অমিত শাহর ভার্চুয়াল জনসভার শুরুতেই গন্তব্য বাংলা, সমাবেশের নতুন ঘরানার পথে বিজেপি

আগামী ৯ জুন রাজ্যে প্রথম ভার্চুয়াল জন সমাবেশ করবে সর্বভারতীয় বিজেপি। তাতে প্রধান বক্তা দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    পিনাকপাণি ঘোষ

    রাজনৈতিক প্রচার ও জনসংযোগে প্রযুক্তির ব্যবহারে বরাবরই অন্যদের তুলনায় দু’কদম এগিয়ে রয়েছে বিজেপি। সৌজন্যে বিজেপির প্রয়াত নেতা প্রমোদ মহাজন। পরে মোদী-অমিত শাহ জুটি সেটি পেশাদারিত্বের স্তরে নিয়ে গিয়েছেন। চোদ্দর ভোটে থ্রি ডি স্ক্রিনে প্রচার করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন নতুন প্রজন্মকে।

    আর এখন, সোশাল ডিস্টেন্সিং যখন দস্তুর হয়ে উঠেছে, দেশে প্রথম ভার্চুয়াল রাজনৈতিক জনসভা করতে চলেছেন প্রাক্তন বিজেপি সভাপতি তথা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। শুরু বিহারে। ৭ জুন। তারপর এক দিন বাদ দিয়েই বাংলায়।

    আগামী ৯ জুন রাজ্যে প্রথম ভার্চুয়াল জন সমাবেশ করবে সর্বভারতীয় বিজেপি। তাতে প্রধান বক্তা দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দিলীপবাবুর কথায়, “করোনা মোকাবিলায় বিশ্বকে পথ দেখাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। নতুন পরিস্থিতিতে ভার্চুয়াল জন সমাবেশ কী করে সম্ভব তাও এ বার দেশকে দেখাবে বিজেপি।”

    আরও পড়ুন

    মমতার ইচ্ছাপূরণ হবে : অমিত শাহ

    কীভাবে এই সমাবেশ হবে তা বুঝিয়ে বললেন রাজ্য বিজেপির সংগঠন সম্পাদক সুব্রত চট্টোপাধ্যায়। তিনি জানান, ‘ওয়েবেক্স মিট’ অ্যাপের মাধ্যমে হবে এই জনসভা। দিল্লিতে কেন্দ্রীয় অফিসে থাকবে একটি মঞ্চ আর কলকাতায় রাজ্য সদর দফতরে থাকবে একটি মঞ্চ। দুই মঞ্চে থাকবেন দুই বক্তা অমিত শাহ এবং দিলীপ ঘোষ। এই অ্যাপের মাধ্যমে এক সঙ্গে এক হাজার মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়। রাজ্য বিজেপি ইতিমধ্যেই সেই হাজার জন নেতা কর্মী বেছে ফেলেছে। তাঁরা সরাসরি ওই সভায় যোগ দেবেন। একই সঙ্গে বিজেপির সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা হবে সমাবেশ। ফেসবুক, ইউটিউবের মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ কর্মী, সমর্থক, সাধারণ মানুষ অংশ নিতে পারবেন এই সমাবেশ।

    বিজেপির সর্বভারতীয় নেতৃত্বে একদা এ ধরনের অ্যাডভেঞ্চারিজম ছিল প্রমোদ মহাজনের। দলের ন্যাশনাল এক্সিকিউটিভ কমিটির বৈঠক, জাতীয় পরিষদের বৈঠকে মিডিয়ার সুবিধার জন্য সবরকম প্রযুক্তিগত ব্যবস্থা রাখতেন তিনি। দলের ২৫ বছর পূর্তি মুম্বইয়ের শিবাজি ময়দানে তাঁর পৌরোহিত্যে যে মঞ্চ বাঁধা হয়েছিল, তাও বিজেপির ইতিহাসে মাইলফলক হয়ে রয়েছে। পদ্মের পাপড়ি খুলে তাঁর মধ্যে থেকে বেরিয়ে এসেছিলেন অটলবিহারী বাজপেয়ী। সেই ট্রাডিশন এখন বজায় রেখেছেন মোদী-শাহ।

