সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৩

টাকার দাবিতে ফোন, দোকান লক্ষ্য করে বোমা, আতঙ্ক বর্ধমান শহরে

দ্য ওয়াল ব্যুরো, বর্ধমান: প্রথমে বিপুল অঙ্কের টাকা দাবি। তার কিছুক্ষণের মধ্যে দোকান লক্ষ্য করে বোমা। চারদিনের মধ্যে এমন দু দুটি ঘটনায় আতঙ্কিত বর্ধমান শহরের ব্যবসায়ীরা।

শুক্রবার রাত দশটা নাগাদ ফোন আসে শহরের একেবারে কেন্দ্রস্থলে জিটি রোডের উপর ঢলদীঘির কাছে একটি বিরিয়ানির দোকানের মালিকের মোবাইলে। দশ লক্ষ টাকা দাবি করে কেটে দেওয়া হয় ফোন।

অভিযোগ, রাত ১১টা নাগাদ দোকান বন্ধ করার সময় ওই দোকান লক্ষ্য করে পরপর বোমা ছোড়ে কয়েকজন দুষ্কৃতী। দোকানের কর্মচারীরা বাইরে দাঁড়িয়ে সে সময় গোছগাছ করছিল। বোমার স্প্লিন্টারের আঘাতে জখম হন তাঁদের মধ্যে ছ’জন। তাঁদের বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। খবর পেয়ে আসে পুলিশ। ঘটনাস্থল দেখে তাঁদের অনুমান বোমাগুলি যথেষ্ট শক্তিশালী ছিল।

চারদিন আগে বর্ধমান শহরের জিটি রোডের উপর কৃষ্ণপুরে একটি ইলেকট্রিক দোকানে একইরকম হামলা হয়েছিল। ওই দোকানের মালিকের কাছেও পাঁচ ‌লক্ষ টাকা দাবি করে ফোন আসে। সে দিনই রাতে দোকান বন্ধের সময় পরপর বোমা ছোড়ে দুষ্কৃতীরা। তবে সে দিন কেউ আহত হননি। সেই ঘটনায় এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি। আবার একইভাবে ব্যবসায়ীর উপর হামলার ঘটনায় আতঙ্কিত কার্জন গেট এলাকার ব্যবসায়ীরা।

আগামী সোমবার কার্জনগেটের কাছে সংস্কৃতি লোকমঞ্চে প্রশাসনিক বৈঠক করতে আসছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার আগে পরপর দুষ্কৃতী হামলায় পুলিশের ঢিলেঢালা মনোভাব নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন শহরের মানুষ। জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখার্জী অবশ্য বলেন, ‘‘কৃষ্ণপুরের ঘটনায় যথাযথ তদন্ত করছে পুলিশ। দুটো ঘটনায় একই দুষ্কৃতী দল জড়িত আছে কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। শীঘ্রই দুষ্কৃতীদের পাকড়াও করা হবে।’’

Comments are closed.