রবিবার, জানুয়ারি ১৯
TheWall
TheWall

স্কুলের ছাত্রদের বন্দুক চালাতে শেখাচ্ছে বজরং দল! অভিযুক্ত বিজেপি বিধায়ক

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

দ্য ওয়াল ব্যুরো: স্কুলের ছাত্রদের আগ্নেয়াস্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ দিচ্ছে বজরং দল! সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতেই সমালোচনা ছড়াল নেট-দুনিয়ায়। প্রতিবাদে সরব হলেন স্থানীয় বাসিন্দারাও। মহারাষ্ট্রের ঠানে জেলার মীরা রোড-ভায়ান্দর বিধানসভা এলাকার এই ঘটনায় পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছেন স্থানীয়রা। পুলিশ জানিয়েছে, এলাকার বিজেপি বিধায়কের ওই স্কুলে এমন কাণ্ড কেন ঘটছিল, তা খতিয়ে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

সোশ্যাল মিডিয়া থেকে অবশ্য সাত তাড়াতাড়ি ছবিগুলি ডিলিট করে দেওয়া হয় পুলিশি তদন্ত শুরু হওয়ার পরেই।

স্থানীয় সূত্রের খবর, মীরা রোড-ভায়ান্দর বিধানসভার বিজেপি বিধায়ক নরেন্দ্র মেহতার নিজের একটি স্কুল আছে। ‘সেভেন স্কোয়্যার অ্যাকাডেমি’ নামের সেই স্কুলের ক্যাম্পাসের ভিতরেই ছাত্রদের বন্দুক চালানোর প্রশিক্ষণ দিচ্ছিল কট্টর হিন্দুত্ববাদী সংগঠন বজরং দল। পরে সেই প্রশিক্ষণের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্ট করে বজরং দলেরই স্থানীয় এক কর্মী প্রশান্ত গুপ্তা।

সোশ্যাল মিডিয়া মারফত বিষয়টি জানাজানি হতেই উত্তেজনা তৈরি হয় স্থানীয়দের মধ্যে। প্রশ্ন ওঠে, পড়াশোনার বদলে ছোট ছোট ছেলেদের হাতে কী ভাবে বন্দুক তুলে দেওয়া হচ্ছে। পুলিশের কাছেও অভিযোগ দায়ের করা হয়।

স্থানীয় বাসিন্দা ও সিপিএম নেতা সাদিক বাশা এ প্রসঙ্গে বলেন, “গত ২৫ মে থেকে ১ জুন, টানা সাত দিন ধরে ওই স্কুলের ভিতরে বজরং দলের প্রশিক্ষণ চলেছে। এই কয়েক দিন স্কুলের বাইরে রীতিমতো ব্যানারও টাঙিয়ে রাখা হয়েছিল। ভিতরে প্রায় ১৫০ জনকে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছিল। বেশির ভাগ ছাত্রের বয়সই এখনও ১৮ বছর হয়নি।”

আরও অভিযোগ, এই ঘটনায় তিনি ও স্থানীয় বাসিন্দারা স্থানীয় নবঘর থানায় অভিযোগ জানাতে গিয়েছিলেন। কিন্তু পুলিশ প্রথমে অভিযোগ নিতে অস্বীকার করে। পুলিশ জানায়, ব্যক্তিগত জায়গায় কেউ যদি ব্যক্তিগত কোনও কর্মসূচি গ্রহণ করে, তা হলে কিছু করার নেই।”

যদিও পরে স্থানীয় বাসিন্দাদের চাপে অভিযোগ নিতে বাধ্য হয় নবঘর থানা। তবে তদন্ত অগ্রগতি না হওয়ায় এর পরে স্থানীয় বাসিন্দারা সোজা গিয়ে হাজির হন ঠানের ডেপুটি পুলিশ সুপার অতুল কুলকার্নির কাছে। এর পরেই পুলিশকে ওই স্কুলে গিয়ে বিষয়টি খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে অভিযুক্ত বিজেপি বিধায়ক কোনও প্রতিক্রিয়া দেননি। তবে স্কুল কর্তৃপক্ষের তরফে জানানো হয়েছে, ছুটি থাকাকালীন বিভিন্ন ক্যাম্পের জন্য স্কুলের ক্যাম্পাস ভাড়া দেওয়া হয়। এ বারও স্কুলের পরিচালন সমিতির পক্ষ থেকে বজরং দলকে ক্যাম্পাস ভাড়া দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তাদেরই ক্যাম্প চলছিল। কিন্তু তাতে কী হচ্ছিল, তা স্কুল কর্তৃপক্ষ জানেন না বলেই দাবি।

Share.

Comments are closed.