শুক্রবার, অক্টোবর ১৮

কোমর জলে জাল ফেলতেই কুমিরে কামড়ে ধরল পা

দ্য ওয়াল ব্যুরো, দক্ষিণ ২৪ পরগনা : প্রতিদিনের মতোই নদীতে জাল ফেলেছিলেন তিনি। মাছ উঠলে তবেই ঘুরবে সংসারের চাকা। কোমর জলে দাঁড়িয়ে মাছ ধরার সময় হঠাৎই টের পান শক্ত দাঁত ক্রমশ চেপে বসছে উরুর কাছে। এক লহমায় বুঝে যান কুমিরে ধরেছে তাঁকে। বুদ্ধি করে হাতে ধরা জাল ফেলে দেন কুমিরের মুখের উপর। বেগতিক বুঝে কুমির কামড়ে ধরে পা। পাশে থাকা একটি গাছের শিকড় ধরে ফেলে কোনও রকমে তাল সামলে নেন বছর ষাটেকের প্রৌঢ়া।

বেশ কিছুক্ষণ ধরে অসম লড়াই চলার পরে গৌরী খালুইয়ের চিৎকার শুনে ছুটে আসেন আশেপাশের মৎস্যজীবীরা। তাঁরাই লাঠিসোটা এনে কুমিরকে জখম করে উদ্ধার করেন তাঁকে।

পাথরপ্রতিমা ব্লকের ছোট রাক্ষসখালি এলাকার বাসিন্দা গৌরী। স্বামী গোবর্ধন খালুয়া মারা গেছেন বেশ কিছু বছর আগে। তারপর থেকে সংসার বাঁচাতে জাল নিয়ে মাছ ধরতে যান গৌরী। সুন্দরবনের জলে কুমির ডাঙায় বাঘের আতঙ্ক নিয়েই প্রতিদিন বাঁচেন বাসিন্দারা। গৌরীও। তবে আজ যে সেই বিপদ এমন করে হানা দেবে ভাবতে পারেননি। সকাল দশটা নাগাদ বাড়ির কাছে জগদ্দল নদীতে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন তিনি। তখনই পড়েন কুমিরের মুখে। তবে সাহস হারাননি। সাধ্যমতো লড়াই করেছেন।  জলের উপর জেগে থাকা গাছের শিকড় আপ্রাণ চেপে ধরেছিলেন যাতে কোনও মতে তাঁকে টেনে না নিয়ে যেতে পারে কুমির।

স্থানীয় বাসিন্দারা গৌরীকে উদ্ধার করে স্থানীয় মাধবনগর গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে তাঁর শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে কলকাতায় রেফার করেন চিকিৎসকরা।

Comments are closed.