শনিবার, ডিসেম্বর ১৪
TheWall
TheWall

প্রকাশের অপেক্ষায় জয়প্রকাশের নাম, তিন কেন্দ্রের উপনির্বাচনের প্রার্থী বাছাইয়ে তৎপর বিজেপি

দ্য‌ ওয়াল ব্যুরো: নির্বাচন কমিশন উপনির্বাচনের দিনক্ষণ জানিয়ে দিয়েছে। শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস এখনও প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেনি। তারই মধ্যে প্রায় চূড়ান্ত বিজেপির দুই প্রার্থীর নাম। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে করিমপুরে প্রার্থী হচ্ছেন কংগ্রেস থেকে বিজেপিতে আসা জয়প্রকাশ মজুমদার। অন্য দিকে, খড়্গপুর সদরে প্রার্থী হবেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ প্রেমচাঁদ ঝা। তৃতীয় কেন্দ্র কালিয়াগঞ্জ আসনে স্থানীয় কাউকে প্রার্থী করা হবে বলে প্রাথমিক ভাবে ঠিক হলেও এখন বাইরের কোনও প্রার্থীর খোঁজ করছে বিজেপি। তবে সূত্রের খবর, শাসকদল প্রার্থীর নাম ঘোষণা করলে তার পরেই ওই কেন্দ্রের প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত হবে। তবে করিমপুর ও খড়্গপুর সদরের প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছে। এখন শুধু অপেক্ষা কেন্দ্রীয় কমিটির সিলমোহর।

আগামী ২৫ নভেম্বর পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভার ৩ আসনে উপনির্বাচন হবে। নদিয়ার করিমগঞ্জ কেন্দ্র ও পশ্চিম মেদিনীপুরের খড়্গপুর সদর কেন্দ্রের বিধায়ক যথাক্রমে তৃণমূল কংগ্রেসের মহুয়া মৈত্র এবং রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ সাংসদ হয়েছেন। এই কারণেই ওই দুই কেন্দ্রে উপনির্বাচন হবে। এছাড়াও কংগ্রেস বিধায়ক প্রমথনাথ রায়ের মৃত্যুতে কালিয়াগঞ্জ আসনটি শূন্য হয়েছে।

বিজেপির প্রার্থী ঠিক করতে গত শনিবার বৈঠকে বসে রাজ্য বিজেপির নির্বাচনী কমিটি। সেখানে রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষই জয়প্রকাশ মজুমদারকে করিমপুর থেকে প্রার্থী করার প্রস্তাব দেন। এনিয়ে দলের অন্য কোনও নেতা কোনও নাম দেয়নি বলে জানা গিয়েছে। গত বিধানসভা নির্বাচনে এই কেন্দ্র থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের মহুয়া মৈত্র জিতেছিলেন। এবার সেখানে জোর লড়াই দিতে চায় বিজেপি। সেই কারণেই রাজ্য রাজনীতিতে পরিচিত মুখ জয়প্রকাশ মজুমদারকে প্রার্থী করাই সমীচীন হবে বলে মনে করছে গেরুয়া শিবির।

অন্য দিকে, খড়গপুর সদর কেন্দ্রের প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত হয়েছে খড়গপুর শহর বিজেপির সভাপতি প্রেমচাঁদ ঝা-এর নাম। দিলীপ ঘোষের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ প্রেমচাঁদ ঝা দীর্ঘদিনের বিজেপি কর্মী। গত বিধানসভা নির্বাচনে এই কেন্দ্র থেকে দিলীপ ঘোষের জয় নিশ্চিত করার ব্যপারে বড় ভূমিকা ছিল প্রেমচাঁদের। এর পরে লোকসভা নির্বাচনেও দিলীপ ঘোষের প্রচারে সব থেকে বেশি করে তাঁকেই দেখা গিয়েছিল। জেলার বিজেপি কর্মীদের মধ্যেও তাঁর গ্রহণযোগ্যতা খুবই বেশি। গত বিধানসভা নির্বাচনে জেতা এবং লোকসভা ভোটেও অনেক এগিয়ে থাকা রেল শহরের ভোটে বিজেপি এবারেও জয় ধরে রাখতে পারবে বলে আশা গেরুয়া শিবিরের।

করিমগঞ্জের প্রার্থী বাছাই নিয়েও এবার জোর তৎপরতা বিজেপিতে। দায়িত্বে খোদ দলের রাজ্য সংগঠন সম্পাদক সুব্রত চট্টোপাধ্যায়। ইতিমধ্যেই তিনি দলের বিভিন্ন স্তরের কার্যকর্তাদের সঙ্গে এনিয়ে কথা বলেছেন। ওই বিধানসভা কেন্দ্রের অন্তর্ভূক্ত বিভিন্ন মণ্ডলের নেতাদের সঙ্গে আলাদা আলাদা করে কথা বলা হয়েছে। সীমান্তবর্তী ওই কেন্দ্রে পাটিগণিতের হিসেবে অনেকটাই পিছিয়ে বিজেপি। তবুও প্রার্থী বাছাইয়ে গুরুত্ব দিচ্ছে বিজেপি। গেরুয়া শিবিরের দাবি, ভালো প্রার্থী হলে ওই কেন্দ্রেও তাদের জয় পাকা। সূত্রের খবর, ওই কেন্দ্রের প্রার্থীর নাম ঘোষণা নিয়ে এখন তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে তাকিয়ে রয়েছে রাজ্য বিজেপি। মনে করা হচ্ছে দু-এক দিনের মধ্যে প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করে দেবেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সেটা হয়ে গেলেই করিমগঞ্জের প্রার্থী চূড়ান্ত হবে।

Comments are closed.