বুধবার, জুলাই ১৭

ভারতীয় সেনা অফিসারদের ওপরে নজর পাক চরদের, হোয়াটস অ্যাপ ব্যবহারে সতর্কতা

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ভারতীয় সেনা ও তাঁদের পরিবারের লোকজন হোয়াটস অ্যাপে কী বার্তা লেনদেন করছেন সেদিকে নজর রাখছে পাকিস্তানি গুপ্তচর সংস্থাগুলি। তারা সেই মেসেজগুলি পড়ে বোঝার চেষ্টা করছে, সেনা অফিসাররা কে কী প্রকৃতির মানুষ। তাদের পছন্দ-অপছন্দ কীরকম। সেজন্য প্রতিরক্ষা মন্ত্রক থেকে সেনাকর্মীদের বলা হয়েছে হোয়াটস অ্যাপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে সতর্ক হোন। নির্দিষ্ট গাইডলাইন মেনে মেসেজ পাঠান।

সেনাবাহিনী সূত্রে জানা যায়, পাকিস্তানের চরের কৌশলে ভারতের সেনাকর্মীদের কয়েকটি হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপে ঢুকে পড়েছে। সেনা অফিসাররা কী বলাবলি করছেন, সব তারা জানতে পারছে। অনেক সময় তারা সেনাকর্মীদের জন্য সোশ্যাল সাইটে ফাঁদ পাতছে।

কীভাবে ফাঁদ পাতছে?

সেনা সূত্রে খবর, পাকিস্তানি চরেরা অনেক সময় কোনও মহিলার নাম ও ছবি দিয়ে ভুয়ো প্রোফাইল খোলে। সেই প্রোফাইল থেকে কোনও সেনা অফিসারের ঘনিষ্ঠ হতে চায়। এইভাবে কয়েকটি ক্ষেত্রে তারা সফল হয়েছে। ভুয়ো প্রোফাইল থেকে অনুরোধ করে একাধিক আর্মি অফিসারের থেকে জেনে নিয়েছে সেনাবাহিনীর নানা গুপ্ত তথ্য।

সেনা অফিসারদের বলা হয়েছে, যে হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপগুলিতে বহু সদস্য আছে, সেখানকার মেম্বার হবেন না। কারণ অনেকের ভিড়ে লুকিয়ে থাকতে পারে পাকিস্তানের গুপ্তচরেরা। সেনা অফিসাররা কেবল ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের সঙ্গে গ্রুপ বানাতে পারেন।

হোয়াটস অ্যাপে কয়েকজন সেনা অফিসারকে ইতিমধ্যে হুমকি মেলও পাঠানো হয়েছে। সেনাবাহিনীর এক উচ্চপদস্থ অফিসারকে সম্প্রতি ই-মেল পাঠিয়ে বলা হয়েছে, আপনার মেয়ের কয়েকটি ভিডিও ছবি আমরা পেয়েছি। আপনি যদি মেলের সঙ্গে দেওয়া লিঙ্কটিতে ক্লিক না করেন, ছবিগুলি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেব।

ওই লিঙ্কে ক্লিক করলেই সেনা অফিসারের কম্পিউটারে একটি ম্যালওয়ার ইনস্টল হয়ে যেত।

সেনাবাহিনী থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, সেনাকর্মীদের আত্মীয়স্বজন যেন সোশ্যাল মিডিয়ায় উল্লেখ না করেন যে, তাঁদের কোনও আত্মীয় আর্মিতে কাজ করেন। সেনাকর্মীর ইউনিফর্ম পরা কোনও ছবিও যেন তাঁদের ফেসবুকে না থাকে।

Comments are closed.