মোট খরচ করেছে ৪.৬১ কোটি টাকা। ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে অগস্ট পর্যন্ত এই খাতে কংগ্রেসের খরচের পরিমাণ ১.৮৪ কোটি টাকা।

ফেসবুকে সবচেয়ে বেশি যাঁরা বিজ্ঞাপন দেন তাঁদের মধ্যে চার জন বিজ্ঞাপনদাতা বিজেপির সঙ্গে যুক্ত। এঁদের মধ্যে আবার তিনজনের ঠিকানাই দিল্লিতে বিজেপির জাতীয় সদর দফতর। এই তিনজনের মধ্যে মধ্যে দু’জন ‘মাই ফার্স্ট ভোট ফর মোদী’ এবং ‘ভারত কে মন কি বাত’ নামে দু’টি পেজ চালান। দু’টি পেজে বিজ্ঞাপন বাবদ খরচ যথাক্রমে ১.৩৯ কোটি টাকা ও ২.২৪ কোটি টাকা।

‘নেশন উইথ নমো’ নামে যে মিডিয়া ওয়েবসাইট এবং পেজ চালানো হয় তা থেকেও প্রচুর বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছে গত ১৮ মাসে। ওয়েবাসইটটি খরচ করেছে ১.২৮ কোটি টাকা এবং ফেসবুক পেজটি ০.৬৫ কোটি টাকা। এই বিজ্ঞাপন দিয়েছেন বিজেপি নেতা তথা প্রাক্তন সাংসদ আর কে সিং। তিনি একটি সিকিউরিটি ও ইন্টেলিজেন্স সার্ভিস সংস্থার মালিক।

সরাসরি বিজেপির বিজ্ঞাপন ছাড়া‌ও যদি এই সব পেজের খরচও যুক্ত করা হয় তবে পদ্ম শিবিরের ফেসবুক বিজ্ঞাপনে মোট খরচ ১০.১৭ কোটি টাকা। যেটা দেশের বাকি রাজনৈতিক দলের ‌মিলিত খরচের থেকে ৬৪ শতাংশের বেশি। তবে এত বিপুল খরচের পিছনে একটি কারণও রয়েছে। যে সময়ের হিসেব দেওয়া হয়েছে তার মধ্যে ২০১৯ সালের এপ্রিল-মে মাসে হওয়া লোকসভা নির্বাচনের প্রচার পর্ব রয়েছে। উল্লেখ্য, গত সাধারণ নির্বাচনের প্রচারে বিজেপি সোশ্যাল মিডিয়ার উপরে অনেকটাই নির্ভর করে।

তবে ‘মাই ফার্স্ট ভোট ফর মোদী’, ‘ভারত কে মন কি বাত’, ‘নেশন উইথ নমো’ এই তিনটি ফেসবুক পেজ থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং বিজেপি সম্পর্কিত নানা বিষয়ের প্রচার করা হলেও বিজ্ঞাপন দেওয়ার ক্ষেত্রে কেউই বিজেপি যোগের কথা উল্লেখ করেনি। যদিও বিজ্ঞাপন দাতা হিসেবে তিনটি পেজেরই যে ঠিকানা ব্যবহার করা হয়েছে তা নয়াদিল্লির পণ্ডিত দীনদয়াল উপাধ্যায় মার্গের বিজেপি সদর কার্যালয়।

যে তথ্য পাওয়া গিয়েছে তাতে, ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ থেকে অগস্ট, ২০২০ পর্যন্ত ভারতে ফেসবুকে বিজ্ঞাপন বাবদ মোট ব্যয় হয়েছে ৫৯.৬৫ কোটি টাকা। শুধু ফেসবুকেই নয়, বিজ্ঞাপন বাবদ খরচ হয়েছে ফেসবুকের অন্যান্য সংস্থা ফেসবুক মেসেঞ্জার্স, ইনস্টাগ্রামের মতো সোশাল মিডিয়াতেও।

ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেওয়ার ক্ষেত্রে প্রথম দশের মধ্যে রয়েছে দিল্লির শাসক আম আদমি পার্টিও। অরবিন্দ কেজরিওয়ালের দল গত ১৮ মাসে এই বাবদ ব্যয় করেছে ৬৯ লাখ টাকা। প্রথম দশে থাকা বাকিদের মধ্যে এক কোটি টাকার বেশি খরচ করেছে নিউজ প্লাটফর্ম ডেইলিহান্ট। ই-কমার্স সংস্থা ফ্লিপকার্টের একই সময়ে খরচ ৮৬.৪৩ লাখ টাকা।

উল্লেখ্য, কয়েক দিন আগে মার্কিন সংবাদপত্র ওয়াল স্ট্রিট জানায়, ব্যবসায়িক লাভের কথা মাথায় রেখে এক বিজেপি নেতার ঘৃণা ছড়ানোর বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেয়নি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। এই রিপোর্টকে সামনে রেখে বিজেপি ও আরএসএসের বিরুদ্ধে আক্রমণ হানেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। বলেন, ভারতে ফেসবুক-হোয়াটসঅ্যাপকে নিয়ন্ত্রণ করছে বিজেপি ও আরএসএস। বিজেপির তরফে এই অভিযোগকে খারিজ করা হয়। এই বিতর্কের মাঝে মুখ খোলে ফেসবুকও। মার্ক জুকেরবার্গের সংস্থার পক্ষে জানানো হয়, তারা স্বচ্ছ, কোনও দল না দেখে তারা। এই সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে মত প্রকাশের স্বাধীনতা সবার রয়েছে। কিন্তু কেউ ঘৃণা ছড়ালে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থাও নেওয়া হয়।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More