শনিবার, মে ২৫

গোর্খার হয়ে নয়, নির্দল প্রার্থী হিসেবে লড়তে পারবেন বিমল গুরুং, বিনয় তামাং

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আসন্ন দার্জিলিং বিধানসভার উপনির্বাচনে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার নাম করে নির্বাচনে লড়তে পারবেন না কেউই। গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার প্রকৃত দাবিদার কে, তা নিয়ে বিনয় তামাং ও বিমল গুরুং অনুগামীদের দায়ের করা মামলার পরিপ্রেক্ষিতে এবং নির্বাচন কমিশনের দায়ের করা আপিলের ভিত্তিতে এ দিন এই অন্তর্বর্তিকালীন রায় দেন জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চের বিচারপতি শুভ্রা ঘোষ ও সঞ্জীব ব্যানার্জির ডিভিশন বেঞ্চ। জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চের অ্যাডিশনাল পাবলিক প্রসিকিউটর অদিতিশঙ্কর চক্রবর্তী বলেন, “বিমল গুরুং ও বিনয় তামাং দু’‌পক্ষই নির্দল হিসেবে লড়াই করতে পারবে।”

এই নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে মূল মামলাটি দায়ের করেছিলেন মোর্চা নেতা অনিত থাপা। হাইকোর্টের বিচারপতি দেবাংশু বসাক রায় দিয়েছিলেন, গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা দলের অধিকারী কে হবে তা নির্ধারণ করবে নির্বাচন কমিশন।

সেই রায়ের পরিপ্রেক্ষিতেই কলকাতা হাইকোর্টের জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চের ডিভিশন বেঞ্চে অ্যাপিল করে নির্বাচন কমিশন। তাতে বিচারপতিরা রায় দেন, আপাতত নির্দল হিসেবেই লড়াই করতে হবে দু’‌পক্ষকে। প্রতীকের জন্য নির্বাচন কমিশনের কাছে দু’‌পক্ষই আবেদন করতে পারবে।

মামলায় কমিশনের পক্ষ থেকে আইনজীবী হিসেবে ছিলেন জয়দীপ কর। বিনয় তামাংয়ের হয়ে মামলাটি লড়েন জয় সাহা।

এই রায়ের পরে সন্তোষই প্রকাশ করেছেন মোর্চা নেতা বিনয় তামাং। তিনি বলেন, “রায়ে আমরা খুশি। নির্বাচনে লড়ার ক্ষেত্রে কোনও সমস্যা নেই আমাদের।” তবে রায় নিয়ে আইনজীবী মহলের ব্যাখা, এই রায় ভারসাম্যের রায়। মোর্চার প্রকৃত দাবিদার কে, সেই প্রশ্নের মীমাংসা এখনও হয়নি। আপাতত দুই গোষ্ঠীই নিজেদের নাম ব্যবহার করে প্রচার চালাতে পারবে।

Shares

Comments are closed.