    রাজ্য বিজেপির এক নেতার কথায়, দলের সাংগঠনিক পরিভাষায় গোটা রাজ্যে ১৩০০ মণ্ডল রয়েছে। তার মধ্যে অন্তত ৭০০ মণ্ডলে দলের কার্যালয় রয়েছে। সেখানে সামাজিক দূরত্ব রেখে বড় স্ক্রিনে ওই সমাবেশ দেখানো হবে। তা ছাড়া ৭০ হাজার বুথে বিজেপির বুথ কর্মীরা রয়েছে। তাঁরা তাঁদের বাড়িতে পড়শিদের ডেকে দেখাবেন বা বুথের অধিবাসীদের তা দেখতে উৎসাহিত করবেন। সব মিলিয়ে খুব কম করে বিশ লক্ষ মানুষ সরসারি সমাবেশ দেখবেন বলে মনে করা হচ্ছে। তা ছাড়া বৈদ্যুতিন চ্যানেলে লাইভ ফিড যাবে। তার মাধ্যমেও বহু লক্ষ মানুষ সভা সরাসরি দেখতে পাবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

    সুব্রত চট্টোপাধ্যায় বলেন, “বর্তমান সময়ের কথা ভেবেই এই পথ নেওয়া হয়েছে। এটা একটা ঐতিহাসিক সমবাবেশ হবে। এটা শুরু। এর পরে এই ভাবেই আরও সমাবেশ হবে।” তিনি আরও জানিয়েছেন, এই সমাবেশে যোগ দেওয়ার জন্য যে এক হাজার জনকে এই পর্যায়ে বাছা হয়েছে তাঁদের কাছে ৯ জুন বেলা ১১টায় সভা শুরুর ১৫ মিনিট আগে পৌঁছে যাবে একটি লিঙ্ক। আর তা ব্যবহার করেই সভায় যোগ দেওয়া যাবে। সরাসরি যোগ দেওয়া এক হাজার জনকে চাইলে দেখতেও পারবেন অমিত শাহ, দিলীপ ঘোষ। ভার্চুয়াল এই জনসভার জন্য প্রচারও হচ্ছে সেই পথে। হোর্ডিং, পোস্টার নয়, সোশ্যাল মিডিয়ার মধ্য দিয়েই সমাবেশে যোগ দেওয়ার আবেদন পাঠাচ্ছে রাজ্য বিজেপি।

    রাজ্যে পুরসভা ভোট কবে হবে তা এখনও নিশ্চিত নয়। তা নিয়ে খুব একটা মাথাব্যাথাও নেই রাজ্য বিজেপি নেতাদের। বরং, বছর ঘুরলেই বিধানসভা নির্বাচন। আর তার জন্য এখন থেকেই ঘর গোছানো শুরু করেছে বিজেপি। রাজ্যের কোর কমিটি নতুন করে সাজানো হয়েছে। সেই সঙ্গে ক’দিন আগেই এক সংবাদমাধ্যমকে অমিত শাহ বলেন, “বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাধ পূর্ণ হবে। একুশের ভোটে বাংলায় সরকার গড়বে বিজেপি। মিলিয়ে নেবেন।” তবে এই প্রথম নয়, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি থাকার সময় থেকেই অমিত শাহ বলে আসছেন, “একুশ সালে বাংলায় দুই তৃতীয়াংশ গরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গড়বে বিজেপি।”

    এবার সেই লক্ষ্যেই লকডাউনের মধ্যেই ভার্চুয়াল সমাবেশ শুরু করে দিচ্ছে বিজেপি। বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রথম সমাবেশে অমিত শাহ থাকলেও এর পরে সভাপতি জগৎপ্রকাশ নাড্ডা একই পথে আরও একটি সমাবেশ করবেন খুব তাড়াতাড়ি। তবে এখনই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই র‌কম সমাবেশ করবেন কিনা জানা যায়নি।

    ক’দিন আগেই দ্বিতীয় নরেন্দ্র মোদী সরকারের এক বছর পূর্ণ হয়েছে। মনে করা হচ্ছে, ৯ জুনের সমাবেশে বিগত ছ’বছরে মোদী সরকারের সাফল্যই তুলে ধরবেন ‌অমিত শাহ। একই সঙ্গে করোনা মোকাবিলা, আর্থিক প্যাকেজ ইত্যাদির কথা বলতে পারেন শাহ। এর পাশাপাশি উমফান বিপর্যয় মোকাবিলা থেকে পরিযায়ী শ্রমিক ফেরানো, রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা, স্বাস্থ্য পরিষেবা, শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যর্থতার দিকগুলি তুলে ধরতে পারেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

    প্রথম ভার্চুয়াল জনসভা নিয়ে এখন চূড়ান্ত ব্যস্ততা রাজ্য বিজেপিতে। গোটা বিষয়টিতে যাতে কোনও ত্রুটি না থাকে সেটা ঠিক করতে একাধিক বার মহড়াও দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More