সোমবার, এপ্রিল ২২

অরুণাচলে বিরাট ধাক্কা বিজেপির, ২ মন্ত্রী ও ৬ বিধায়কের পদত্যাগ

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ভোটে প্রার্থী হতে পারেননি। সেই ক্ষোভে অরুণাচল প্রদেশে বিজেপি ছাড়লেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কুমার ওয়ালি এবং পর্যটন মন্ত্রী জারকার গামলিন। দলের সাধারণ সম্পাদক জামপুন গামবিন এবং ছয় বিধায়কও দলত্যাগ করেছেন। সব মিলিয়ে গত এক সপ্তাহে উত্তর-পূর্বের বিভিন্ন রাজ্যে দল ছেড়েছেন ২৫ জন বিজেপি নেতা। করেছে। ত্রিপুরা বিজেপির সহ সভাপতি সুবল ভৌমিক গত মঙ্গলবার দলত্যাগ করেছেন। তিনি যোগ দিয়েছেন কংগ্রেসে। রাহুল গান্ধীর দল তাঁকে ওয়েস্ট ত্রিপুরা লোকসভা কেন্দ্রে প্রার্থী করতে পারে বলে জানা যাচ্ছে।

অরুণাচলের দলত্যাগী মন্ত্রী ও বিধায়করা যোগ দিচ্ছেন কনরাড সাংমার ন্যাশনাল পিপলস পার্টিতে। একসময় ওই দলটি বিজেপির জোটসঙ্গী ছিল। কিন্তু এবার একা ভোটে লড়বে বলে ঘোষণা করেছে। সিকিমের এসকেএম নামে আর একটি দলও বিজেপির সঙ্গ ত্যাগ করেছে। পুরো উত্তরপুর্ব ভারতে মাত্র দু’টি দলের সঙ্গে জোট বাঁধতে পেরেছে বিজেপি।

আগামী ১১ এপ্রিল অরুণাচলে ভোটগ্রহণ হবে। লোকসভার সঙ্গে বিধানসভা ভোটও হবে সীমান্তবর্তী ওই রাজ্যে। রাজ্যের দলত্যাগী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কুমার ওয়ালি বলেছেন, বিজেপি সবসময় পরিবারতন্ত্র নিয়ে কংগ্রেসের সমালোচনা করে। কিন্তু অরুণাচলে মুখ্যমন্ত্রীর পরিবারের তিনজন ভোটে লড়ার জন্য টিকিট পেয়েছেন। ন্যাশনাল পিপলস পার্টির টমাস সাংমা বলেছেন, ৬০ সদস্যের বিধানসভায় আমরা ৩০-৪০ টি আসনে প্রার্থী দেব। জিততে পারলে সরকার গড়ব একাই। তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন, ত্রিশঙ্কু বিধানসভা হলেও বিজেপির সঙ্গে জোট বেঁধে সরকার গড়বেন না।

জারকার গামলিন বলেছেন, আমাকে যদি আগে জানানো হত এবার ভোটে টিকিট পাব না, আমি দল ছাড়তাম না। আমাকে দল সব সময় ভুল বুঝিয়েছে। তাঁর দাবি, সমর্থকদের কথাতেই বিজেপি ছেড়েছেন। তিনি বলেন, পার্টি অথবা জনগণ, দুইয়ের মধ্যে একটাকে বেছে নিতে হয়েছে আমায়। ভোটের রাজনীতিতে পার্টির চেয়ে জনগণ বেশি গুরুত্বপূর্ণ। যে জনগণকে আমি গত তিন বছর ধরে নেতৃত্ব দিয়েছি, তাঁরাই চেয়েছিলেন, আমি যেন বিজেপিতে না থাকি।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বিজেপির উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নেতা কিরেণ রিজিজু বলেন, কে টিকিট পাবে না পাবে, সিদ্ধান্ত নিয়েছে পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন। তাঁর কথায়, কে প্রার্থী হবেন, তা দলের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। দলের রাজ্যের নির্বাচনী কমিটি সুপারিশ করে কাকে টিকিট দেওয়া উচিত। সেই অনুযায়ী চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় নির্বাচনী কমিটি। একথা সত্যি যে, এবার অনেক মন্ত্রীকে টিকিট দেওয়া হয়নি। আমাদের পার্লামেন্টারি বোর্ড রাজ্যের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেই এসম্পর্কে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিজেপি অরুণাচল প্রদেশে বিধানসভা ভোটে ৫৪ জন প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে ইতিমধ্যে।

Shares

Comments are closed.