বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৭

‘বিদেশ থেকে এসে ‘জ্ঞান’ দিয়ে যান উনি’, জয় শ্রীরাম প্রসঙ্গে অমর্ত্য সেনকে আক্রমণ দিলীপ ঘোষের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মানুষকে মারধর করার জন্যই ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগানটি বাংলায় আমদানি করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছিলেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন। উল্লেখ করেছিলেন বিভাজনের রাজনীতির কথাও। একই সঙ্গে বলেছিলেন, এটি বাংলার সংস্কৃতি নয়। আর তাতেই পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি নেতারা প্রবল ক্ষিপ্ত হয়েছেন স্বাভাবিক ভাবেই। তাঁদের বক্তব্য, বাংলার সংস্কৃতি নিয়ে কিছুই জানেন না অমর্ত্য সেন!

গত শুক্রবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন অমর্ত্য সেন। সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়েই ভগবানের নামে এই স্লোগান দেওয়া নিয়ে বিরক্তি প্রকাশ করেন তিনি। বলেন, “জয় শ্রীরাম স্লোগান এখন মানুষকে মারধর করতেই ব্যবহার করা হচ্ছে। বাংলার সংস্কৃতির সঙ্গে এই স্লোগানের মিল পাওয়া যায় না। জয় শ্রীরাম যে খুব প্রাচীন বাঙালি বক্তব্য, এমনটা তো শুনিনি।” তাঁর এই মন্তব্যের পরেই বির্তক শুরু হয় রাজ্য জুড়ে। নোবেলজয়ী এই অর্থনীতিবিদের তীব্র সমালোচনা করেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ও কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা-সহ অন্য বিজেপি নেতারাও।

দিলীপ ঘোষ বলেছেন, বিদেশ থেকে রাজ্যে এসে ‘জ্ঞান’ দিয়ে যান অমর্ত্য সেন। তার মতামতের কোনও ‘গুরুত্ব’ নেই।  তাঁর কথায়, “অমর্ত্য সেনদের কথা শোনার লোক নেই। আজ কমিউনিস্টরা শেষ। আর সেকুলাররা রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। মানুষ অমর্ত্য সেনদের মতো বুদ্ধিজীবীদের কথা আর শুনছে না। শুনলে নির্বাচনে এই ফলাফল হত না। মানুষ দু’হাত তুলে জয় শ্রীরাম বলছেন। সারা ভারতেই মানুষ যা বলছে, বাংলাও তার বাইরে নয়। অমর্ত্য সেনরা আসবেন, সরকারি পয়সায় খাবেন, চলে যাবেন। বাংলার কোনও দায়িত্ব নেবেন না।” শনিবার দিলীপ ফের প্রশ্ন করেন, উনি কি বাংলা বা ভারতীয় সংস্কৃতি সম্পর্কে কিছু জানেন?

দিলীপ ঘোষের সুরেই মুকুল রায় বলেছেন, “উনি এত বড় মাপের মানুষ যে বিদেশ থেকে বিমানবন্দরে পৌঁছে পাইলট গাড়ি-সহ কলকাতায় ঘুরে বেড়ান। ফলে সাধারণ মানুষের কথা উনি জানতেও পারেন না। শুনতে পান না তাদের ভাষা। রাম রাজ্য কোনও নতুন ভাবনা নয়।”

তথাগত রায় দাবি করেন, তিনি কোনও রাজনৈতিক মন্তব্য করবেন না। তার পরেও তাঁর প্রশ্ন, “শ্রীরামপুর বা পামরাজাতলা কি বাংলার বাইরে? ভূতের ভয় পেলে কি বাংলার মানুষ রামনাম জপ করেন না? তা হলে জয় শ্রীরামে এত আপত্তি কীসের?”

দেখুন ভিডিও।

জয় শ্রীরাম নিয়ে তথাগত রায়

"শ্রীরামপুর, রামরাজাতলা– বাংলায় না অন্য কোথাও? ভূত-পেত্নি তাড়ানোর জন্য আমরা রামনাম করি না কি?"রাজ্যপাল হিসেবে রাজনৈতিক বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে রাজি না হয়েও 'জয় শ্রীরাম'-এর ব্যাখ্যা দিলেন তথাগত রায়। দেখুন ভিডিও।

The Wall এতে পোস্ট করেছেন রবিবার, 7 জুলাই, 2019

একই ভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় অমর্ত্য সেনকে আক্রমণ করেছেন বাবুল সুপ্রিয়। নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদের বয়সকে স্মরণ করিয়ে দিয়ে বাবুল লিখেছেন, “বয়সজনিত কারণেই জয় শ্রীরামের মানে বুঝতে পারছেন না উনি। ওঁর বয়স কথা বলছে, মস্তিষ্ক বা অন্য কিছু নয়।  সেই কারণেই জয় শ্রীরামের মানে বুঝতে পারেননি উনি।” বাবুলের দাবি, বাংলায় জয় শ্রীরাম প্রতীকী প্রতিবাদের ধ্বনি, এর সঙ্গে ধর্মের  যোগ নেই। তিনি বলেছেন, জয় শ্রীরাম ধ্বনি মানুষকে মারধরের জন্য নয়, বরং এই ধ্বনি ব্যবহার হচ্ছে অত্যাচারীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর লড়াই হিসেবে।

Comments are closed.