মেয়েদের ভাল বিয়ে হবে, বহু গ্রামের মুসলিম নাম হিন্দু করে দিলেন বসুন্ধরা

0

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কদিন আগে মোগলসরাই রেল স্টেশনের নাম বদলে দীনদয়াল উপাধ্যায় জংশন করেছে মোদী সরকার। এ বার রাজস্থানের বহু গ্রামের মুসলিম নাম বদলে রাতারাতি হিন্দু নাম করে দেওয়ার প্রস্তাব দিল বসুন্ধরা রাজে সরকার। রাজস্থান সরকারের প্রস্তাব মতো এরই মধ্যে আটটি গ্রামের নাম বদলে দিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকও! যেমন, বারমের জেলায় ‘মিঞোঁ কি বারা’ গ্রামের নাম বদলে করা হয়েছে মহেশ নগর।

কিন্তু কেন?

বসুন্ধরার যুক্তিও আজব! রাজস্থান সরকারের বক্তব্য, ওই গ্রামে হিন্দুরা তুলনায় সংখ্যায় বেশি। দ্বিতীয়ত, হিন্দু নাম হলে ওখানকার মেয়েদের আরও ভাল ঘরে বিয়ে হবে।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, এ সব একেবারেই ছুতো। বসুন্ধরা যা বলছেন, সেটাই যদি নাম বদলের শর্ত হয় তা হলে দেশ জুড়ে বহু হিন্দু এলাকার নামও বদলাতে হবে। নাম বদল করা ছাড়া কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের আর কোনও কাজ থাকবে না। তাঁদের মতে, আসল কারণ পরিষ্কার। এ বছরের শেষ দিকে রাজস্থানে বিধানসভা ভোট। তার আগে রাজ্য জুড়ে বসুন্ধরা সরকারের বিরুদ্ধে প্রবল প্রতিষ্ঠান বিরোধী হাওয়া রয়েছে। তাই মোকাবিলার পথ খুঁজতে উগ্র হিন্দুত্বের পথে হাঁটতে চাইছেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী।

জানা গিয়েছে, গোটা রাজস্থান জুড়ে বিক্ষিপ্ত ভাবে মোট ২৭টি গ্রামের নাম পরিবর্তনের প্রস্তাব করেছে বসুন্ধরা সরকার। এর মধ্যে আটটি গ্রামের নাম বদলের প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে রাজনাথ সিংহের মন্ত্রক। বাকিগুলি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের বিবেচনাধীন রয়েছে। বারমের জেলার ‘মিঞোঁ কি বারা’ গ্রামে চোদ্দশো মানুষের বাস। তার মধ্যে কত জন হিন্দু ধর্মাবলম্বী, কত জন মুসলমান তা বলতে পারেননি তা অবশ্য স্থানীয় মহকুমা শাসক তাহির শাম্মা। তবে তিনি বলেন, “অতীতে ওই গ্রামের নাম ছিল মহেশ রো বড়ো। স্বাধীনতার আগেই নাম বদলে করা হয়েছিল মিঞোঁ কি বারা।”

তবে কংগ্রেসের বক্তব্য, ঐতিহাসিক ভাবেই বিজেপি-র নাম বদলের বাতিক রয়েছে। তার নেপথ্যে সুনির্দিষ্ট রাজনৈতিক কারণও রয়েছে। একে তো বিজেপি-র অতীত ঐতিহ্য বলতে কিছু নেই। জওহরলাল নেহরু-ইন্দিরা গান্ধীর মতো তেমন কোনও বড় মাপের নেতাও বিজেপি শিবিরে ছিলেন না। ফলে দীনদয়াল উপাধ্যায় বা শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের নামে প্রকল্প, রাস্তা বা রেল স্টেশনের নামকরণ করে একটা স্বীকৃতি পাওয়ার খিদে সব সময় রয়েছে। সঙ্গে রয়েছে সব কিছুকে গৈরিকীকরণ করে রাজনৈতিক ফায়দা লাভের আকাঙ্খা। যেমন কেন্দ্রে ক্ষমতায় এসেই নয়াদিল্লির ঔরঙ্গজেব রোডের নাম পরিবর্তন করে প্রয়াত প্রাক্তন এ পি জে আবদুল কালামের নামে নামকরণ করেছিল মোদী সরকার। সেই ট্রাডিশনই চলছে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Leave A Reply

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More