শুক্রবার, এপ্রিল ২৬

এত বোমা সামলানো যাচ্ছে না, তাই বীরভূমে আলাদা বম্ব স্কোয়াড

শুভদীপ পাল, বীরভূম : এত বোম !  সামাল দিতে পারছে না দুর্গাপুরের বম্ব স্কোয়াড। তাই বীরভূমের জন্য এ বার আলাদা বম্ব স্কোয়াড তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হল।

গত এক বছরে বীরভূমের কাঁকরতলা, লাভপুর, সদাইপুর, নানুর, সিউড়ি সহ একাধিক এলাকা থেকে প্রচুর তাজা বোমা উদ্ধার হয়। এই বোমা নিষ্ক্রিয় করতে বারবার দুর্গাপুর থেকে আসতে হয় বম্ব স্কোয়াডের কর্মীদের। প্রতি মাসে কম করে দু’বার। তাই লোকসভা ভোটের আগেই বোলপুরে পৃথক বম্ব স্কোয়াড তৈরির সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য। বীরভূমের পুলিশ সুপার শ্যাম সিং জানান, “বীরভূমের বোলপুরে একটি টিম তৈরি করা হচ্ছে। ছোটো ছোটো ঘটনাগুলির ক্ষেত্রে এই টিম বোমা নিষ্ক্রিয় করার কাজ করবে। বড় ঘটনা ঘটলে দুর্গাপুর থেকেই বম্ব স্কোয়াডকে ডাকা হবে।”

পুলিশের সঙ্গে দুষ্কৃতীদের সংঘর্ষ হোক কিংবা রাজনৈতিক দলের লড়াই, বা অবৈধ বালি ঘাটের দখলদারি, বীরভূমে বোমাবাজি নিত্য দিনের ব্যাপার। ২০১৪ সালে দুবরাজপুরে দুষ্কৃতীদের ছোড়া বোমায় প্রাণ হারিয়েছিলেন পুলিশ অফিসার অমিত চক্রবর্তী। এমনকি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও বীরভূমে সভা করতে এসে পুলিশকে বলেছিলেন, “বীরভূম বোমা তৈরির কারখানা হয়ে গেছে। ”এরপরই জেলার বিভিন্ন প্রান্তে হানা দিয়ে বিপুল পরিমাণ বোমা উদ্ধার করে পুলিশ।

গতকালও সন্ধে সাড়ে সাতটা নাগাদ হঠাৎ বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে ইলামবাজার থানার পাইকুরি গ্রাম। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, জোরালো শব্দের উৎস খুঁজতে বেরিয়ে তাঁরা দেখেন ওই এলাকার পরিচিত তৃণমুল নেতা এবং ধরমপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য শেখ মিনাতুল্লার (মিনু) বাড়িতে বিস্ফোরণ ঘটেছে। বিস্ফোরণের তীব্রতা এতটাই ছিল যে বাড়ির উপরের টিনের চাল দূরে ছিটকে পড়েছে। এবং ঘরের ভিতরে থাকা জিনিসপত্র সম্পূর্ণভাবে পুড়ে গেছে। খবর যায় ইলামবাজার থানায়। ঘটনাস্থলে এসে বিশাল পুলিশ বাহিনী বাড়িটিকে ঘিরে ফেলে। ঘটনার পর থেকেই বেপাত্তা ওই তৃণমূল নেতা। আজ ইলামবাজার থানার পুলিশ মিনাতুল্লার দুই ভাই মতিউল্লা ও আমানুল্লাকে গ্রেফতার করে।

গত বৃহস্পতিবারই সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয় খয়রাশোল ব্লকের বড়রা গ্রাম। চলে ব্যাপক বোমাবাজি। সেই ঘটনায় স্থানীয় তৃণমুলকর্মী শেখ মনির ও শেখ কালামকে গ্রেফতার করেছিল কাঁকরতলা থানার পুলিশ। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেই পুলিশ বড়রা গ্রামের তৃণমুল নেতা শেখ কালো ও শেখ আকবরের বাড়ির পিছনের মাঠ থেকে ড্রাম ভর্তি তাজা বোমা উদ্ধার করে।

কাঁকরতলার পর সদাইপুরের সাহাপুর থেকে উদ্ধার হয় ড্রাম ভর্তি বোমা। এই সমস্ত বোমা নিষ্ক্রিয় করতেই দুর্গাপুর থেকে তলব করা হয়েছিল বম্ব স্কোয়াডকে। কিন্তু আর কতবার? তাই এ বার নিজস্ব বম্ব স্কোয়াড অনুব্রত মণ্ডলের বীরভূম জেলায়।

Shares

Comments are closed.