শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০

হাফিজ সইদের তহবিল নিয়ে তদন্তে ঘুষ চাওয়ার অভিযোগ, বদলি ৩ অফিসার

দ্য ওয়াল ব্যুরো : অভিযোগ, জঙ্গি সংগঠন লস্কর ই তৈবার নেতা হাফিজ মহম্মদ সইদের তহবিলে অর্থ দিয়েছিলেন দিল্লির এক ব্যবসায়ী। তাঁর বিরুদ্ধে তদন্ত করতে গিয়ে দু’কোটি টাকা ঘুষ চেয়েছিলেন এনআইএ-র তিন অফিসার। সেই ব্যবসায়ী তিনজনের বিরুদ্ধে এনআইএ-র কাছে অভিযোগ করেন। তাঁদের সঙ্গে সঙ্গে বদলি করে দেওয়া হয়েছে। তদন্ত চলছে। তদন্তের গতিপ্রকৃতির ওপরে লক্ষ রাখছেন ডিআইজি স্তরের এক অফিসার।

এনআইএ-র মুখপাত্র জানিয়েছেন, অফিসারদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এসেছিল। সেই নিয়ে তদন্ত করছেন ডেপুটি ইনসপেক্টর স্তরের এক অফিসার। তদন্তে নিরপেক্ষতা বজায় রাখার জন্য অভিযুক্তদের বদলি করা হয়েছে।

তিন অফিসার ও ব্যবসায়ীর নাম গোপন রাখা হয়েছে। এনআইএ-র মুখপাত্র জানিয়েছেন, তাঁরা দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়ে চলছেন। অভিযোগ প্রমাণিত হলে দুই অফিসারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অভিযুক্তদের একজন পুলিশ সুপার পদমর্যাদার অফিসার। অপর দু’জন জুনিয়র অফিসার। তাঁরা হাফিজ সইদের ফালা ই ইনসানিয়ৎ তহবিল নিয়ে তদন্ত করছিলেন।

গত মাসে ওই কেসে চার্জশিট দেওয়া হয়। তাতে হাফিজ সইদ সহ সাতজনের নাম ছিল। তাঁদের বিরুদ্ধে ইউএপিএ-র নানা ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, মহম্মদ কামরান নামে এক ব্যক্তি ফালা ই ইনসানিয়তের জন্য ভারত থেকে অর্থ সংগ্রহ করতেন। ওই তহবিলের উপপ্রধান শাহিদ মাহমুদ তাঁকে ওই দায়িত্ব দেন। সেই অর্থ দুবাইয়ের পথে পাকিস্তানে পাঠানো হত।

গত মাসে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের এক অফিসার জানিয়েছেন, ইউএপিএ সংশোধন করার পর ব্যক্তি হিসাবে হাফিজকেই প্রথম নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। গত বছর এনআইএ শাহিদ মাহমুদের বিরুদ্ধে মামলা করে। অভিযোগ তিনি ধর্মীয় কাজের নাম করে দিল্লি ও হরিয়ানায় স্লিপার সেল তৈরি করছেন।

Comments are closed.