সোমবার, অক্টোবর ১৪

১৪ বছর পরে রায়, অযোধ্যা জঙ্গি হামলা মামলায় চার জনের যাবজ্জীবন সাজা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ১৪ বছর পরে শেষমেশ অযোধ্যা জঙ্গি হামলার সাজা ঘোষণা করল এলাহাবাদ হাইকোর্ট৷ চার জন অভিযুক্তের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হলেও, এক জন বেকসুর খালাস ঘোষিত হল। সাজাপ্রাপ্ত চার জনের প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানাও দিতে বলা হয়েছে৷

মঙ্গলবার বিশেষ আদালতের বিচারপতি দীনেশ চাঁদ এই মামলার রায় ঘোষণা করেন। এই মামলার অভিযুক্ত পাঁচ জনই এলাহাবাদের সেন্ট্রাল জেলে ১৪ বছর ধরে বন্দি ছিলেন৷

২০০৫ সালের ৫ জুলাই অযোধ্যায় অস্থায়ী রামমন্দিরে একটি আত্মঘাতী জঙ্গি হামলা ঘটায় এক জঙ্গি৷ আরও পাঁচ জঙ্গি হামলার চেষ্টা করে৷ এনকাউন্টারের মাঝে পড়ে দুই ব্যক্তি রমেশ পাণ্ডে ও শান্তি দেবী নিহত হন৷ এ ছাড়া ৭ জওয়ানও গুরুতর জখম হন৷ সিআরপিএফ-এর সঙ্গে এক ঘণ্টা গুলি লড়াই চলার পরে পাঁচ জঙ্গি আত্মসমর্পণ করে৷ পরে জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ এই হামলার দায় স্বীকার করেছিল৷

এই ঘটনারই মামলা চলছিল ১৪ বছর ধরে। অনেকে বলছেন, রামের বনবাসের সময়কাল মেনেই যেন মামলা চলল এত দিন ধরে।

ঘটনার সূত্রপাত ১৯৯২ সালে। ৬ ডিসেম্বর অযোধ্যায় ভাঙা হয় বাবরি মসজিদ। হিন্দুত্ববাদীদের দাবি ছিল, অযোধ্যা রামের জন্মভূমি। সেখানে রাম মন্দির ছিল। ইসলাম ধর্মের অনুপ্রবেশকারীরা তা দখল করে মসজিদ বানিয়েছে। তার পর থেকেই ভারতে দফায় দফায় জঙ্গি হামলা হয়৷ প্রতিটা ক্ষেত্রেই জঙ্গিরা দায় স্বীকার করে জানায়, বাবরি মসজিদ ভাঙার প্রতিশোধ নিতেই তারা বারবার হামলা চালিয়েছিল৷

অন্য দিকে, অযোধ্যার ওই জায়গা ঘিরে রামজনম ভূমি ও বাবরি মসজিদ মামলার নিষ্পত্তি এখনও হয়নি৷ সুপ্রিম কোর্ট চেয়েছে, আদালতের বাইরেই বিষয়টি মিটমাট করে নিক দু’পক্ষ৷ তবে তার কোনও সম্ভাবনা এত বছরে দেখা যায়নি৷

Comments are closed.