রবিবার, আগস্ট ১৮

প্রাথমিক শিক্ষকের গুলিবিদ্ধ দেহ উদ্ধার, ঝুলন্ত দেহ মিলল আরও এক শিক্ষকের

দ্য ওয়াল ব্যুরো : এক প্রাথমিক শিক্ষকের গুলিবিদ্ধ দেহ উদ্ধার হল উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জ থানা এলাকা থেকে। ডালিমগাঁ চাঁদপুর এলাকায় আজ সকালে এক যুবকের দেহ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁর দেহের কাছে একটি আগ্নেয়াস্ত্রও পড়ে থাকতে দেখেন তাঁরা। পরে জানা যায়, ওই যুবকের নাম মণীশ আগরওয়াল(৩৫)। কালিয়াগঞ্জের একটি স্কুলে শিক্ষকতা করতেন তিনি।

স্থানীয় ধনকৈল গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ প্রধান ধীরেন রায় বলেন, ‘‘১০০ দিনের কাজের শ্রমিকরা এসে রেল ব্রিজের নিচে মৃতদেহ দেখতে পেয়ে আমাদের খবর দেন। আমরাই পুলিশকে খবর দিয়েছি। আমাদের মনে হচ্ছে খুন করা হয়েছে ওই যুবককে।’’ মনীশের পরিবার সুত্রে জানা গেছে শুক্রবার সন্ধ্যায় কালিয়াগঞ্জের বাড়ি থেকে বেড়িয়েছিলেন তিনি। তারপর থেকে তাঁর আর কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি। সকালে তাঁর দেহ মিলতে বাড়িতে খবর দেয় পুলিশ।

কালিয়াগঞ্জ থানার পুলিশ জানিয়েছে, কীভাবে চাঁদপুর থেকে কালিয়াগঞ্জে এসেছিলেন ওই যুবক তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মৃতদেহের পাশে আগ্নেয়াস্ত্র পরে থাকাতেও ধন্দে পুলিশ। শুরু হয়েছে তদন্ত।

এ দিকে  আরও এক শিক্ষকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হল পূর্ব মেদিনীপুরের তমলুকে। দেনার দায়ে জর্জরিত হয়ে তিনি আত্মহত্যা করছেন বলে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান। তবে ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

তমলুকের হোগলবেরিয়া গ্রামের বাংলার শিক্ষক সুব্রত রায়কে(৪৫) আজ বাড়ির সামনে পেয়ারা গাছে গলায় মাফলার দিয়ে ঝুলতে দেখেন আত্মীয় ও প্রতিবেশীরা। মৃত শিক্ষকের স্ত্রী মণিমালা জানিয়েছেন, প্রচুর দেনা ছিল তাঁর স্বামীর। প্রায় প্রতেক দিন বাড়িতে পাওনাদার আসতেন। ফোনেও আসত হুমকি। স্থানীয় ছাঠরা কুঞ্জরানি উচ্চ বিদ্যলয়ের বাংলার শিক্ষক ছিলেন সুব্রতবাবু। চাকরি দেওয়ার নামে বেশ কিছু লোকের কাছ থেকে টাকা নিয়েছিলেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

Comments are closed.