সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৩

উপভোক্তারা কাটমানি চাইতে আসতেই বিষ খেলেন কাউন্সিলর

  • 284
  •  
  •  
    284
    Shares

দ্য ওয়াল ব্যুরো, কোচবিহার: বিষ খেয়ে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লেন মেখলিগঞ্জ পুরসভার কাউন্সিলার মন্টু মণ্ডল। কাটমানি ফেরত দেওয়ার চাপেই ওই তৃণমূল কাউন্সিলর বিষ খেয়েছেন বলে অভিযোগ। এই ঘটনা ঘিরে তীব্র উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে মেখলিগঞ্জে। গুরুতর অসুস্থ মন্টুবাবুকে জলপাইগুড়ি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশসূত্রে জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যায় টাকা ফেরতের দাবিতে কাউন্সিলরের বাড়িতে পৌঁছোন উপভোক্তারা। তখনই টাকা ফেরত দিতে অপারগ বলে জানিয়ে ঘরে ঢুকে যান তিনি। ঘরে ঢুকে বিষ খেয়ে বাইরে বেরিয়ে এসে মাটিতে ঢলে পড়ে যান। পরিস্থিতি দেখে হতবম্ব হয়ে যান উপস্থিত উপভোক্তা ও তাঁদের বাড়ির লোকজন। তাঁরাই মন্টু মণ্ডলকে নিকটবর্তী মেখলিগঞ্জ মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর কর্তব্যরত চিকিৎসকরা মন্টুবাবুকে জলপাইগুড়ি জেলা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করে দেন।

মন্টুবাবুর ছেলে সুমনের দাবি “কাটমানির টাকা নেওয়ার জন্য যারা তাঁদের বাড়িতে এসেছিল তাঁরা বাবাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার জন্য জোর করছিল। তাঁর গায়েও হাত দেয়। উপভোক্তাদের চাপে আত্মরক্ষার তাগিদে বিষ খেয়েছেন বাবা। এই ঘটনায় বিজেপির ইন্ধন রয়েছে।”

যদিও বিজেপি এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। বিজেপির মেখলিগঞ্জ শহর মণ্ডল কমিটির সাধারণ সম্পাদক আসেকার রহমান বলেন, “মেখলিগঞ্জের ৪ নং ওয়ার্ডের “সবার জন্য ঘর’ প্রকল্পে কাটমানি নিয়েছেন মন্টু মণ্ডল। যাঁদের কাছে টাকা নিয়েছেন তাঁরা একমাস আগে মন্টুবাবুর বাড়িতে গেলে স্ট্যাম্পপেপারে সই করে তিনি লিখে দেন কাটমানির টাকা ফেরত দেবেন। এই প্রতিশ্রুতি মতোই উপভোক্তারা টাকা নিতে গেছিলেন তাঁরা। কোনও উপভোক্তা তাঁকে চাপ দেননি বা গায়ে হাত তোলেননি। উপভোক্তাদের দেখেই উনি ঘরের ভেতর ঢুকে যান। একটু পর জানতে পারি বিষ খেয়েছেন।”

এই ঘটনার পর তীব্র উত্তেজনা দেখা দেয় মেখলিগঞ্জে। বিশাল পুলিশ বাহিনী টহল দিচ্ছে গোটা এলাকায়।

Comments are closed.