বৃহস্পতিবার, জুন ২০

মজবুর বনাম মজবুত সরকার, বিরোধীদের কটাক্ষ মোদীর

দ্য ওয়াল ব্যুরো : বিজেপির জাতীয় পরিষদের মঞ্চে বক্তৃতা দেওয়ার জন্য বাড়তি সময় চাইলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বক্তৃতায় তুলোধোনা করলেন বিরোধীদের। তাঁর মতে, জোট নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা ইতিমধ্যেই ব্যর্থ। বিরোধীরা সবাই মিলে চেষ্টা করছে যাতে একটা ‘মজবুর’ অর্থাৎ অসহায় সরকার গঠন করা যায়। কিন্তু আমরা গড়ব ‘মজবুত’ সরকার। সেই সরকার সব ক্ষেত্রেই উন্নয়নের কর্মসূচি নেবে।

তাঁর কথায়, আমরা চাই দেশে শক্তিশালী সরকার গঠিত হোক। সেই সরকার দুর্নীতি দূর করতে পারবে। কিন্তু দেশে এক ব্যর্থ পরীক্ষা চলছে, যার নাম মহাজোট। তারা সকলে জড়ো হয়ে একটি অসহায় সরকার গড়তে চায়। তারা চায় না এমন একটি শক্তিশালী সরকার গঠিত হোক যে তাদের দোকানপাট বন্ধ করে দেবে। তারা চায় অসহায় সরকার যাতে তাদের আত্মীয়দের উপকার করতে পারে।

মোদী এদিন ভাষণ দেন দেড় ঘণ্টা। তিনি ফের তুলে ধরেন পুরনো স্লোগান, সবকা সাথ, সবকা বিকাশ। তাঁর দাবি, দেশের ইতিহাসে এই প্রথম এমন এক সরকার গঠিত হয়েছে যার বিরুদ্ধে কোনও দুর্নীতির অভিযোগ নেই। কংগ্রেসকে আক্রমণ করে তিনি বলেন, আমাদের আগে যে সরকার ছিল, তা দেশকে ঠেলে দিয়েছিল অন্ধকারের দিকে। নানা দুর্নীতিতে জড়িয়ে ২০০৪ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত ১০ টা বছর ভারতের নষ্ট হয়েছে।

উত্তরপ্রদেশে বিএসপি নেত্রী মায়াবতী এবং সমাজবাদী পার্টির নেতা অখিলেশ সিং-এর জোটের কথা উল্লেখ করেন মোদী। শনিবারই মায়াবতী ও অখিলেশ ঘোষণা করেছেন, আগামী লোকসভা ভোটে তাঁরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়বেন। উত্তরপ্রদেশে ৮০ টি লোকসভা আসনের মধ্যে তাঁরা উভয়ে লড়বেন ৩৮ টি করে আসনে। এই ‘গঠবন্ধন’ থেকে কংগ্রেসকে বাদ দেওয়া হয়েছে। মোদী বলেন, এমন অনেক দল আছে যারা কংগ্রেসের দুর্নীতির বিরোধী। তারা ওই দলকে বাদ দিয়ে নিজেদের মধ্যে ‘মহাগঠবন্ধন’ তৈরি করেছে।

আঞ্চলিক দলগুলির সমালোচনা করে মোদী বলেন, তারা নিজেদের কংগ্রেসের বিরোধী বলে দাবি করেছিল। কিন্তু মানুষের আস্থার মর্যাদা রাখেনি। কর্ণাটক, মধ্যপ্রদেশ ও রাজস্থানে জোট সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ওই রাজ্যগুলিতে জোট সরকারকে রাজনৈতিক বাধ্যবাধকতার মধ্যে কাজ করতে হয়। কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী এইচ ডি কুমারস্বামী বলেছেন, তিনি একজন কেরানির মতো কাজ করেন। মুখ্যমন্ত্রীর মতো কাজ করতে পারেন না। রাজস্থান ও মধ্যপ্রদেশে জোট শরিকরা সরকারকে হুমকি দিচ্ছে, হয় আমাদের লোকজনের অপর থেকে মামলা তুলে নাও নইলে তোমাদের ওপর থেকে সমর্থন তুলে নেব।

বিরোধীরা যেভাবে একযোগে তাঁর বিরুদ্ধে আক্রমণ করছে সেকথা উল্লেখ করে মোদী বলেন, রাজনীতি করা উচিত নীতির ভিত্তিতে। কিন্তু এই প্রথমবার রাজনীতি হচ্ছে একজন ব্যক্তির বিরুদ্ধে।

Comments are closed.