শনিবার, মার্চ ২৩

বেনারসীর দিন শেষ, বিয়ের বাজার মাতাচ্ছে দেশি-বিদেশি ফিউশন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শীতকাল মানেই বিয়ের সিজন। শাড়ি, লেহঙ্গা, এথনিক থেকে কনটেম্পোরারিতে ভরে উঠবে ওয়ারড্রব। বলিউডেও তো বিয়ের সানাই বাজছে। সোনম কপূর-আনন্দ আহুজা দিয়ে শুরু হয়ে দীপিকা-রণবীর শেষে হালে প্রিয়ঙ্কা-নিক। ডেস্টিনেশন হোক বা দেশি, বিয়ে মানেই ঝাঁ চকচকে ভেন্যুর পাশাপাশি মানুষের কৌতুহল আকর্ষণ করে বর-কনের পোশাক। বিয়ের সঙ্গে ফ্যাশনের এই মাখোমাখো সম্পর্কের জন্যই ফ্যাশন ডিজাইনারদের পোয়াবারো। কেউ পড়বেন বেনারসী বা নবাবি ঘরানার শাড়ির সঙ্গে ভারী ট্রাডিশনাল জুয়েলারি, তো কারওর পছন্দ কনট্রাস্ট রঙের লেহঙ্গার সঙ্গে জাঙ্ক জুয়েলারি। ফ্যাশনের সঙ্গে আবার থাকতে হবে সফিস্টিকেশনও। তবেই না বিয়ের আনন্দ।

সেলেব ওয়েডিং থেকে চোখ সরালে আমার, আপনার পাশের বাড়ির কন্যাটিও কিন্তু স্টাইল স্টেটমেন্টে কোনও অংশে কম যান না। ম্যাগাজিন, ইউটিউব, সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে আধুনিক কেতাদুরস্ত পোশাকে সকলেই এখন ট্রেন্ডি। আইবুড়ো ভাত থেকে গায়ে হলুদ হয়ে বিয়ে, এমনকি বৌভাতের ড্রেসও অনেক আগে থেকেই নামী ডিজাইনারকে দিয়ে বানিয়ে নেওয়ার হিড়িক পড়ে যায়। মা-ঠাকুমাকে নিয়ে বেনারসী কিনতে যাওয়ার দিন এখন শেষ। বাঙালি বিয়েতেও এখন অবাঙালি টাচ। মেহেন্দি, সঙ্গীত সবই হচ্ছে। সেই সঙ্গে ডিজাইনার পোশাক। সব্যসাচী মুখোপাধ্যায় বা নীতা লুল্লা অবধি পৌঁছতে না পারলেও তাদের বানানো ডিজাইন দেখে পোশাকের তুরন্ত অর্ডার দিয়ে দিচ্ছেন অনেকেই।

দেশি ফ্যাশনকে গুডবাই জানিয়ে মডার্ন বিয়েতে এখন বাজার মাতাচ্ছে ইন্দো-ওয়েস্টার্ন ডিজাইনার কস্টিউম। দেখুন তো আপনার ওয়ার্ডরোডে রয়েছে কী এমন পোশাক?

ক্রপ টপের সঙ্গে ছোট ছোট ফুলের নকশা তোলা ঘের দেওয়া স্কার্ট।  ফ্যাশনের ভাষায় ‘Flowy Skirts’ এখনকার মেয়েদের খুবই পছন্দের।  সঙ্গীত বা মেহেন্দির অনুষ্ঠানে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে এই ড্রেস।

এনগেজমেন্টে এই ধরনের ইন্দো-ওয়েস্টার্ন লেহঙ্গা স্টাইলের স্কার্ট ও টপের অর্ডার দিচ্ছেন অনেকেই। ফ্যাব্রিক ডিজাইন। সিল্ক বা ব্রোকেডের উপর নানা কারুকাজ। তাতে কখনও হাল্কা জরি বা চুমকির সাজ।

পালাজোর সঙ্গে টপ। গাউন স্টাইলে অনন্যা করে তুলবে যে কোনও মেয়েকে। এক রঙের বা কনট্রাস্টেও এই ডিজাইন আধুনিকাদের খুবই পছন্দের।

আবার সে এসেছে ফিরিয়া। ‘সারারা’র কথা মনে আছে তো। একসময় এই পোশাকের প্রতি মেয়েদের নজর ছিল সবচেয়ে বেশি। এখনকার পালাজো ও লম্বা ঝুলের কুর্তির মতো সারারা পরনে রমনীরা বেশ নজর কেড়েছিলেন রাস্তাঘাটে, শপিং মলে, টিকিটের লাইনে। সারারা একই আছে, তবে তাতে সামান্য ওয়েস্টার্ন টাচ লেগেছে। মনীশ মালহোত্রার হাতের জাদুতে কনটেম্পোরারি ডিজাইনে নতুন চমকে ফিরে এসেছে এই পোশাক।

এনগেজমেন্ট নাইট হোক বা রিসেপশন পার্টি, অনেকেই বেছে নিচ্ছেন এই কনটেম্পোরারি জাম্প স্যুট। তার সঙ্গে মানানসই এথনিক জুয়েলারি। মনীশ মলহোত্রার নতুন ডিজাইন যে কোনও নামী শপিং মলেই নজর কাড়বে।

পুরোপুরি পাশ্চাত্য স্টাইলে। ট্রেন্ডিং বোহো লুক। যে কোনও সান্ধ্য পার্টিতে আগুন লাগিয়ে দেবে।

ফিউশন মহিলাদের নতুন পছন্দ। নীল ডেনিমের সঙ্গে উজ্জ্বল রঙের লম্বা ঝুল ডিজাইনার কুর্তি। গলায় থাকবে হাল্কা পেনডেন্ট, হাতে টাইটান।

ট্রাডিশনাল যাদের পছন্দ, আবার ওয়েস্টার্নও, তাদের জন্য আবু জানি সন্দীপ খোসলার এই নয়া ডিজাইন বেশ আকর্ষণীয়। লেহঙ্গা স্টাইলে সিল্ক বা ব্রোকেডের বেসের উপর ছোট ছোট জরির কাজ, চমক হল কোমরের একটু নীচে থেকে থাই হাই স্লিট। সাহসী রমণীদের জন্য এই পোশাক বেশ মানানসই।

Shares

Comments are closed.