বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮

কর্ণাটকের বিদ্রোহী বিধায়করা সন্ধ্যার মধ্যে স্পিকারের সঙ্গে দেখা করুন : সুপ্রিম কোর্ট

দ্য ওয়াল ব্যুরো : আমরা রেজিগনেশন দিয়েছি। কিন্তু স্পিকার তা নিচ্ছেন না। কর্ণাটকের স্পিকার কে আর রমেশ কুমারের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তুলে সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিলেন বিদ্রোহী ১০ বিধায়ক। বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট তাঁদের নির্দেশ দিল, আপনারা সন্ধ্যা ছ’টার মধ্যে স্পিকারের সঙ্গে দেখা করুন। যখন তাঁরা দেখা করতে যাবেন, পুলিশ তাঁদের পাহারা দেবে। সুপ্রিম কোর্ট তেমনই নির্দেশ দিয়েছে। বিদ্রোহীদের সঙ্গে কথা বলে স্পিকার কী সিদ্ধান্ত নেবেন, তা কোর্টকে জানাতে বলা হয়েছে।

গত শনিবার থেকে দফায় দফায় কর্ণাটকের মোট ১৬ জন বিধায়ক ইস্তফা দিয়েছেন। তাঁরা শাসক কংগ্রেস ও জেডি এস জোটের সদস্য ছিলেন। গত শনিবারই বিদ্রোহী কয়েকজন বিধায়ককে চ্যাটার্ড প্লেনে মুম্বই উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে এক পাঁচ তারা হোটেলে তাঁরা আছেন।

মঙ্গলবার স্পিকার আটজনের ইস্তফাপত্র নাকচ করে দেন। তাঁর বক্তব্য, সেগুলি যথাযথভাবে লেখা হয়নি। বিদ্রোহী বিধায়কদের তাঁর সঙ্গে দেখা করতে বলেন। তাঁর কথায়, শুধু চিঠি দিলেই যদি কাজ হয়ে যেত, তাহলে আমার থাকার কোনও দরকারই পড়ত না।

বিদ্রোহীদের অভিযোগ ছিল, স্পিকার ইচ্ছা করে রেজিগনেশন নিতে চাইছেন না। কারণ তিনি শাসক জোটকে আরও কিছুদিন টিকে থাকার সুযোগ দিতে চান। তাঁরা পুলিশকে চিঠি লিখে বলেন, হোটেলের চারদিকে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হোক। কারণ কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী এইচ ডি কুমারস্বামী অথবা কংগ্রেসের ট্রাবলশুটার ডি কে শিবকুমার জোর করে হোটেলে ঢুকতে চাইতে পারেন।

বুধবার সকালে সত্যিই শিবকুমার হোটেলে ঢুকতে চেষ্টা করেছিলেন। পুলিশ তাঁকে গেটে আটকে দেয়। তিনি বলেন, হোটেলে কয়েকজন বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে এসেছেন। পুলিশ ঢুকতে না দিলে দীর্ঘ ছ’ঘণ্টা হোটেলের সামনে অপেক্ষা করেন। শেষে তাঁকে আটক করা হয়।

কর্ণাটকের রাজনৈতিক পরিস্থিতি অন্যদিকে মোড় নিল বৃহস্পতিবার। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে আর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে বিদ্রোহী বিধায়কদের স্পিকারের সঙ্গে দেখা করতে হবে।

Comments are closed.