ভোট চুরির জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করুক আওয়ামি লিগ, বাংলাদেশে দাবি বিরোধী বিএনপি-র

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো : বাংলাদেশে ভোট হয়ে গিয়েছে গত ৩০ ডিসেম্বর। কিন্তু তা নিয়ে বিতর্ক থামার লক্ষণ নেই এখনও। বিরোধী ঐক্যফ্রন্টের সাংসদরা সংসদে আসতে অস্বীকার করেছেন। শাসক আওয়ামি লিগ থেকে প্রথমে বলা হয়েছিল, সরকার বিরোধীদের সঙ্গে আলোচনা চায়। পরে বলা হয়, সরকার বিরোধীদের সঙ্গে কেবল সৌজন্য বিনিময় করবে। সরকার ঠিক কী চায়, তা নিয়ে ছড়িয়েছে বিভ্রান্তি। এর মধ্যে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল আলমগির বললেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ‘ভোট চুরির’ জন্য আওয়ামি লিগের সাধারণ সম্পাদককে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে।

গত রবিবার আওয়ামি লিগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, রাজনৈতিক দলগুলিকে গণভবনে ‘সংলাপে ডাকা’ হবে। কিন্তু পরদিনই তিনি বলেন, তাদের ডাকা হবে কেবল শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা টি ইমাম মঙ্গলবারই বলেন, রাজনৈতিক দলগুলিকে ‘সংলাপে ডাকা’ হবে। তবে বিএনপি ফের ভোটের জন্য যে দাবি তুলেছে, তা তিনি উড়িয়ে দিয়েছেন। তাঁর কথায়, বিএনপির পক্ষ থেকে যে নতুন নির্বাচনের কথা বলা হচ্ছে তা সম্ভব নয়। পাঁচ বছর পরেই ভোট হবে।

বিএনপির মির্জা ফখরুল বলেন, ওরা এত বড় চুরি করেছে, এখন সামাল দিতে পারছে না। মাথার প্রবলেম হচ্ছে। কাদের সাহেবকে বলুন, প্রথমে স্টেডিয়ামে গিয়ে জাতির কাছে মাপ চান। তারপরে যেন অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা করেন। তাহলে একটা পথ তৈরি হবে।

এবারের ভোটে আওয়ামি লিগ একা পেয়েছে ২৫৭ টি আসন। জোটগতভাবে তারা পেয়েছে ২৮৮ টি আসন। অন্যদিকে বিএনপিকে নিয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট পেয়েছে মাত্র আটটি আসন। বিরোধীদের অভিযোগ, কারচুপি করে আওয়ামি লিগ অতগুলি আসন পেয়েছে। নির্বাচনের আগে আওয়ামি লিগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে আলোচনা করেছিলেন। কিন্তু বিরোধীদের মতে, সেই আলোচনা অর্থবহ হয়নি। ভোটের পরে ফের আলোচনার কথা বলেছিলেন কাদের।

মির্জা ফখরুল মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন যশোরের যুব দল কর্মী ফয়জল আলিকে দেখতে যান। তাঁর ওপরে হামলার জন্য আওয়ামি লিগকে দায়ী করেছে বিএনপি। মির্জা ফখরুল এদিন বলেন, সারা দেশই হাসপাতালে পরিণত হয়েছে। আওয়ামি লিগ প্রতিটি জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়নে বিরোধীদের খুঁজে বার করে খুন করছে, লুটপাট করছে। দেশে চরম নৈরাজ্যের পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More