বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৯

বিজেপির অস্ত্রে বিজেপি বধ, এবার সরকার গড়ার দাবি বিহার-গোয়ায়

দ্য ওয়াল ব্যুরো : বিজেপি-র বানেই এ বার তাদের বধ করতে চাইছে্ন রাহুল গান্ধী।

কর্নাটকে সব থেকে বেশি আসন পেলেও নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি বিজেপি। বরং নির্বাচনের পর জোট গড়ে ম্যাজিক ফিগারে পৌঁছে গিয়েছিল কংগ্রেস আর জনতা দল (সেকুলার)। কিন্তু তারপরও বিধানসভায় সব থেকে বেশি আসন পাওয়া বিজেপিকেই সরকার গড়তে ডাকেন রাজ্যপাল।

এইবার সেই একই যুক্তিতে সরকার গড়তে চায় গোয়া বিধানসভার একক বৃহত্তম দল কংগ্রেস। এই দাবিতে সায় আছে বিহারের আরজেডিরও। বিহার বিধানসভায় সব থেকে বেশি আসন নিয়ে তারাই বা কেন বসবেন বিরোধীদের বেঞ্চে?

২০১৭ সালে গোয়া বিধানসভার ৪০ টা আসনের মধ্যে ২১টা আসন জিতেছিল কংগ্রেস। কিন্তু তারপরও তারা সরকার গড়তে পারেনি। বদলে সরকার গড়েছে নির্বাচন শেষ হওয়ার পরে তৈরি হওয়া বিজেপির জোট।

বিহারেও ২০১৬ সালের বিধানসভা ভোটেও ২৪৩টা আসনে মধ্যে ৮০টা জেতে লালু প্রসাদের আরজেডি। তাদের সরকার গড়ার দাবী নাকচ করে দিয়ে সেখানেও নীতিশ কুমারের নেতৃত্বে বিজেপি-জনতা দল (ইউনাইটেড) –এর জোট সরকার গঠন করে।

কিন্তু কর্নাটকে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেয়েও, শুধু বৃহত্তম দল হওয়ার সুবাদে বিজেপির সরকার গড়তে যাওয়া ভেঙে দিয়েছে বিরোধীদের ধৈর্য্যের বাঁধ। এবার বিজেপির যুক্তিতেই বিজেপিকে ঘায়েল করতে চান তাঁরা।

আরজেডি নেতা তেজস্বীপ্রসাদ যাদব জানান, তিনি কাল দুপুর একটায় বিহারের রাজ্যপালের সঙ্গে এই দাবি নিয়ে দেখা করবেন। বিজেপি সভাপতি অমিত শাহকে আক্রমণ করে তিনি আরও বলেন, অমিত শাহ একটাই ফর্মুলা জানেন। হয় ঘোড়া কেনাবেচা করে বিরোধীদের বিধায়ক ভাঙিয়ে নাও, নয় ইডি বা সিবিআইয়ের মতো কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলোকে বিরোধীদের নাস্তানাবুদ করতে কাজে লাগাও। বিজেপি দেশে স্বৈরতন্ত্র চালাচ্ছে।

গোয়ায় কংগ্রেসের পরিষদীয় দলের নেতা চন্দ্রকান্ত কাভলেকর বলেন, এখন তাঁদের মোট ১৬ জন বিধায়ক থাকলেও, বিধানসভায় নিজেদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করতে পারবেন তাঁরা।

গোয়ার ভারপ্রাপ্ত কংগ্রেস নেতা চেল্লাকুমারও সরকার গড়ার দাবি নিয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করবেন বলে জানিয়েছেন।

 

Leave A Reply