শুক্রবার, জুলাই ১৯

বিজেপি তৃণমূল সংঘর্ষে উত্তপ্ত মল্লারপুর, রাতভর চলল বোমাবাজি

দ্য ওয়াল ব্যুরো, বীরভূম: কাটমানি নেওয়াকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভের আঁচ ছড়িয়ে পড়ছে জেলার বিভিন্ন প্রান্তে। এ বার কাটমানি নিয়ে তৃণমূল ও বিজেপি সংঘর্ষে উত্তপ্ত হল বীরভূমের মল্লারপুরের কৃষ্ণনগর গ্রাম।

গতরাতে এই দুই রাজনৈতিক দলের সংঘর্ষে রাতভর ব্যাপক বোমাবাজি চলে বলে অভিযোগ। দুই রাজনৈতিক দলের বোমাবাজিতে সন্ত্রস্ত হয়ে পড়েন এলাকাবাসী। সকাল থেকে এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে বিশাল পুলিশবাহিনী।

বিজেপির অভিযোগ, তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্য শেখ আজাদ, প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় ঘর তৈরির জন্য প্রায় কুড়ি জনের কাছে টাকা নিয়ে আত্মসাৎ করেছেন। এ বিষয়ে তাঁরা বিডিওর কাছে লিখিত অভিযোগ জানান। এরপরেই শেখ আজাদের নেতৃত্বে তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা এসে বিজেপি কর্মীদের বাড়িতে হামলা চালায় এবং বোমাবাজি শুরু করে।

যদিও তৃণমূল নেতৃত্ব বিজেপির অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, তাঁরা গ্রামের উন্নয়নের জন্য একটা বৈঠক করছিলেন। সেই বৈঠক চলাকালীন বিজেপির সরমান শেখ ও লিয়াকতের নেতৃত্বে বোমাবাজি শুরু হয়। অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে আরও তেতে উঠেছে এলাকা। গ্রামের পরিস্থিতি সামাল দিতে মল্লারপুর থানার পুলিশ গ্রামে টহল দিচ্ছে।

অন্যদিকে পাড়ুই এর ভেড়ামারি গ্রামে বিজেপি কর্মী শেখ জহিরের বাড়ি লক্ষ্য করে বোমাবাজি ও জহিরকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। গতকাল রাত্রে তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ শেখ জহিরের। তিনি জানান. পুলিশকে খবর দেওয়া হলেও পুলিশ কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। তাই আতঙ্কে ভুগছেন তাঁরা।

এ দিনই তৃণমূল-বিজেপির লড়াইকে ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে বনসংখ্যা গ্রাম পঞ্চায়েতের ডোমাইপুর গ্রামও। তৃণমূলের অভিযোগ, বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা সিউড়ি ২ পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যা পম্পা চৌধুরীর বাড়িতে ভাঙচুর করে। আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয় একটি মোটরবাইকে।  অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিজেপি নেতৃত্ব।

ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে পাড়ুই থানার পুলিশ। এলাকা এখনও থমথমে।

Comments are closed.