শুক্রবার, নভেম্বর ১৫

বর্ধমানে বড় দুর্ঘটনা, একসঙ্গে আসা দু’টি ট্রেনে হুড়োহুড়ি করে উঠতে গিয়ে পদপিষ্ট বহু যাত্রী

দ্য ওয়াল ব্যুরো, পূর্ব বর্ধমান : ভিড়ের চাপে ধাক্কাধাক্কি। তারপর পদপিষ্ট হয়ে বর্ধমান স্টেশনে জখম হলেন বেশ কয়েকজন যাত্রী। তাঁদের মধ্যে ১১জনকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এক মহিলা যাত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদের মধ্যে দুই শিশুও রয়েছে। শুক্রবার দুপুর সাড়ে তিনটে নাগাদ এই ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, চার নম্বর প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়ে ছিল আপ পুরুলিয়া লোকাল। অন্যদিকে এই সময় পাঁচ নম্বর প্ল্যাটফর্মে ঢোকে ডাউন পূর্বা এক্সপ্রেস। চার ও পাঁচ নম্বর প্ল্যাটফর্মে ওঠা নামার জন্য একটাই মাত্র সিঁড়ি। দু’টি ট্রেনের যাত্রীদের মধ্যে ট্রেন ধরার জন্য হুড়োহুড়ি শুরু হয়ে যায়। ধাক্কাধাক্কিতে অনেকেই পড়ে যান। পড়ে যাওয়া যাত্রীদের উপর দিয়ে ছুটতে থাকেন অন্য যাত্রীরা।

রেলপুলিশ আহত যাত্রীদের উদ্ধার করে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। একজন মহিলা যাত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।

যাত্রীরা অভিযোগ করেন, স্টেশনের চার ও পাঁচ নম্বর প্ল্যাটফর্মে নামা বা ওঠার একটাই মাত্র সিঁড়ি। অন্য যে সিঁড়ি আছে তা এখন পুরোপুরি বন্ধ হয়ে আছে। কারণ সেখানে চলমান সিঁড়ি তৈরির কাজ চলছে। একটা মাত্র সরু সিঁড়ি দিয়ে ওঠানামার ফলে প্রায় প্রতিদিনই এ রকম হুড়োহুড়ি বা ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটছে। তাঁরা বলেন, ‘‘তবু রেল প্রশাসন উদাসীন। তাছাড়া ঠিক সময়ে স্টেশনে ট্রেন আসার ঘোষণা করা হয় না বলেও অভিযোগ যাত্রীদের। একেবারে শেষমুহূর্তে ট্রেন আসার ঘোষণা হওয়ায় ট্রেন ধরার জন্য হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। আজও এই কারণেই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

বর্ধমান স্টেশনের ম্যানেজার স্বপন অধিকারী অবশ্য এই অভিযোগ মানতে চাননি। তিনি বলেন, ‘‘আকস্মিকভাবেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। একইসঙ্গে ট্রেন এসে গিয়েছিল দু’টি প্ল্যাটফর্মে। হুড়োহুড়ি পড়ে গিয়েছিল। রেল পুলিশ সব য়াত্রীদে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছে।’’

Comments are closed.